কোটালীপাড়ায় প্রতিপক্ষের ১২ বাড়ি ভাংচুর

লুটপাটের অভিযোগ

প্রকাশ : ১২ জানুয়ারি ২০১৯

   কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধি

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় বিবদমান দু'দল গ্রামবাসীর এক পক্ষ হামলা চালিয়ে এক মুক্তিযোদ্ধার বাড়িসহ প্রতিপক্ষের ১২টি বাড়ি ভাংচুর করেছে। এ সময় হামলাকারীরা লুটপাট ও নারীদের শ্নীলতাহানি করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ হিরণ গ্রামে এ  ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, গত ৩১ ডিসেম্বর দক্ষিণ হিরণ গ্রামে ভলিবল খেলা কেন্দ্র করে সংঘর্ষে রফিকুল ইসলাম ফয়জর নামে এক ব্যবসায়ী নিহত হন। এ ঘটনায় ১ জানুয়ারি নিহত ফয়জরের স্ত্রী মিনা বেগম বাদী হয়ে কোটালীপাড়া থানায় ১০ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। মামলার পর থেকে বাদী পক্ষ বিভিন্ন সময় বিবাদী পক্ষের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও আত্মীয়স্বজনের ওপর হামলা করে আসছিল। এর ধারাবাহিকতায় গতকাল শুক্রবার দুপুরে জুমার নামাজের পর ফয়জরের আত্মীয়স্বজন দেশি অস্ত্র নিয়ে প্রতিপক্ষের বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে মুক্তিযোদ্ধা সাহেবালী শেখ, হাজি সাখাওয়াত হোসেন, হাজি রইচ উদ্দিন, পান্নু শেখ, রবিউল শেখ, শরাফত শেখ, জামশেদ শেখ, হায়েদার শেখ, জায়েদ শেখ, বশার শেখ, আতাউর শেখ ও সোলায়মান শেখের বসতঘরে ব্যাপক ভাংচুর করে। হামলাকারীরা লুটপাট ও নারীদের শ্নীলতাহানি করে। খবর পেয়ে কোটালীপাড়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

আসামি পান্নু শেখের স্ত্রী রাবেয়া খানম বলেন, জুমা নামাজের পর নাইম, মামুন, হাসান, কামরুল ও সুফিয়ানের নেতৃত্বে প্রায় ৩০-৪০ যুবক দেশি অস্ত্র নিয়ে আমাদের বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করে।

অপর আসামি আতাউর রহমানের স্ত্রী শেফালী বেগম বলেন, হামলাকারীরা শুধু আমাদের বাড়িঘরই ভাংচুর  করেনি, তারা টাকা-পয়সা, স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে গেছে এবং আমাদের গায়ে  হাত দিয়েছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে কোটালীপাড়া থানার এসআই সুজিত দাস বলেন, হামলাকারীরা ১২টি বসতঘরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করেছে। ক্ষতিগ্রস্তদের পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।




মন্তব্য