সারাদেশ

নতুন বাড়ি পেল বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের পরিবার

প্রকাশ : ১১ জানুয়ারি ২০১৯ | আপডেট : ১১ জানুয়ারি ২০১৯

নতুন বাড়ি পেল বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের পরিবার

শুক্রবার বীরশ্রেষ্ঠের পরিবারের হাতে বাড়ির চাবি হস্তান্তর করা হয় -সমকাল

  নোয়াখালী প্রতিনিধি

বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের গ্রামের বাড়ি নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার রুহুল আমিন নগরে (সাবেক বাগ পাঁচরা) একটি বাড়ির নির্মাণকাজ শেষ করেছে নৌবাহিনী। 

শুক্রবার বাড়িটি বীরশ্রেষ্ঠের পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। 

হস্তান্তরের আগে বাড়িটির উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম নৌ আঞ্চলিক কমান্ডার রিয়ার অ্যাডমিরাল এম আবু আশরাফ বিএসপি, এনসিসি, পিএসসি।

বাড়ি হস্তান্তর উপলক্ষে এক মতবিনিময় সভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা টিনাপালের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন রিয়ার অ্যাডমিরাল এম আবু আশরাফ। 

সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন নৌবাহিনীর কমডোর নিজামুল হক, নোয়াখালী জেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা ড. মাহে আলম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আবু ইউসুপ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দীপক জ্যোতি খীসা, নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্ট কমান্ডার এম শাহাজাহান মজুমদার, বীরশ্রেষ্ঠের বড় মেয়ে নূরজাহান বেগম নার্গিস, ছোট ছেলে শওকত আলী, সোনাইমুড়ী অন্ধ কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া প্রমুখ। 

অনুষ্ঠানে বীরশ্রেষ্ঠের পরিবারের হাতে বাড়ির চাবি হস্তান্তর করা হয়।

সভায় প্রধান অতিথি আবু আশরাফ বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের শ্রেষ্ঠ সন্তান এই বীরের প্রতি শুধু বাসভবন নয়, ভবিষ্যতে তাদের সব সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করাসহ ছেলে শওকতের উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে। 

বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের বড় মেয়ে নূরজাহান বেগম নার্গিস বলেন, তার মায়ের মৃত্যুর মাত্র তিন দিন পর তিন মেয়ে ও দুই ছেলেকে বাড়িতে রেখে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন রুহুল আমিন। তিনি নতুন বাড়ির জন্য সরকার ও নৌবাহিনীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। 

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধা এবং বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের পরিবারের জন্য যা করেছে, অতীতে কোনো সরকার তা করেনি।

বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন ১৯৩৫ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম আজহার পাটোয়ারী ও মা জুলেখা খাতুন। ১৯৪৯ সালে ম্যাট্রিকুলেশন পাস করেই তিনি নৌবাহিনীতে যোগ দেন। করাচিতে প্রশিক্ষণ শেষে প্রবেশনারি হিসেবে করাচির পিএনএস কারসাজে কাজ শুরু করেন।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হলে রুহুল আমিন পাকিস্তান নৌবাহিনীর চাকরি ছেড়ে দিয়ে বাড়ি চলে আসেন। এলাকার কয়েকশ' তরুণ যুবককে নিয়ে একটি মুক্তিযোদ্ধা দল গঠন করেন তিনি। ১৯৭১ সালের মে মাসে প্রথম সপ্তাহে ৫০০ প্রশিক্ষিত যুবক নিয়ে তিনি ৩নং সেক্টর কমান্ডার মেজর কেএম সফিউল্লাহর অধীনে যুদ্ধে যোগ দেন। পরে তাকে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজে নিয়োগ দেওয়া হয়। ওই সময় তিনি যুদ্ধজাহাজ পলাশ ও পদ্মার স্কোয়াড্রন লিডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭১ সালের ১০ ডিসেম্বর খুলনার রূপসা নদীতে মুক্তিযোদ্ধাদের বহনকারী যুদ্ধজাহাজ পলাশের ইঞ্জিন রুমের দায়িত্ব পালনকালে পাকিস্তানি সেনারা বোমাবর্ষণ শুরু করে। বোমার আঘাতে জাহাজে আগুন ধরে গেলে তাতে দগ্ধ হয়ে মৃত্যুবরণ করেন রুহুল আমিন।

বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের তিন মেয়ে জাকিয়া খাতুন, নুরজাহান বেগম ও ফাতেমা বেগম। মোহাম্মদ আলী বাহার ও শওকত আলী নামে তার দুই ছেলেও আছেন। তাদের মধ্যে বড় ছেলে মোহাম্মদ আলী বাহার মারা গেছেন। আর শওকত আলী একসময় অর্থনৈতিক দৈন্যদশায় দিন পার করেছেন। তবে বর্তমান সরকার শওকত আলীকে প্রতি মাসে ৩৫ হাজার টাকা করে ভাতার ব্যবস্থা করেছে।

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

আ'লীগ নেতার দুই পা ভেঙে দিল মাদক কারবারিরা


আরও খবর

সারাদেশ

  সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে মাদক ব্যবসায় বাধা দেওয়ায় এক আওয়ামী লীগ নেতাকে পিটিয়ে দুই পা ভেঙে দিয়েছে মাদক কারবারিরা। 

শুক্রবার সকালে পিরোজপুর ইউনিয়নে মঙ্গলেরগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

হামলার শিকার ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি রুহুল আমিনকে উদ্ধার করে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন স্বজনরা।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, পিরোজপুর ইউনিয়নের কোবরানপুর গ্রামের রাসেলের নেতৃত্বে ২০-২৫ জনের একটি সিন্ডিকেট দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় মাদকের কারবার চালিয়ে আসছে। এক মাস আগে রুহুল আমিনের ছেলে লুৎফরকে মাদক দেওয়ার চেষ্টা করে রাসেল ও তার সহযোগী আবদুর রহিম। এ ঘটনায় রুহুল আমিন গালমন্দ করেন আবদুর রহিমকে। এরপর লুৎফরকে একা পেয়ে পিটিয়ে আহত করে আবদুর রহিম। এ ঘটনায় এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তির কাছে বিচার দাবি করেন রুহুল আমিন। এতে রাসেল ও তার সহযোগীরা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে রাসেলের নেতৃত্বে ১০-১২ জনের একটি দল রুহুল আমিনকে পিটিয়ে আহত করে। এরপর শুক্রবার সকালে আবার দ্বিতীয় দফায় রাসেলের নেতৃত্বে পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী গিট্টু হৃদয়, কমল, সোলায়মান, আবদুর রহিম, নুরুদ্দিন, ইমরানসহ অর্ধশতাধিক লোক হকিস্টিক ও লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে রুহুল আমিনের দুই পা ভেঙে দেয়।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, রাসেল বাহিনীর অত্যাচারে এলাকার লোকজন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। গত বছর মাজহারুল ইসলাম নামের এক যুবককে পিটিয়ে হাত-পা ভেঙে দিয়েছে তারা। 

অভিযুক্ত রাসেলের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মাদকের সঙ্গে তিনি জড়িত নন। তার এক বন্ধুকে পিটিয়ে আহত করার কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে তার লোকজন পাল্টা হামলা চালিয়েছে। 

সোনারগাঁ থানার ওসি মোরশেদ আলম জানান, হামলার খবর শুনেছেন। অভিযোগ পেলে মাদক কারবারিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

২১ বছর পর গ্রেফতার আজিবুন নেছা


আরও খবর

সারাদেশ
২১ বছর পর গ্রেফতার আজিবুন নেছা

প্রকাশ : ১৮ জানুয়ারি ২০১৯

  বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি

দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত আজিবুন নেছা নামের ষাটোর্ধ্ব এক নারী ২১ বছর পলাতক থাকার পর পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছেন। তিনি সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার সদর ইউনিয়নের সাধু গ্রামের তোরাব আলীর স্ত্রী। শুক্রবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। আগের দিন বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিশ্বনাথ থানার পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

এসআই জবা রানী দেব ও এসআই পরিমল শীল জানান, ১৯৯৯ সালে দায়ের করা সাধু গ্রামে ঘর পোড়ানো মামলায় আজিবুন নেছাকে অভিযুক্ত করা হয়। দীর্ঘদিন শুনানি শেষে আদালত ২০০৫ সালে আজিবুন নেছাসহ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে রায় ঘোষণা করেন। এতে আজিবুন নেছার ২ বছরের সাজা হয়।

এ ব্যাপারে বিশ্বনাথ থানার ওসি শামসুদ্দোহা সমকালকে বলেন, ২১ বছর ধরে ওই আসামির কোনো হদিস পাওয়া যাচ্ছিল না। অবশেষে সিলেট থেকে তাকে গ্রেফতারের পর সাজাপ্রাপ্ত ওই নারীকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

এবার ভিন্ন চিত্র দেখলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিত


আরও খবর

সারাদেশ

ওসমানী বিমানবন্দর

এবার ভিন্ন চিত্র দেখলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিত

প্রকাশ : ১৮ জানুয়ারি ২০১৯

  সিলেট ব্যুরো

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে সিলেটে এসেছিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। সে দিন যথারীতি সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দলীয় নেতাকর্মীদের ভিড় দেখা গিয়েছিল। ২০০৯ সালে অর্থমন্ত্রী হওয়ার পর প্রত্যেকবার সিলেটে এলেই এমন চিত্র দেখেছেন তিনি। তবে 'সাবেক' হওয়ার মাত্র এগারো দিন পর ওসমানী বিমানবন্দরে নেমে সম্পূর্ণ ভিন্ন চিত্র দেখলেন মুহিত। শুক্রবার দুপুরে ঢাকা থেকে বিমানযোগে সিলেটে পৌঁছে দেখলেন তাকে অভ্যর্থনা জানাতে অপেক্ষা করছেন মাত্র দু'জন!

শুক্রবার দুপুর পৌনে ২টায় নভো এয়ারের একটি ফ্লাইটে ঢাকা থেকে সিলেট আসেন সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিত। বিমান থেকে নেমে একটি হুইল চেয়ারে করে ভিআইপি লাউঞ্জে পৌঁছান তিনি। এ সময় মুহিতকে অভ্যর্থনা জানান সাবেক এপিএস জনি ভট্টাচার্য। এ ছাড়া প্রায় জনশূন্য ভিআইপি লাউঞ্জে তাকে স্বাগত জানাতে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সদস্য ও সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম। এদের নিয়েই সাবেক অর্থমন্ত্রী সরাসরি সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে যান। শুক্রবার দুপুরে সিলেট স্টেডিয়ামে ঢাকা ডায়নামাইটসের সঙ্গে সিলেট সিক্সার্সের বিপিএল ম্যাচ ছিল। সিলেট সিক্সার্সের প্রধান পৃষ্ঠপোষক সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিত এবং চেয়ারম্যান তার ছেলে সাহেদ মুহিত।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তার ছোটভাই ড. এ কে আবদুল মোমেন এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। প্রথমবারের মতো নির্বাচিত হয়ে ড. মোমেন নতুন সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন। এ আসনে টানা তিনবার আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য ও মন্ত্রী হয়েছেন আবুল মাল আবদুল মুহিত।

এক দশক ধরে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকালে মুহিত ঢাকা থেকে সিলেট ফিরলে ভিড় লেগে থাকত ওসমানী বিমানবন্দরে। ভিআইপি লাউঞ্জে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের পড়ে যেত হুড়োহুড়ি-ধাক্কাধাক্কি। প্রতি বার মোটর শোভাযাত্রা সহকারে পারিবারিক বাড়ি হাফিজ কমপ্লেক্সে তাকে নিয়ে যাওয়া হত।