চিঠিপত্র

প্রকাশ : ১১ জুলাই ২০১৯

সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধ করি

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ও কোটবাড়ী সড়কে কুমিল্লা ক্যাডেট কলেজের মোড়ে সড়ক দুর্ঘটনা রোধে একটি আয়না বসানো হয়েছে কুমিল্লা ক্যাডেট কলেজের অর্থায়নে। চালকরা জানিয়েছেন, আয়নাটি মোড়ে দেওয়ায় আগের চেয়ে দুর্ঘটনা অনেক কমে গেছে। আয়নায় বিপরীত দিক থেকে আসা গাড়ি দেখতে পাওয়ায় চালকরা সতর্ক হয়ে যান। চালক ও যাত্রীরা একটু সচেতন হলেই ৮০ শতাংশ দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব। অতিরিক্ত গতি ও বেপরোয়া ওভারটেকিং নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি নতুন, অনভিজ্ঞ ও অদক্ষ চালকদের কার্যকরী প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নিতে হবে।

মো. জয়নাল আবেদিন
শিক্ষার্থী, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

কালুরঘাট সড়ক সেতু দ্রুত হোক

বাংলাদেশের বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামের গোড়াপত্তনকারী কর্ণফুলী নদীর মোহনা থেকে ৭-৮ মাইল উজানে ১৯১৪ সালে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে বার্মা ফ্রন্টের সৈন্য পরিচালনা করার জন্য কর্ণফুলী নদীতে সেতু নির্মাণের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। ফলে ১৯৩০ সালে ব্রুনিক অ্যান্ড কোম্পানি সেতু বিল্ডার্স হাওড়া একটি সেতু নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান সেতুটি নির্মাণ করে। মুক্তিযুদ্ধের দীর্ঘ ৯ মাসে কালুরঘাট সেতুর পশ্চিম ও উত্তর পাড়ের দখল নিয়ে হানাদার বাহিনীর সঙ্গে মুক্তিবাহিনীর যুদ্ধের ইতিহাস চিরস্মরণীয় এই সেতুটি। ৯০ বছরের পুরনো সেতুটি বর্তমানে অত্যন্ত করুণ দশা। বিভিন্ন স্থানে রেললাইন ভেঙে মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে গেছে। এই সেতু দিয়ে প্রতিনিয়ত

ছোট-বড় মিলিয়ে কমপক্ষে ২০-৩০ হাজার যানবাহন চলাচল করে। ট্রেন ও বিভিন্ন যানবাহনে প্রতিদিন দেড় লক্ষাধিক মানুষ সেতু পারাপার হয়। সেতুটি নিয়ে স্থানীয় এমপি মইন উদ্দিন খান বাদল সংসদে বলেছিলেন, 'এক বছরের মধ্যে কালুরঘাট সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করতে না পারলে সংসদ সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করবেন'। কিন্তু বারবার বিষয়টি নিয়ে তিনি সংসদে উত্থাপনের পরেও সেতু দ্রুত নির্মাণে কোনো সাড়া মিলছে না সংশ্নিষ্ট কর্তৃপক্ষের। তাই সংশ্নিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ, কালুরঘাট সড়ক সেতুটি নির্মাণ দ্রুত বাস্তবায়ন হোক।

আলতাফ হোসেন হৃদয় খান
পাঁচলাইশ ৩নং ওয়ার্ড, ওয়াজেদিয়া
বায়েজিদ বোস্তামী, চট্টগ্রাম


মন্তব্য