সারাদেশ

জেডিসি পরীক্ষার এক কেন্দ্র থেকেই এতগুলো নকল উদ্ধার!

প্রকাশ : ০৯ নভেম্বর ২০১৮ | আপডেট : ০৯ নভেম্বর ২০১৮

জেডিসি পরীক্ষার এক কেন্দ্র থেকেই এতগুলো নকল উদ্ধার!

  গৌরনদী (বরিশাল) প্রতিনিধি

জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষায় নকল করার অভিযোগে বরিশালের গৌরনদী উপজেলার ৫টি মাদ্রাসার ৮ পরীক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এ সময় পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে বড় এক ব্যাগভর্তি নকল উদ্ধার করা হয়েছে।

শুক্রবার সকালে উপজেলার কাছেমাবাদ সিদ্দিকীয়া কামিল মাদ্রাসা পরীক্ষা কেন্দ্রে এই ঘটনা ঘটে।

বহিষ্কৃতরা হলো উপজেলার জংগলপট্টি পীর বাদশা মিয়া দাখিল মাদ্রাসার পরীক্ষার্থী তাজিলা (রোল-৩০৫৮১৭), খাদিজা আক্তার (রোল-৩০৫৮১৮) ও এনি আকতার (রোল-৩০৫৮৩১)। মাগুরা মাদারীপুর নেছারিয়া দাখিল মাদ্রাসার সাব্বির আল জাবের (রোল-৩০৫৭৯১) ও মাফুজ বেপারী (রোল-৩০৫৭৮৯)। উপজেলার ইল্লা দাখিল মাদ্রাসার পরীক্ষার্থী সোনা মনি (রোল-৩০৬০১৫)। মিয়ার চর দাখিল মাদ্রাসার ইমরান সরদার (রোল-৩০৫৫৭৮) এবং পশ্চিম লক্ষণ কাঠি দারুস ছালাম দাখিল মাদ্রাসার পরীক্ষার্থী সোহান (রোল-৩০৫৭০১)।

জানা গেছে, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও গৌরনদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খালেদা নাছরিন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ওই কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। এ সময় কেন্দ্রের পরীক্ষার্থীদের দেহ তল্লাশি করে তিনি বিপুল পরিমাণ নকল উদ্ধার করেন। একই সময় নকল করার সময় ৮ পরীক্ষার্থীদেরকে হাতেনাতে ধরে ফেলেন। পরে তিনি তাদের বহিষ্কার করেন। 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে গৌরনদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খালেদা নাছরিন জানান, পরীক্ষায় নকল করার দায়ে ওই ৮ শিক্ষার্থীকে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

রংপুরে বাসকে কাভার্ডভ্যানের ধাক্কা, নিহত ৩


আরও খবর

সারাদেশ

ছবি: সংগৃহীত

  রংপুর ব্যুরো

রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলায় মালবাহী কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় যাত্রীবাহী বাসের হেলপারসহ তিনজন নিহত হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছেন আরও ১০ জন। মঙ্গলবার সকালে পীরগঞ্জ ও গাইবান্ধার ধাপেরহাট সীমানাবর্তী এলাকার ফাইভস্টার মোড়ে রংপুর-ঢাকা মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। 

নিহতরা হলেন- পীরগঞ্জের প্রথম ডাঙ্গাগ্রামের শামসুন নাহার (২৭), একই উপজেলার ধোল্লাকান্দি গ্রামের ঝর্ণা বেগম। নিহত অপর জন বাসটির হেলপার ছিলেন। তার বাড়ি ঠাকুরগাঁওয়ে বলে জানা গেলেও নাম-পরিচয় জানা যায়নি। 

ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ আব্দুর রশিদ জানান, ঢাকা থেকে আসা রংপুরগামী জাকির পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি বাস ফাইভস্টার মোড়ে পৌঁছালে মালবাহী একটি কাভার্ডভ্যান বাসটিকে ধাক্কা দেয়। এতে বাসের হেলপার ও দুই নারী যাত্রী নিহত হন। আহত হন আরও দুই যাত্রী। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা এসে নিহতদের লাশ উদ্ধার করে ও আহত দুইজনকে উদ্ধার করে পীরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। 

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

নরসিংদীতে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ২


আরও খবর

সারাদেশ

নিহতদের স্বজনদের আহাজারি

  নরসিংদী প্রতিনিধি

নরসিংদীর রায়পুরায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে দুইজন মারা গেছেন। এ ছাড়া আহত হয়েছেন আরও ৫ জন। 

মঙ্গলবার সকালে উপজেলার মির্জাচর ইউনিয়নে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- বালুচর গ্রামের কাউনিয়া মিয়ার ছেলে ইকবাল (৩৪) ও মির্জারচর মধ্যপাড়া এলাকার সৈকত মিয়ার ছেলে আমান উল­াহ (৩২)। 

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, মির্জারচর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পর থেকে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিজয়ী চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা জাফর ইকবাল মানিক ও পরাজিত চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা ফারুকুল ইসলামের সমর্থকদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে আগেও দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনার পর ইউপি চেয়ারম্যান মানিকের সমর্থকরা এলাকা ছাড়া ছিলো। তিনদিন আগে এলাকা ছাড়া লোকজন এলাকায় ফিরে আসে। 

মঙ্গলবার সকালে ফারুকুল ইসলামের সমর্থকরা মানিকের সমর্থকদের ওপর আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে অতর্কিতে হামলা চালায়। এতে ৭ জন গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হলে তাদের নরসিংদী সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুইজনকে মৃত ঘোষণা করেন। 

নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাকির হাসান সংঘর্ষের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গুরুতর আহত অবস্থায় তিনজনকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। বাকি দুইজনকে নরসিংদী সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

রাঙামাটিতে উপজেলা আ. লীগ সভাপতিকে গুলি করে হত্যা


আরও খবর

সারাদেশ

ফাইল ছবি

  রাঙামাটি অফিস

রাঙামাটির বিলাইছড়ি উপজেলার আলিখ্যং এলাকায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুরেজ কান্তি তংচংগ্যা নিহত হয়েছেন। 

মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বিলাইছড়ি থানার ওসি পারভেজ আলী সমকালকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, বিলাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুরেজ কান্তি তংচংগ্যা উপজেলার ফারুয়া ইউনিয়নের নিজ এলাকায় নির্বাচনী  কাজ শেষে সকাল ৯টার দিকে নৌকায় করে ৫-৬ জন সঙ্গীকে সাথে নিয়ে বিলাইছড়ি উপজেলা সদরে ফিরছিলেন। অলিখ্যং এলাকায় পৌঁছলে দুর্বৃত্তরা সুরেজ কান্তি তংচংগ্যাকে নৌকা থেকে নিয়ে গিয়ে গুলি করে পালিয়ে যায়। পরে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় বিলাইছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  নেওয়ার পথে তিনি মারা যান।



সংশ্লিষ্ট খবর