টেলিভিশন

সুসাইড: একটি হতাশা ও সম্ভাবনার গল্প

প্রকাশ : ০৩ নভেম্বর ২০১৮ | আপডেট : ০৩ নভেম্বর ২০১৮

সুসাইড: একটি হতাশা ও সম্ভাবনার গল্প

‘সুইসাইড’ নাটকে অভিনয় করেছেন জোবন ও হিমি

  অনলাইন ডেস্ক

মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়। কিন্তু কখনও কখনও স্বপ্নই মানুষের জন্য হতাশার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। স্বপ্ন পূরণে ব্যর্থ হওয়া মানুষ হতাশায় নিমজ্জিত হয়। ধাবিত হয় মৃত্যুর দিকে। মৃত্যুকেই একসময় মনে করে সবচেয়ে নিরাপদ আশ্রয়স্থল। কিন্তু মৃত্যুই কী সকল সমস্যার সমাধান? উত্তর হবে ‘না’। জীবনে ব্যর্থটা একটা শিক্ষার নাম। পাঠ্য বইয়ের প্রতিটি অধ্যায় শেষ করে যেমন চূড়ান্ত পরীক্ষায় সফলভাবে পাশ করতে হয়। তেমনি জীবনের প্রতিটি ব্যর্থতার অধ্যায় শেষ  করেই হতে হয় সফল। 

ব্যর্থ হয়ে মৃত্যুুকে বেছে নেয়া এক তরুণের গল্প নিয়েই আবর্তিত হয়েছে নাটক ‘সুসাইড’র গল্প । যেখানে দেখা যাবে ফারহান সুসাইড করার সকল রকম প্রস্তুতি সম্পন্ন করে ফেলে। মৃত্যুর আগে তার  ফারহান কিছু কথা বলতে চায়। সে চায় তার ব্যর্থতার কথা গুলো কেউ অন্তত জানুক। মৃত্যু থেকে কয়েক মুহূর্ত দূরে দাঁড়িয়ে সে সিদ্ধান্ত নেয় ফোনে সে তার জীবনের কিছু গল্প রেকর্ড করবে। তার রথিলা এক প্রেমিকা রয়েছে। মধ্যবিত্ত ফ্যামিলিতে বড় হওয়ার কারণে খুব তাড়াতাড়ি জীবনের অভাব গুলো অনুধাবন করতে পারতো মেয়েটি।

‘সুসাইড’ নাটকের পরিচালক মুরসালিন শুভর সঙ্গে হিমি ও জোবান

মেয়েটির চাহিদা খুবই স্বল্প। সুন্দর একটা বাসা, বারান্দায় ছোট্র একটি বাগান আর মাঝেমাঝে রিকশায় ঘোরাঘুরি, ফুচকা চা খাওয়ার আবদার তার। ফারহান প্রতিনিয়ত রিথিলার ছোট ছোট আবদার গুলো পূরণ করতে না পেরে সরি বলতো একরাশ গ্লানি নিয়ে। রিথিলা তখন হেসে হেসে বলতো আরে বোকা ছেলে একদিন দেইখো সব হবে। কিন্তু আর হয়না। এই না হওয়ার যন্ত্রণা নিয়েই সুসাইড করতে যায় ফারহান। শেষ অব্দি কী সেটা পারে? 

এমন গল্প নিয়ে নাটক সুসাইড নাটকটি নির্মাণ করেছেন মুরসালিন শুভ। পরিচালকের নিজের গল্প হলেও এটির চিত্রনাট্য করেছেন মেহরাব জাহিদ। সম্প্রতি শুটিং শেষ হলো নাটকটির। যাতে ফারহান চরিত্রে জোবান আর রথিলা চরিত্রে অভিনয় করেছেন হিমি। 

নাটকটি শিগগিরই কোন এক বেসরসারি চ্যানেলে প্রচার হবে বলে জানান নির্মাতা। 

মন্তব্য


অন্যান্য