বাজেটের আগের দিন দর সংশোধন

প্রকাশ : ১৩ জুন ২০১৯

  সমকাল প্রতিবেদক

দেশের দুই শেয়াবাজারে গত কয়েক দিন ধরে পেন্ডুলামের মতো বিভিন্ন খাতের শেয়ারের দর এদিক-ওদিক দুলছে। কখনও ব্যাংক-বীমার, কখনও উৎপাদন ও সেবামুখী খাতের শেয়ারদর বাড়ছে আবার কমছে। বাজার-সংশ্নিষ্টরা জানান, বাজেটকে কেন্দ্র করে নানা গুজব ও গুঞ্জনের প্রভাবেই এমনটি হচ্ছে। বাজেটে শেয়ারবাজার ইস্যুতে কী প্রণোদনা থাকছে- সে বিষয়ে সুস্পষ্ট ধারণা না পাওয়ায় গুজবও বেড়েছে। টানা আট দিনে ডিএসইএক্স ২২৫ পয়েন্ট বৃদ্ধির পর গতকাল বুধবার মাত্র ৬ পয়েন্ট কমে ৫৪৬৯ পয়েন্টে নেমেছে।

জাতীয় সংসদে আজ বৃহস্পতিবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের জাতীয় বাজেট উপস্থাপন করার কথা রয়েছে। এর আগের দিন গতকাল বুধবার ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং বীমা খাতের ৬৬ কোম্পানির শেয়ারদর বৃদ্ধির বিপরীতে ১৮টির দর কমেছে। এর মধ্যে বেশি বেড়েছে বীমা খাতের শেয়ারদর। সার্বিক বিচারে গতকাল এ খাতের ৪৭ কোম্পানির শেয়ারদর প্রায় ৬ শতাংশ বেড়েছে।

অন্যদিকে, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ, প্রকৌশল, ওষুধ ও রসায়ন, বস্ত্র, সিমেন্ট, সিরামিক, খাদ্যসহ বাকি ১৫ খাতের লেনদেন হওয়া ২১৫ শেয়ারের মধ্যে মাত্র ৪৫টির দর বেড়েছে, কমেছে ১৬২টির দর। এর মধ্যে বেশি কমেছে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ এবং ওষুধ ও রসায়ন খাতের শেয়ারদর। গড়ে খাত দুটির শেয়ারদর কমেছে ২ শতাংশ হারে।

অথচ আগের দিন মঙ্গলবার ছিল সম্পূর্ণ বিপরীত অবস্থা। শুধু মঙ্গলবারই নয়, এ সপ্তাহের প্রথম তিন কার্যদিবসের সার্বিক হিসাবে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শেয়ারদর কমেছিল, ক্রমবৃদ্ধির ধারায় ছিল উৎপাদন ও সেবামুখী খাতগুলোর শেয়ারের দর। আবার ঈদের ছুটির আগের সপ্তাহে ছিল এর বিপরীত চিত্র।

সূত্র জানায়, বাজেটে সুউচ্চ নির্মাণসহ নানা ক্ষেত্রে বীমা গ্রহণ বাধ্যতামূলক করার বিষয়ে সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্ত প্রকাশ হতে পারে। এমনটি হলে বীমা কোম্পানিগুলোর ব্যবসা বাড়বে। এ কারণে এ খাতের শেয়ারদর বেড়েছে। গত মে মাসেও বীমার শেয়ারদর বেশি বেড়েছিল। তাছাড়া ঈদের ছুটির পর প্রকৌশল, বস্ত্রসহ উৎপাদন ও সেবামুখী খাতের শেয়ারদর বৃদ্ধির কারণ ছিল তালিকাভুক্ত এসব কোম্পানির কাঁচামাল আমদানি এবং পণ্য রফতানির ক্ষেত্রে শুল্ক্ক ছাড়

দেওয়া গুঞ্জন।


মন্তব্য