আশার আলো ফাউন্ডেশন

ফুটপাতের শীতার্ত মানুষের পাশে

উদ্যোগ

প্রকাশ : ১২ জানুয়ারি ২০১৯

 ফুটপাতের শীতার্ত মানুষের পাশে

  সজীব রায়

রাজধানীর অসহায় দরিদ্র শীতার্ত মানুষের জন্য দুই শতাধিক কম্বল বিতরণ করেছে অনলাইনভিত্তিক অলাভজনক সংগঠন আশার আলো ফাউন্ডেশন। গত ৬ জানুয়ারি গভীর রাতে ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ফুটপাতে অবস্থান করা দরিদ্রদের শীত নিবারণের লক্ষ্যে এই কম্বল বিতরণ করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আশার আলো ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক সরকারি তিতুমীর কলেজের ছাত্র রথিন সাহাসহ সংগঠনের সদস্য এবং শুভাকাঙ্ক্ষীরা।

কুড়িল বিশ্বরোড থেকে শুরু করে রাজধানীর বনানী, মহাখালী, ফার্মগেট, শাহবাগ, ধানমণ্ডিসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ফুটপাত ও রাস্তার পাশে বসবাসরত অসহায় ও ছিন্নমূল মানুষের মাঝে এই কম্বল বিতরণ করা হয়। এ সময় সংগঠনের সদস্য গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের প্রিয়তা তানিম, কাজী আসাদ, নীরব, শেখ জিহাদ, বিপ্লব, রাশেদ, হ্যাপি, ঝর্ণা, হোম ইকোনমিকস কলেজের তাঞ্জিমা চৌধুরী লিজা, ইডেন কলেজের রায় আরচি, তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী কাজী আসাদ, আবুধাবি প্রবাসী ইয়াকুব আলী, কুয়েত প্রবাসী নাজমুল উপস্থিত ছিলেন।

ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক রথিন সাহা বলেন, শীতে ছিন্নমূল ও দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়ানো আমাদের দায়িত্ব। যেখানে আমরা চার দেয়ালের মধ্যে ১-২টি কম্বল বা লেপ দিয়ে শীত নিবারণ করি, সেখানে এই হাড়কাঁপানো শীতে অনেকেই অনেক কষ্টে শীত নিবারণ করছে। গভীর রাতে এ রকম হতদরিদ্র ছিন্নমূল বিভিন্নজনকে খুঁজে খুঁজে আশার আলো ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে শীতবস্ত্র দেওয়া হয়েছে। প্রতিষ্ঠার সূচনালগ্ন থেকেই আশার আলো ফাউন্ডেশন অসহায় মানুষের পাশে রয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে অনেকে আমাদের সামাজিক কাজে আর্থিক সহায়তা করেন, যার ফলে এসব কাজে আমরা আরও প্রেরণা পাই।

সংগঠনের এই উদ্যোক্তা আরও জানান, আশার আলো ফাউন্ডেশন ছোট ছোট ভালো কাজের পাশাপাশি অসহায় মানুষের কল্যাণে ও আর্তমানবতার সেবায় কাজ করে। তারই ধারাবাহিকতায় দুস্থ মানুষকে শীতের প্রকোপ থেকে কিছুটা বাঁচাতে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হচ্ছে। সংগঠনটি সমাজের সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে অসহায় মানুষের কল্যাণে কাজ করার আহ্বান জানান।

জানা যায়, ২০১৪ সাল থেকে এই সংগঠনের পথচলা। ওই বছর ঢাকা শহরে প্রায় ২০০ শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করে।

গত ২ বছর ধরে ঈদের সময় অসহায় পরিবারের মাঝে নতুন জামা, দুধ, চিনি ও সেমাই বিতরণ করে আসছে আশার আলো ফাউন্ডেশন। এ ছাড়াও নিয়মিতভাবে মুমূর্ষু রোগীদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া ও তাৎক্ষণিক রক্তের জোগান দিয়ে যাচ্ছে সংগঠনের সদস্যরা। বিভিন্ন সময় দরিদ্র শিক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণ করে শিক্ষা উপকরণ।


মন্তব্য