ঈদের টিভি আয়োজন

দর্শকের ইউটিউব নির্ভরতা

বিষয়বৈচিত্র্যের অভাব

প্রকাশ : ১৩ জুন ২০১৯

 দর্শকের ইউটিউব নির্ভরতা

'বেগুনি পাঞ্জাবী' নাটকের দৃশ্যে সারওয়ার বৃষ্টি ও শ্যামল মাওলা

দর্শকের ঈদ আনন্দে বিশেষ মাত্রা যোগ করতে টিভি চ্যানেলগুলো আয়োজন করে থাকে  তিন থেকে ১০ দিনের বিশেষ অনুষ্ঠানমালার। যেখানে থাকে নাটক, ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান, তারকা আড্ডা, সিনেমা ইত্যাদি। এবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, ঈদের এই বিশেষ আয়োজন কতটা বিনোদিত করতে পেরেছে দর্শকদের? এ প্রশ্নেরই উত্তর খুঁজেছেন ইকবাল খন্দকার


সময় যত যাচ্ছে, ততই বাড়ছে মানুষের ব্যস্ততা। সুতরাং দর্শক চাইলেই এখন আর টেলিভিশনের সামনে বসে বিজ্ঞাপন 'উপভোগ' করতে পারে না। তাই বলে মানসম্পন্ন নাটকগুলো দেখা হবে না, তাই-বা হয় কী করে! তাহলে উপায়? জি, ইউটিউব। আশঙ্কাজনক হলেও সত্য, এখন টিভি চ্যানেলের বিকল্প মাধ্যম হয়ে উঠেছে ইউটিউব চ্যানেল। অবশ্য হওয়াটাই যুক্তিযুক্ত। যে নাটক দেখা যায় এক ঘণ্টারও কম সময়ে, টিভিতে দেখতে গিয়ে কেন সেই নাটকের পেছনে কয়েক ঘণ্টা সময় ব্যয় করবে? আর এই চিন্তা বা ধারণা থেকেই দর্শক এখন টিভির সামনে বসতে চায় না। চোখের সামনে ভালো কোনো নাটক চলতে থাকলেও বলে ওঠে- পরে ইউটিউবে দেখে নেব। হোক সেটা মোবাইলের স্ট্ক্রিনে কিংবা ল্যাপটপে। আর এভাবেই কমে যাচ্ছে টিভি সেটের সামনের ভিড়। সেই সঙ্গে বেড়ে যাচ্ছে ইউটিউব চ্যানেলের সাবস্ট্ক্রাইবার আর ভিউ। অবশ্য এখানে টিভি চ্যানেলগুলোর হা-হুতাশ ছাড়া তেমন হতাশার কিছুই নেই। যেহেতু ভালো নাটকগুলো ঠিকই পৌঁছে যাচ্ছে দর্শকের হাতে হাতে। হ্যাঁ, এখানেও সেই 'ভালো'রই জয়জয়কার। দল বেঁধে টিভি সেটের সামনে বসার সংস্কৃতি যখন চালু ছিল, তখন অপেক্ষাকৃত  কমমানের একটা নাটকও দেখা হয়ে যেত। কারও কারও হয়তো প্রশংসাও পেত নাটকটি। কিন্তু ইউটিউবের এই যুগে সেই সুযোগ আর পাওয়া যাচ্ছে না। সবচেয়ে ভালো নাটকটি দেখার জন্যই কেবল দর্শক ক্লিক করছেন, এমবি খরচ করছেন। আবার অন্যকে বলছেনও সেই নাটকটি দেখার জন্য। ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিচ্ছেন সেই নাটকটি নিয়ে। নিজ উদ্যোগে শেয়ার করছেন নাটকটির লিংক। আর এর সবচেয়ে ভালো দিকটি হচ্ছে, কতজন দর্শক কোন নাটকটি কতবার দেখছেন, তার প্রমাণ থেকে যাচ্ছে। ভালো নাটকগুলো পেয়ে যাচ্ছে কোটি ভিউজ। সুতরাং মানসম্পন্ন কাজের বিকল্প নেই। এই কথাটি নাটকসংশ্নিষ্ট মানুষগুলো যত দ্রুত মেনে নেবেন আর মেনে চলবেন, ততই মঙ্গল আমাদের সবার জন্য। না হলে এমন একদিন আসবে, যখন ঈদে মানুষ সবই করবে, শুধু নাটক- টেলিফিল্ম দেখার পেছনে সময় ব্যয় করবে না।


মন্তব্য