টেলিভিশন

সুসাইড: একটি হতাশা ও সম্ভাবনার গল্প

প্রকাশ : ০৩ নভেম্বর ২০১৮ | আপডেট : ০৩ নভেম্বর ২০১৮

সুসাইড: একটি হতাশা ও সম্ভাবনার গল্প

‘সুইসাইড’ নাটকে অভিনয় করেছেন জোবন ও হিমি

  অনলাইন ডেস্ক

মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়। কিন্তু কখনও কখনও স্বপ্নই মানুষের জন্য হতাশার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। স্বপ্ন পূরণে ব্যর্থ হওয়া মানুষ হতাশায় নিমজ্জিত হয়। ধাবিত হয় মৃত্যুর দিকে। মৃত্যুকেই একসময় মনে করে সবচেয়ে নিরাপদ আশ্রয়স্থল। কিন্তু মৃত্যুই কী সকল সমস্যার সমাধান? উত্তর হবে ‘না’। জীবনে ব্যর্থটা একটা শিক্ষার নাম। পাঠ্য বইয়ের প্রতিটি অধ্যায় শেষ করে যেমন চূড়ান্ত পরীক্ষায় সফলভাবে পাশ করতে হয়। তেমনি জীবনের প্রতিটি ব্যর্থতার অধ্যায় শেষ  করেই হতে হয় সফল। 

ব্যর্থ হয়ে মৃত্যুুকে বেছে নেয়া এক তরুণের গল্প নিয়েই আবর্তিত হয়েছে নাটক ‘সুসাইড’র গল্প । যেখানে দেখা যাবে ফারহান সুসাইড করার সকল রকম প্রস্তুতি সম্পন্ন করে ফেলে। মৃত্যুর আগে তার  ফারহান কিছু কথা বলতে চায়। সে চায় তার ব্যর্থতার কথা গুলো কেউ অন্তত জানুক। মৃত্যু থেকে কয়েক মুহূর্ত দূরে দাঁড়িয়ে সে সিদ্ধান্ত নেয় ফোনে সে তার জীবনের কিছু গল্প রেকর্ড করবে। তার রথিলা এক প্রেমিকা রয়েছে। মধ্যবিত্ত ফ্যামিলিতে বড় হওয়ার কারণে খুব তাড়াতাড়ি জীবনের অভাব গুলো অনুধাবন করতে পারতো মেয়েটি।

‘সুসাইড’ নাটকের পরিচালক মুরসালিন শুভর সঙ্গে হিমি ও জোবান

মেয়েটির চাহিদা খুবই স্বল্প। সুন্দর একটা বাসা, বারান্দায় ছোট্র একটি বাগান আর মাঝেমাঝে রিকশায় ঘোরাঘুরি, ফুচকা চা খাওয়ার আবদার তার। ফারহান প্রতিনিয়ত রিথিলার ছোট ছোট আবদার গুলো পূরণ করতে না পেরে সরি বলতো একরাশ গ্লানি নিয়ে। রিথিলা তখন হেসে হেসে বলতো আরে বোকা ছেলে একদিন দেইখো সব হবে। কিন্তু আর হয়না। এই না হওয়ার যন্ত্রণা নিয়েই সুসাইড করতে যায় ফারহান। শেষ অব্দি কী সেটা পারে? 

এমন গল্প নিয়ে নাটক সুসাইড নাটকটি নির্মাণ করেছেন মুরসালিন শুভ। পরিচালকের নিজের গল্প হলেও এটির চিত্রনাট্য করেছেন মেহরাব জাহিদ। সম্প্রতি শুটিং শেষ হলো নাটকটির। যাতে ফারহান চরিত্রে জোবান আর রথিলা চরিত্রে অভিনয় করেছেন হিমি। 

নাটকটি শিগগিরই কোন এক বেসরসারি চ্যানেলে প্রচার হবে বলে জানান নির্মাতা। 

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

বোকা বাক্সে বন্দি রাজ্য


আরও খবর

টেলিভিশন
বোকা বাক্সে বন্দি রাজ্য

প্রকাশ : ১০ ডিসেম্বর ২০১৮

ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘রাজার অতিথি’তে হাজির হন ড. মাহফুজুর রহমান

  অনলাইন ডেস্ক

রাজা আছেন, মন্ত্রী আছে,আছেন প্রজাও। কিন্তু রাজ্য কই? হ্যাঁ রাজ্য আছেন, তবে তা বোকা বাক্সে বন্দি। আর এই বন্দি রাজ্যের পুরো ঘটনাটাই ঘটবে একটি ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে। নাম ‘রাজার অতিথি’। 

মূলত রম্য ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান এটি। মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে এটিএন বাংলায় প্রচার হবে বিশেষ এই রম্য ম্যাগাজিন ‘রাজার অতিথি’। যাত্রাপালা ধরণের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানটি সাজানো হয়েছে। অনুষ্ঠানে রাজার ভুমিকায় রয়েছেন সাইফুল জামিল। আর রানীর ভূমিকায় এ্যানী। এছাড়ায় অন্যান্য ভূমিকায় অংশগ্রহন করেছেন আলী আসগর ইমন, জান্নাত প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে রয়েছে শিল্পী রফিকুল আলমের কন্ঠে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের গান ‘যায় যদি যাক প্রাণ’। এছাড়া আলম আরা মিনুর কন্ঠে রয়েছে ‘যে মাটির বুকে ঘুমিয়ে আছে লক্ষ মুক্তি সেনা’। অনুষ্ঠানে আরো থাকছে কাদামাটি গ্র“পের নৃত্য পরিবেশনা। এ ছাড়াও ছোট ছোট স্কিড এর মাধ্যমে অনুষ্ঠানে হাস্যরস উপস্থাপন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে অংশগ্রহন করেন ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দেয়া স্বর্ণপদক বিজয়ী সাতারু মোশাররফ হোসেন খান। এটিএন বাংলা ও এটিএন নিউজের চেয়ারম্যান ড. মাহফুজুর রহমান এবং মুক্তিযোদ্ধা ও চিত্রনায়ক আকবর হোসেন পাঠান ফারুক। 

অনুষ্ঠানে আরো থাকছে বীর শ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের উপর বিশেষ প্রতিবেদন এবং সৌর বিদ্যুত দিয়ে গাড়ির উদ্ভাবক শাওনের উপর প্রতিবেদন। আলী আসগর ইমনের গ্রন্থনা ও সাইফুল জামিলের পরিচালনায় রম্য ম্যাগাজিন ‘নিটল আতাশী রাজার অতিথি’ এটিএন বাংলায় প্রচার হবে ১৬ই ডিসেম্বর, রাত ৮টায়।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

বিজয় দিবসের ‘অপেক্ষা’


আরও খবর

টেলিভিশন
বিজয় দিবসের ‘অপেক্ষা’

প্রকাশ : ০৯ ডিসেম্বর ২০১৮

‘অপেক্ষা’ নাটকের দৃশ্য

  অনলাইন ডেস্ক

মুক্তিযুদ্ধে স্বামীহারা এক স্ত্রীর ৪৭ বছরের অপেক্ষার গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে নাটক ‘অপেক্ষা’। যাতে গল্পে গল্পে দেখানো হয়েছে স্বাধীনতার এত বছর পরেও স্বাধীনতাকে  সঠিকভাবে উপলব্ধি না করতে পারা,  বাংলা সংস্কৃতিকে সঠিকভাবে মূল্যায়ণ করতে না পারা? চারপাশে ভাষা বিকৃতির প্রতিযোগিতা।  

শফিকুর রহমান শান্তনুর রচনায় নাটকটি পরিচালনা করেছেন চয়নিকা চৌধুরী। এতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন অভিনয় করেছেন, সুবর্ণা মুস্তাফা, আনিসুর রহমান মিলন, দীপা খন্দকার, কাজল সুবর্ণ ও আযম খান।

বিজয় দিবস উপলক্ষে ১৬ ডিসেম্বর রাত ৯ টায় এটিএন বাংলায় প্রচার হবে বিশেষ নাটক ‘অপেক্ষা’।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

‘ডি-টুয়েন্টি’ বাসিন্দাদের সঙ্গে যুদ্ধ!


আরও খবর

টেলিভিশন

 ‘ডি-টুয়েন্টি’ ধারাবাহিক নাটকের একটি দৃশ্য

  অনলাইন ডেস্ক

সরকারি কর্মচারীদের আবাসিক কলোনির ডি ক্যাটাগরির দালানের একটি ফ্ল্যাট নম্বর ‘ডি-টুয়েন্টি’। ফ্ল্যাটটি বর্তমানে মূলত একটি মেস। মাত্র দুটি কামরা একটি বাথরুম-একটি ছোট রান্নাঘর। একচিলতে ব্যালকনির এই সরকারি কোয়ার্টারটি যার নামে বরাদ্দ। তার পরিবারে লোক সংখ্যা বেশি হওয়ার কারণে সাবলেট দিয়ে বাইরে বসবাস করে। ডি-টুয়েন্টির এই ছোট ফ্ল্যাটটিতে বেশকিছু মানুষ গাদাগাদি করে বাস করে। সবাই স্বল্প আয়ের মানুষ। দুই একজন ছাত্রও আছে। এরা সবাই পাবনা জেলার বাসিন্দা। এদের মধ্যে প্রচ- এলাকার টান। অন্যদিকে জেবুন্নেসা পাবনার মানুষকে একদমই সহ্য করতে পারে না। তার কাছে ডি-টুয়েন্টির বাসিন্দারা চক্ষুশূল। 

একদিন অদ্ভুত বেশভূষার যুবক মেগা ও ঘেগা এসে হাজির হয় ডি-টুয়েন্টিতে। দুজনই এদের পূর্ব পরিচিত এবং অবশ্যই পাবনা অঞ্চলের। রহস্যময় চরিত্রের অধিকারী ঘেগা নতুন নতুন কর্মকাণ্ড শুরু করে। এ নিয়ে নতুন করে শুরু হয় জেবুন্নেসার সাথে ডি-টুয়েন্টির বাসিন্দাদের যুদ্ধ। 

এসব নানা ঘটনাকে উপজীব্য করে এগিয়ে চলে ‘ডি-টুয়েন্টি’ ধারাবাহিকের গল্প।  বৃন্দাবন দাসের রচনায় নাটকটি পরিচালনা করেছেন সাগর জাহান। এতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন চঞ্চল চৌধুরী, আনিকা কবির শখ, ফজলুর রহমান বাবু, শাহনাজ খুশি, আরফান আহমেদ. এ কে আজাদ, জামিল প্রমুখ।

৮ ডিসেম্বর থেকেপ্রতি শুক্র, শনি ও রবিবার রাত ৯টা ২০ মিনিটে আরটিভিতে প্রচার হবে নাটকটি। 

সংশ্লিষ্ট খবর