শেষ করতে না পারায় হতাশ মাশরাফি

প্রকাশ : ১২ জানুয়ারি ২০১৯

  ক্রীড়া প্রতিবেদক

সামনে ১৮৪ রানের বড় লক্ষ্য, রান তাড়ায় দলের সবচেয়ে বিধ্বংসী ব্যাটসম্যানকে হারানো শুরুতেই, অথবা ২৫ রানের মধ্যেই হারিয়ে ফেলা দুই ওপেনারকে- ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই রংপুর রাইডার্স মুখোমুখি হয়েছিল কঠিন সময়ের। কিন্তু রাইলি রুশো ও মোহাম্মদ মিঠুনের দারুণ এক জুটিতে তারা শুধু ম্যাচেই ফেরেনি, একটা সময় ছুটছিল জয়ের পথেই। কিন্তু শেষ সময়ে দ্রুত উইকেট হারানোর মাশুল দিয়ে টানটান উত্তেজনার ম্যাচ ২ রানে হারে রংপুর। ম্যাচশেষে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা জানান, শেষদিকের চাপটা ঠিকভাবে সামলাতে পারেনি তার দল।

এদিন শেষ তিন ওভারে জয়ের জন্য ২৬ রান প্রয়োজন ছিল রংপুরের, হাতে ছিল ছয় উইকেট। সহজ এই সমীকরণটাই কঠিন হয়ে যায় পরের দুই ওভারে পাঁচ উইকেট পড়ে যাওয়ায়। ১৮তম ওভারে হ্যাটট্রিক করেন ঢাকার নবাগত বোলার আলিস আল ইসলাম। পরের ওভারে আরও দুই উইকেট তুলে নেন সুনিল নারিন। শেষ ওভারে জয়ের জন্য দরকার ছিল ১৪ রান, প্রথম দুই বলে দুই চার এলেও শেষ চার বলে মাত্র তিন রান আসায় দুই রানে হারে রংপুর।

ম্যাচশেষে মাশরাফি বলেন, শুরুর চ্যালেঞ্জগুলো ভালোভাবে জিতে তুলনামূলক সহজ সমীকরণ মেলাতে না পারায় কিছুটা হতাশ হয়েছেন তিনি, 'আমাদের জন্য আসলে ব্যাটিংয়ের শুরুর সময়টাতেই বেশি চাপ ছিল। শুরুতেই গেইল আর মারুফ আউট হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু এরপর আমরা দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছিলাম। সব পর্যায় পার হয়ে একদম শেষ পর্যায়ে এসে আর পারিনি আমরা। তবে আলিস খুব ভালো বল করেছে। শেষ পর্যন্ত ওরা নার্ভ ধরে রাখতে পেরেছে, তাই ওরাই জিতেছে।'

৪৪ বলে ৮৩ রান করা রুশোর আউটেই ম্যাচের মোড় ঘুরেছে বলে মনে করেন মাশরাফি। বলেন, 'রুশোর আউটকেই আমি এই ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট বলব। সে দারুণ ব্যাটিং করছিল। রুশো আউট হওয়ার পরপরই মিঠুনও আউট হয়ে যায়। তবে একই সঙ্গে, আমরা রানটাও একটু বেশি দিয়েছি। ওদের রান এত হওয়ার কথা ছিল না, আমরা অনেক বাজে ফিল্ডিং করে কিছু রান দিয়েছি।'

এদিন দু'দলই স্বাচ্ছন্দ্যে ব্যাট করতে পারায় ম্যাচের উইকেটের প্রশংসা করে মাশরাফি বলেন, 'এবারের বিপিএলে মনে হয় আজকেই (গতকাল) সেরা ম্যাচটা হয়েছে। উইকেট যে রকম ছিল সামনেও এরকম থাকলে আরও অনেক প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ দেখা যাবে। উইকেটটা সত্যি বলতে অনেক ভালো।'


মন্তব্য