টাঙ্গাইলে দরপত্র ছাড়াই শতাধিক গাছ বিক্রি

টাঙ্গাইল-দেলদুয়ার সড়কের দু'পাশের সওজের কেটে ফেলা গাছ - সমকাল

   টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

দরপত্র আহ্বান ছাড়াই টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর টাঙ্গাইল-দেলদুয়ার সড়কের দু'পাশের প্রায় শতাধিক গাছ বিক্রি করে দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের ওয়ার্ক অ্যাসিসট্যান্ট আব্দুর রহমানের যোগসাজশে প্রায় ৪০ বছরের এসব পুরনো গাছ বিক্রি করা হয়।

টাঙ্গাইল-দেলদুয়ার সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ৪৭ কোটি টাকা ব্যয়ে টাঙ্গাইল পৌর এলাকার বাজিতপুর থেকে দেলদুয়ার উপজেলা মোড় পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার রাস্তার প্রশস্তকরণ ও উন্নয়ন কাজ করা হবে। এ কাজের জন্য এরই মধ্যে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যে কার্যাদেশও দেওয়া হবে। এ কারণে সড়কের দু'পাশে প্রায় ৪০ বছরের পুরনো আম, জাম, মেহগনি. কড়ই ও শিমুল গাছ দরপত্র আহ্বানের মাধ্যমে বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয় সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর। সড়ক ও বন বিভাগের তত্ত্বাবধানে গাছ চিহ্নিতও করা হয়েছে। কিন্তু দরপত্র আহ্বান না করেই টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের কিছু অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে ওয়ার্ক অ্যাসিসট্যান্ট আব্দুর রহমান দরপত্রের কথা বলে প্রায় শতাধিক শিমুল, আম, মেহগনি ও কড়ই গাছ বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে।

বুধবার বিকেলে সরেজমিন দেলদুয়ার সড়কের রূপসীতে গিয়ে দেখা যায় করাতিরা গাছ কেটে খণ্ড খণ্ড করে ট্রাকে গাছ বোঝাই করছে। আব্দুল মোমেন নামের এক করাতি বলেন, আব্দুল আজিজ নামে এক মহাজন ওয়ার্ক অ্যাসিসট্যান্ট আব্দুর রহমানের কাছ থেকে ১২টি শিমুল গাছ কিনেছেন। আমরা দৈনিক ভিত্তিতে গাছ কেটে দিচ্ছি। রূপসী গ্রামের আব্দুর হালিম বলেন, আমরা বাড়ির সঙ্গে গাছ লাগিয়েছিলাম। রাস্তা উন্নয়নের কথা বলে সড়ক বিভাগের লোকজন এসে গাছ কেটে বিক্রি করে টাকা নিয়ে যাচ্ছেন।

দেলদুয়ার উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান বিদ্যুৎ বলেন, কোনো দরপত্র ছাড়াই ওয়ার্ক অ্যাসিস্ট্যান্ট আব্দুর রহমান অবৈধভাবে গাছ বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। দেলদুয়ার সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু তাহের বাবলু বলেন, ওয়ার্ক অ্যাসিস্ট্যান্ট আব্দুর রহমানের তত্ত্বাবধানে গাছ কেটে নেওয়া হচ্ছে। দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে এমনটা আমার জানা নেই।

এ ব্যাপারে ওয়ার্ক অ্যাসিস্ট্যান্ট আব্দুর রহমান বলেন, গাছগুলো দ্রুত অপসারণের জন্য সংশ্নিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার মৌখিক নির্দেশেই গাছ কাটা হচ্ছে। এ বিষয়ে উপসহকারী প্রকৌশলী মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, টাঙ্গাইল-দেলদুয়ার সড়কের উন্নয়নের জন্য দু'পাশের গাছগুলো কাটার সিদ্ধান্ত হয়েছে। দ্রুতই দরপত্র আহ্বান করা হবে। দরপত্রের আগেই গাছ কেটে নেওয়ার বিষয়টি আমাদের জানা নেই। টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী আমিমুল এহসান বলেন, গাছ কাটার বিষয়টি আমার জানা নেই। এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য