ব্রিজ চাই

প্রকাশ : ০৯ জুলাই ২০১৯

ব্রিজ চাই 

শেরপুরের নকলা ও জামালপুর সদর উপজেলার মাঝ দিয়ে বয়ে গেছে ব্রহ্মপুত্র নদ। নকলা উপজেলার হাতিমারা এবং জামালপুর সদরের হনুমানেরচর, কাজিয়ারচর ও ডিগ্রীরচরে পাঁচ সহস্রাধিক লোকের বাস। হনুমানেরচর, কাজিয়ারচর ও ডিগ্রীরচর গ্রাম তিনটি জামালপুর সদর থেকে দূরে হওয়ায় ব্যবসায়িক যোগাযোগ, কৃষিপণ্য বাজারে নেওয়া ও স্কুল-কলেজে ছাত্রছাত্রীদের চন্দ্রকোনা অথবা নকলা শহরে যাতায়াতে ব্রহ্মপুত্রের শাখা দশআনি নদীর ওপর নির্মিত কাঠের সাঁকো ও হাতিমারা গ্রামবাসীর জন্য একমাত্র বাঁশের সাঁকোই ভরসা। হাসপাতালে রোগী নেওয়াও খুব কঠিন। বন্যার সময় দশআনি ও মৃগী নদী পানিতে টইটম্বুর থাকায় নৌকায় শিক্ষার্থীরা নিয়মিত স্কুল-কলেজে যেতে পারে না। কৃষিপণ্যও বাজারে নিতে সমস্যা। যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে একটি ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানাচ্ছি।

মো. সুখন

নকলা, শেরপুর



ঝুঁকিপূর্ণ রেলসেতু

সারাদেশের সঙ্গে বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী জেলা লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রামের সঙ্গে রেল যোগাযোগের জন্য লালমনিরহাট জেলার তিস্তা এলাকায় ১৮৩৪ সালে নির্মিত হয় বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম তিস্তা রেলসেতু। সেতুটির স্থায়িত্বকাল ধরা হয়েছিল ১শ' বছর। বর্তমানে এর বয়স চলছে ১শ' ৮৫ বছর। দুর্ঘটনার ঝুঁকি নিয়েই দৈনিক ১৮টি ট্রেন লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রাম জেলা থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করছে। মেয়াদোত্তীর্ণ এ সেতুর বেশ কিছু স্লিপার নষ্ট হয়ে গেছে; খুলে পড়েছে অনেক স্লিপারের প্লেট ও নাট-বল্টু। সারাদেশে এমন সেতু আরও আছে। ইতিমধ্যে বেশ কিছু সেতু চরম ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়েছে। কয়েক দিন আগে সংঘটিত মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার মতো অনাকাঙ্ক্ষিত রেল দুর্ঘটনা আবারও ঘটার আশঙ্কা বিদ্যমান। এ অবস্থায় কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণে সরকারসহ সংশ্নিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। দ্রুত বিষযটির সমাধান প্রয়োজন।

নুরুজ্জামান মাহমুদ বায়জিদ

শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়



হাড় ভাঙা চিকিৎসা ইনস্টিটিউশন স্থাপন

বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৪৮ বছরে সাধারণ চিকিৎসা ক্ষেত্রে ক্রমাগত সম্প্রসারণ চলছে। সরকার ৬৪টি জেলায় সরকারি মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও পরিচালনার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। নতুন নতুন মেডিকেল কলেজ স্থাপন হচ্ছে। কিন্তু হাড় ভাঙা চিকিৎসার গুণগত মানের উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়নি। ঢাকার পঙ্গু হাসপাতাল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব চিকিৎসা বিশ্ববিদ্যালয়ে হাড় ভাঙা চিকিৎসা শিক্ষার ব্যবস্থা রয়েছে, যা ১৬ কোটি জনসংখ্যার দেশে খুবই অপ্রতুল। দেশে প্রতি বছর হাজার হাজার সড়ক দুর্ঘটনায় অসংখ্য মানুষ পঙ্গু হচ্ছে। দেশের প্রতিটি প্রশাসনিক বিভাগে হাড় ভাঙা বিষয়ে চিকিৎসা শিক্ষার জন্য আধুনিক ইনস্টিটিউশন স্থাপন প্রয়োজন। এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণে উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

মো. আশরাফ হোসেন

মধ্যবাজার, সুনামগঞ্জ


মন্তব্য