একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন :ভোটের অভিজ্ঞতা

গ্রামে যা দেখেছি

প্রকাশ : ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮

গ্রামে যা দেখেছি

   ফরিদুল আলম

এবারের জাতীয় নির্বাচনে গ্রামীণ জনপদে ভোটের অন্যরকম চিত্র দেখার সুযোগ হয়। আমি আমার নির্বাচনী এলাকায় কমপক্ষে ২০টি ভোটকেন্দ্র পরিদর্শন করে বিশেষভাবে যা লক্ষ্য করেছি, নারী ও তরুণ ভোটারদের ব্যাপকহারে উপস্থিতি। ভোটারদের সঙ্গে আলোচনা করে যে বিষয়টি বিশেষভাবে লক্ষ্য করেছি তা হচ্ছে, সম্পূর্ণ স্বপ্রণোদিত হয়ে তারা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। এ থেকে আমিও বিচ্ছিন্ন নই। বিশেষ করে, গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর নির্বাচনী পরিবেশ পর্যবেক্ষণকালে আমার কাছে এ উৎসবমুখরতার বিষয়টি অত্যন্ত ইতিবাচক মনে হয়েছে।

ময়মনসিংহ শহর ও ত্রিশালের বিভিন্ন গ্রামীণ এলাকা পরিদর্শনের সুযোগ পেয়ে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর নির্বাচনী উৎসবের যে আমেজ লক্ষ্য করেছি, তা থেকে একটি বিষয় বিশেষভাবে উল্লেখ করতে চাই, সরকারের গৃহীত উন্নয়ন কর্মকাণ্ড এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের উন্নয়ন প্রতিশ্রুতি গ্রামীণ ভোটাররা অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে বিশ্নেষণ করে তাদের সিদ্ধান্তের প্রতিফলন ঘটিয়েছেন। আমার কাছে আরও একটি বিষয় মনে হয়েছে যে, শহর বা নগরজীবনে আমরা যে নির্বাচনের আমেজ লক্ষ্য করি, এবার গ্রামীণ জনপদে সেই আমেজটা ছিল ভিন্ন রকমের।

এতদিন পর্যন্ত আমাদের গ্রামীণ জীবনের ধারণা ছিল, পরিবারের প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সিদ্ধান্ত অপরাপর ভোটারের ওপর চাপিয়ে দেওয়া হতো। কিন্তু বিশেষভাবে এবার লক্ষ্য করলাম, পরিবারের বিশেষ করে নারী সদস্যরা স্বাধীনভাবে তাদের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন, যা গ্রামীণ নারীর ক্ষমতায়নের একটি উদাহরণ হিসেবে উল্লেখ করতে চাই। ভোটকেন্দ্রের পরিবেশ ছিল সুষ্ঠু ও উৎসবমুখর। তবে উৎসবের মাঝে যে এক ধরনের হট্টগোল কিংবা হুড়োহুড়ির ব্যাপার থাকে, এমনটি চোখে পড়েনি। বরং গল্পগুজবে, আমেজে যেন ভোটাররা উৎসব পালন করেছেন।

সহযোগী অধ্যাপক, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়


মন্তব্য যোগ করুণ