সারাদেশ

হবিগঞ্জে সাংবাদিক হত্যার দায়ে ৩ জনের যাবজ্জীবন

প্রকাশ : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

হবিগঞ্জে সাংবাদিক হত্যার দায়ে ৩ জনের যাবজ্জীবন

দণ্ডপ্রাপ্ত ২ জন -সমকাল

  হবিগঞ্জ প্রতিনিধি

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে চাঞ্চল্যকর সাংবাদিক জুনাইদ আহমদ হত্যা মামলায় ৩ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে আরও ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। 

সোমবার দুপুর ১২টায় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ নাছিম রেজা এ রায় ঘোষণা করেন। নিহত সাংবাদিক জুনাইদ উপজেলার সাতহাইল গ্রামের বাসিন্দা। 

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- একই গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে বাদশা মিয়া, মিছির আলীর ছেলে রাহুল মিয়া ও আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে ফরিদ মিয়া। রায় ঘোষণার সময় বাদশা ও রাহুল আদালতে উপস্থিত ছিলেন। অপর আসামি ফরিদ মিয়া লন্ডনে পলাতক রয়েছেন। 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১২ সালের ১০ জুলাই রাতে সাংবাদিক জুনাইদ আহমদ বাড়ি থেকে বের হয়ে হবিগঞ্জে যান। ওই রাতেই দুর্বৃত্তরা তাকে হত্যা করে আলামত নষ্ট করার জন্য লাশ শায়েস্তাগঞ্জ রেললাইনে ফেলে রাখেন। পরদিন সকালে সাংবাদিক জুনাইদ আহমদের মৃতদেহ ২০ টুকরা অবস্থায় রেলওয়ে পুলিশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় জুনাইদের ভাই মোজাহিদ আহমদ বাদি হয়ে হবিগঞ্জের আদালতে মোবাইল ফোনের কললিস্টের সূত্র ধরে একই গ্রামের ফরিদ উদ্দিনকে প্রধান আসামি করে ৪ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার খবর পেয়েই ফরিদ লন্ডনে পালিয়ে যান। অপর আসামিরাও আত্মগোপন করেন। 

হবিগঞ্জের কোর্ট ইন্সপেক্টর মো. আল আমিন হোসেন জানান, চাঞ্চল্যকর এ মামলায় ২০ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্যগ্রহণ শেষে রায় ঘোষণা করেছেন আদালত। 

তিনি জানান, মামলার অপর আসামি আব্দুল হামিদকে ওই বছরই স্থানীয় জনতা আটক করে উত্তমমধ্যম দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। প্রায় বছর খানেক জেল খেটে বের হলে স্থানীয় লোকজন তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে গণপিটুনি দিলে আব্দুল হামিদ মারা যান।

অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট আব্দুল আহাদ ফারুক বলেন, সাংবাদিক জুনাইদ হত্যা মামলার রায়ে আমরা ও তার পরিবারের সদস্যরা সন্তুষ্ট। তবে এ সাজা যেন বহাল থাকে।

মন্তব্য


অন্যান্য