রাতটি রোনালদোর হতে পারত

প্রকাশ : ০৯ নভেম্বর ২০১৮

রাতটি রোনালদোর হতে পারত

  স্পোর্টস ডেস্ক

৪৫৪ মিনিট পর প্রথম গোলের দেখা! অনেক পরে হলেও ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর হাসিটা ছিল চওড়া। জুভেন্তাসের জার্সিতে নিজের প্রিয় প্রতিযোগিতায় গোল পেয়েছেন। কিন্তু সেই হাসি শেষ অবধি থাকল না। অন্তিম মুহূর্তের ঝড়ে নিমেষেই মলিন হয়ে গেল সিআর সেভেনের বদনখানি। গত বুধবার উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের গ্রুপ পর্বের দ্বিতীয় লেগে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কাছে ২-১ গোলে হারে জুভেন্তাস।

প্রথম লেগে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে পাওলো দিবালার একমাত্র গোলে হেরেছিল ম্যানইউ। সেই হারের পর তুরিনের অ্যালিয়েঞ্জ অ্যারেনায় ঘুরে দাঁড়ানোর লক্ষ্যে নেমেছিল ম্যানচেস্টার। চোটজর্জর জুভেন্তাসের সামনে প্রথমার্ধে দারুণ খেলে হোসে মরিনহোর শিষ্যরা। তাতে কোনো দলই পায়নি গোলের খোঁজ। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে জুভদের লিড পাইয়ে দেন রোনালদো। ৮৫তম মিনিট অবধি যখন সেই এক গোলে এগিয়ে ছিল স্বাগতিকরা। তখন অনেকেই ধরে নেন রাতটি রোনালদোরই হতে যাচ্ছে। একটু পর হয়তো তাকে নিয়ে উল্লাসে মাতবে ওল্ড লেডিরা। ইতালিয়ান পত্রিকা শিরোনাম করবে তাকে নিয়ে। কিন্তু শেষ দিকে সব এলোমেলো। ৮৬তম মিনিটে হুয়ান মাতার গোলে সমতায় ফেরে রেড ডেভিলসরা। এরপর নির্ধারিত সময় পেরোনোর এক মিনিট আগে সুইসাইড গোলে নাম লেখান অ্যালেক্স সান্দ্রো। গোলমুখে প্রতিপক্ষের আক্রমণ আটকাতে গিয়ে নিজেই আত্নঘাতী হয়ে যান এই ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার।

শেষ চার মিনিটে ডুবল জুভেন্তাস। তাও আবার ঘরের মাঠে। অথচ নিজেদের মাঠে জুভরা বেশ শক্ত প্রতিপক্ষ। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের আগের এগারোটি হোম ম্যাচে সাতটিতে জিতেছিল তারা। তবে জুভেন্তাসের মাঠে ইউনাইটেডের অতীত পরিসংখ্যান ঝকঝকে ছিল। ২০০৩ সালে ইতালিয়ান লিডারদের ৩-০ ব্যবধানে হারায় তারা। তার আগে ১৯৯৯ সালে ইউরোপসেরার লড়াইয়ে সমানতালে হলেও দিন শেষে বিজয়ের হাসি হেসেছিল ইংলিশ ক্লাবটি। এ নিয়ে তুরিনে তৃতীয় জয় পেল ম্যানইউ। অন্যদিকে ২০০৯-১০ মৌসুমের পর চ্যাম্পিয়ন্স লীগের গ্রুপ পর্বে নিজেদের মাঠে পরাজিত হলো জুভেন্তাস।

দিনের অন্য ম্যাচে গ্যব্রিয়েল জেসুসের হ্যাটট্রিকে শাখতার দোনেৎস্ক ৬-০ গোলে বিধ্বস্ত হয়েছে ম্যানচেস্টার সিটির কাছে। এছাড়া জয় পেয়েছে বায়ার্ন মিউনিখ, রোমা ও ভ্যালেন্সিয়া।


মন্তব্য যোগ করুণ