অন্যান্য

বর্ধমান বিস্ফোরণ: ৪ বাংলাদেশিসহ ১৯ জঙ্গির কারাদণ্ড

প্রকাশ : ৩১ আগষ্ট ২০১৯

বর্ধমান বিস্ফোরণ: ৪ বাংলাদেশিসহ ১৯ জঙ্গির কারাদণ্ড

  কলকাতা প্রতিনিধি

পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানে বিস্ফোরণের ঘটনায় নিষিদ্ধ জঙ্গিগোষ্ঠী জামা'আতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) চার নেতাকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন কলকাতার একটি আদালত। এ মামলায় আরও ১৫ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার কলকাতার নগর দায়রা আদালতে মুখ্য বিচারক সিদ্ধার্থ কাঞ্জিলাল এই সাজা ঘোষণা করেন। রায়ে বাংলাদেশের নাগরিক জেএমবির জঙ্গি শেখ রহমতুল্লা, সাদিক সুমন ওরফে আরিফুল, হাবিবুর রহমান ওরফে জাহিদুল ইসলাম ও মুহম্মদ রুবেকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড এবং ২০ হাজার রুপি জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। অন্যদের ৬ থেকে ৮ বছর কারাদণ্ড এবং ২০ হাজার রুপি জরিমানা অনাদায়ে এক বছর করে সাজা দিয়েছেন আদালত।

২০১৪ সালের ২ অক্টোবর পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান শহরের লাগোয়া খাগড়াগড়ের একটি বাড়িতে ভয়াবহ বিস্ম্ফোরণে জেএমবির দুই সদস্য নিহত হয়। সে সময় ওই বাড়ি থেকে ৫৫টি ইম্প্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস, আরডিএক্স, বোমা তৈরির অন্যান্য সরঞ্জাম, ও সিমকার্ড উদ্ধার করেছিল পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ।

ভারতের জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এনআইএ) তদন্তে জানা যায়, বাংলাদেশে সুবিধা করতে না পেরে ভারতে পালিয়ে এসে জেএমবির জঙ্গিরা শেখ হাসিনা সরকারকে উৎখাত করার ষড়যন্ত্র করছিল। জেএমবির জঙ্গিরা ধারাবাহিক নাশকতার প্রস্তুতি চালাচ্ছিল বলে চার্জশিটে জানায় এনআইএ। এ ঘটনায় ২০১৫ সালের মার্চে চার্জশিট দেয় এনআইএ। এ মামলায় দুই নারীসহ ৩১ জনকে গ্রেফতার করেছে এনআইএ। এর মধ্যে ১৯ জন দোষ স্বীকার করেছে। তবে জেএমবি শীর্ষ নেতাসহ ১২ জন দোষ স্বীকার করেনি।

এদিন দণ্ড ঘোষণার আগে আসামিদের বিচারক বলেন, 'তোমরা জান, তোমরা যে অপরাধ করেছ তাতে তোমাদের কি সাজা হতে পারে? তোমাদের কি এই নিয়ে কিছু বলার আছে? জবাবে আসামি দুই নারী বলেন, 'আমাদের ভুল হয়ে গিয়েছে। ছোট ছোট বাচ্চা রয়েছে। দয়া করে আমাদের লঘু শাস্তি দেওয়া হোক। আপনার সামনে আমরা দোষ স্বীকার করেছি।' অন্য আসামিরাও কম লঘু শাস্তি দেওয়ার আবেদন করে। পরে বিচারক সাজা ঘোষণা করেন।

মন্তব্য


অন্যান্য