রংপুর-৪

শিল্পপতিরাও আছেন প্রতিদ্বন্দ্বিতায়

প্রকাশ : ০৯ নভেম্বর ২০১৮

শিল্পপতিরাও আছেন প্রতিদ্বন্দ্বিতায়

   মেরিনা লাভলী, রংপুর

রংপুর-৪ (পীরগাছা-কাউনিয়া) আসন মানেই শিল্পপতিদের লড়াই। এ আসনে আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি ও বিএনপি- তিনটি রাজনৈতিক দলেরই রয়েছে বেশ প্রভাব। নির্বাচন সামনে রেখে তিন দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীরা নিজ নিজ অবস্থান তুলে ধরে নির্বাচনী প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। একক প্রার্থী নিয়ে আওয়ামী লীগে স্বস্তি থাকলেও বিএনপি ও জাতীয় পার্টিতে রয়েছেন একাধিক প্রার্থী।

২০০৮ সালের নির্বাচনে জাতীয় পার্টি-আওয়ামী লীগ মহাজোট গঠন করায় এ আসনে শিল্পপতি টিপু মুন্সি এমপি নির্বাচিত হন। এর পর ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়লাভ করেন তিনি। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির অর্থ ও পরিকল্পনাবিষয়ক সম্পাদক টিপু মুন্সি গত ১০ বছরে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ে থেকে তার আসনসহ রংপুরে ব্রিজ, কালভার্ট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ, স্বাস্থ্য খাতে উন্নয়ন, বিদ্যুৎ লাইন সম্প্রসারণের কাজসহ বিভিন্ন উন্নয়মূলক কাজ করেছেন।

টিপু মুন্সি এমপি বলেন, 'আমি আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একজন একনিষ্ঠ কর্মী। এ আসনে নির্বাচিত হওয়ার পর আমি ব্যাপক উন্নয়ন করেছি, যা এর আগে হয়নি। টিপু মুন্সি মানে নৌকা, আর নৌকা মানে উন্নয়ন। সে উন্নয়ন ঘটাতেই এ আসনের মানুষ আবারও আমাকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবে।'

এদিকে, বরাবরই ভরসা পরিবারের লড়াই এ আসনে বেশ আলোচিত হয়। শিল্পপতি রহিম উদ্দিন ভরসার ছেলে জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি এমদাদুল হক ভরসা বিএনপি থেকে এ আসনে লড়বেন বলে জানিয়েছেন।

এমদাদুল হক ভরসা বলেন, এ আসনে বিএনপির নেতাকর্মীরা আগের চেয়ে অনেক বেশি উজ্জীবিত। তবে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও স্বচ্ছ হবে কি-না তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। যদি অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি হয়, তাহলে এ আসন থেকে বিএনপি প্রার্থী হিসেবে ধানের শীষে ভোট নিয়ে তিনিই বিজয়ী হবেন বলে বিশ্বাস করেন।

সাবেক এমপি করিম উদ্দিন ভরসার ছেলে জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী সিরাজুল ইসলাম ভরসা বলেন, দল যদি তাকে মনোনয়ন দেয়, তবে তিনি নির্বাচন করবেন।

এদিকে, নির্বাচনী প্রচারে বেশ এগিয়ে আছেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বেঙ্গল অ্যান্ড কোম্পানি ও বাংলাদেশ সমবায় ব্যাংক লিমিটেডের পরিচালক মোস্তফা সেলিম বেঙ্গল। তিনি বলেন, 'এ আসনের মানুষ কোনো বহিরাগতকে নয়, স্থানীয় প্রার্থীকেই নির্বাচিত করতে চায়। আমি সুখে-দুঃখে তাদের পাশে থাকি। রংপুর মানেই এরশাদ, আর এরশাদ মানেই লাঙ্গল। লাঙ্গলের জোয়ারে  নির্বাচিত হয়ে এ আসনের উন্নয়ন ত্বরান্বিত করব।'


মন্তব্য যোগ করুণ