সারাদেশ

কাঁঠালবাড়ী ঘাটে তিন কিলোমিটার যানজট

প্রকাশ : ১৮ আগষ্ট ২০১৯ | আপডেট : ১৮ আগষ্ট ২০১৯

কাঁঠালবাড়ী ঘাটে তিন কিলোমিটার যানজট

ফাইল ছবি

  শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি

স্বজনদের সঙ্গে ঈদ করতে বাড়ি আসা মানুষ ফিরছে কর্মস্থল রাজধানীতে। এতে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার কাঁঠালবাড়ী ঘাটে রোববার সারাদিনই ছিল যাত্রীদের চাপ। এতে ঘাট এলাকার প্রায় ৩ কিলোমিটারজুড়ে সৃষ্টি হয় যানজট।

ঘাটের একাধিক সূত্রে জানা যায়, বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কাঁঠালবাড়ী ঘাটে দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীর ভিড় বাড়তে শুরু করে। ঘাট থেকে শিমুলিয়ার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া প্রতিটি ফেরি, লঞ্চ, স্পিডবোটেই ছিল উপচে পড়া ভিড়। লঞ্চে ভিড় সামাল দিতে বিআইডব্লিউটিএ, পুলিশ, র‌্যাব, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ বিপুলসংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিয়োজিত রয়েছেন। ফেরিতে যানবাহনের চেয়ে যাত্রী বেশি ছিল। যশোর, বরিশাল, খুলনাসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে প্রতিটি যানবাহন যাত্রীবোঝাই হয়ে কাঁঠালবাড়ী ঘাটে আসছে। তবে ঘাট পর্যন্ত আসতে যাত্রীদের গুনতে হচ্ছে দেড় থেকে দ্বিগুণ ভাড়া। এ রুটের স্পিডবোট ও কিছু লঞ্চেও বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ উঠেছে।

ঘাট এলাকায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান, সহকারী পুলিশ সুপার আবির হোসেন, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সালমা পারভীন, আল নোমানসহ বিআইডব্লিউটিএ, পুলিশ, র‌্যাবসহ বিপুলসংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত থেকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করছেন।

বিআইডব্লিউটিএ কাঁঠালবাড়ী ঘাট পরিদর্শক আক্তার হোসেন সমকালকে বলেন, 'আজ সকাল থেকেই লঞ্চ ও স্পিডবোটে যাত্রীদের চাপ ছিলো। প্রশাসনের উপস্থিতিতে আমরা প্রতিটি লঞ্চেই ধারণক্ষমতা অনুযায়ী যাত্রী তুলে দিচ্ছি।'

বিআইডব্লিউটিসি কাঁঠালবাড়ী ঘাট ম্যানেজার আ. সালাম বলেন, 'আমরা প্রতিটি ফেরিতে যাত্রীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করছি।'

শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান সমকালকে বলেন, 'ফেরিতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। লঞ্চ ও স্পিডবোটে ধারণক্ষমতা অনুযায়ী যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। কোথাও যাত্রী হয়রানির অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।'

মন্তব্য


অন্যান্য