প্রযুক্তি

নকল সফটওয়্যার ব্যবহারে পঞ্চম স্থানে বাংলাদেশ

ঝুঁকি বাড়ছে সাইবার হামলার

প্রকাশ : ০৫ জানুয়ারি ২০১৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

নকল সফটওয়্যার ব্যবহারে পঞ্চম স্থানে বাংলাদেশ

  রাশেদ মেহেদী

সাইবার নিরাপত্তা সফটওয়্যার পণ্যের বাজার বাংলাদেশে এখনও খুব ছোট- সম্প্রসারিত হয়নি বললেই চলে। যদিও সাইবার নিরাপত্তার প্রশ্নটি কম্পিউটার ও সফটওয়্যার বাজার বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে বড় হয়ে দেখা দিয়েছে। সাইবার এবং ডাটা নিরাপত্তা-সংক্রান্ত প্রযুক্তি পণ্যের বাজার এ দেশে সীমিত আকারে বিকশিত হলেও নকল (পাইরেটেড) সফটওয়্যারের বহুল ব্যবহারের কারণে এর গতি মন্থর।

সফটওয়্যার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর আন্তর্জাতিক সংগঠন 'বিজনেস সফটওয়্যার অ্যালায়েন্সে'র ২০১৮ সালের পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের ৮৪ শতাংশ ব্যক্তিগত কম্পিউটারেই পাইরেটেড বা লাইসেন্সবিহীন সফটওয়্যার ব্যবহূত হচ্ছে। পাইরেটেড সফটওয়্যার ব্যবহারে বর্তমানে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান পঞ্চম। ২০১৬ সালে এ দেশ ছিল চতুর্থ স্থানে। বিশ্ববাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, গত এক বছরে সাইবার নিরাপত্তা পণ্যের বাজার প্রায় ১৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বেড়েছে। ২০১৯ সালে এ বাজার আরও প্রায় ১৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিস্তৃত হবে।

তথ্যপ্রযুক্তিবিদ এবং সাবেক ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার সমকালকে বলেন, বাংলাদেশে এখনও সাইবার নিরাপত্তা সম্পর্কে যথেষ্ট সচেতনতা সৃষ্টি করা সম্ভব হয়নি। এ কারণে এখানে যে কোনো সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে, বিশেষত ব্যাংকিং সেক্টরে, সাইবার হামলার ঝুঁকিও প্রবল। বিশ্বজুড়ে সাইবার নিরাপত্তার গুরুত্বের নিরিখে বলা যায়, আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে বাংলাদেশের সফটওয়্যার বাজারে সাইবার নিরাপত্তা সফটওয়্যার পণ্যই প্রাধান্য পাবে। খ্যাতনামা অর্থনীতিবিদ মিল্টন এজরাতি সম্প্রতি তার এক নিবন্ধে লিখেছেন, সাইবার নিরাপত্তা ঝুঁকি বিস্তৃতির নেপথ্যে রয়েছে সাইবার নিরাপত্তা প্রযুক্তি পণ্যের বাজার বৃদ্ধির অঙ্কের হিসাব।

সাইবার নিরাপত্তা বাজারের বর্তমান আকার : আন্তর্জাতিক বাজার পর্যবেক্ষণ পোর্টাল 'স্ট্যাটিসটা'র সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ সালের শেষে এসে সাইবার নিরাপত্তা সফটওয়্যার এবং এ-সংক্রান্ত প্রযুক্তি পণ্যের বাজারের আকার দাঁড়িয়েছে ১৫১ দশমিক ৬৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০১৭ সালে এর আকার ছিল ১৩৭ দশমিক ৬৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বর্তমান হারে বাজারের আকার বড় হতে থাকলে ২০১৯ সালের শেষে গিয়ে এর বাজারের আকার হবে ১৬৭ দশমিক ১৪ বিলিয়ন ডলার। ২০২০ সালে এ বাজারের আকার হবে ১৮৪ দশমিক ১৯ বিলিয়ন ডলার এবং ২০২৩ সালের শেষে হবে ২৮৪ দশমিক ২৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

বাংলাদেশের কম্পিউটার সমিতি মার্কেট সূত্র জানায়, বছরে দেশে ইন্টারনেট সিকিউরিটি এবং অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যার বিক্রির পরিমাণ বর্তমানে প্রায় ১৫০ কোটি টাকায় পৌঁছেছে। যেটা ২০১৪ সালের আগে ৫০ কোটিও ছিল না। ২০১৪ সালের পর থেকে লাইসেন্সড অ্যান্টিভাইরাস বিক্রির পরিমাণ ক্রমাগত বাড়ছে। ক্যাসপারেস্কি, সিমেনটেক, পান্ডা, অ্যাভিরা, অ্যাভাস্ট, ম্যাকফি'র মতো বিশ্বখ্যাত নিরাপত্তা সফটওয়্যার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোও বর্তমানে স্থানীয় এজেন্ট নিয়োগ করে ব্যবসা করছে।

এখনও বাজারে পাইরেটেড সফটওয়্যার :বিজনেস সফটওয়্যার অ্যালায়েন্সের সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৮ সালে বাংলাদেশের কম্পিউটারে ৮৪ শতাংশ পাইরেটেড সফটওয়্যার ব্যবহূত হয়। ২০১৬ সালে এই হার ছিল ৮৬ শতাংশ। অর্থাৎ পাইরেটেড সফটওয়্যার ব্যবহারকারীর সংখ্যা স্বল্প হারে হলেও কমেছে। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, পাইরেটেড সফটওয়্যার ব্যবহারে বিশ্বে এখন শীর্ষস্থান দখল করে রেখেছে লিবিয়া (৯০ শতাংশ)। এ ছাড়া রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে জিম্বাবুয়ে (৮৯ শতাংশ), তৃতীয় স্থানে ইয়েমেন এবং চতুর্থ স্থানে আর্মেনিয়া (৮৫ শতাংশ)।

পাইরেটেড সফটওয়্যার ব্যবহার সম্পর্কে সাবেক মন্ত্রী ও তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার বলেন, ডিজিটাল কিংবা সাইবার নিরাপত্তার ব্যাপারে ব্যবহারকারীদের এখনও যথেষ্ট সচেতন করে তোলা যায়নি। পাইরেটেড সফটওয়্যার ব্যবহার হলে ডিজিটাল মাধ্যমে নিরাপত্তা ঝুঁকি থেকেই যাবে সন্দেহ নেই। বিশেষত ব্যাংকিং খাত ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো সাইবার নিরাপত্তার দিক থেকে এখন পর্যন্ত বড় ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সাইবার হামলার হুমকি সম্পর্কে ভিন্নমত :বিশ্বজুড়ে সাইবার হামলার হুমকি বৃদ্ধির পেছনে বড় ব্যবসায়িক লাভের অঙ্কের হিসাব দেখছেন খ্যাতনামা করপোরেট আর্থিক খাত বিশেষজ্ঞ অর্থনীতিবিদ মিল্টন এজরাতি। সম্প্রতি ফোর্বসে প্রকাশিত নিবন্ধে তিনি লিখেছেন, সাইবার হুমকির বিষয়টি যত বেশি উদ্বেগের সৃষ্টি করছে, সাইবার নিরাপত্তা সফটওয়্যার ও প্রযুক্তি পণ্যের বাজারও ততই লাভজনক হয়ে ওঠার সুযোগ তৈরি করছে। তার মতে, 'নিরাপত্তার বিষয়টি উদ্বেগের, কিন্তু এই উদ্বেগ থেকে ব্যবসার সুযোগ এক লাফে অনেক বেড়ে যায়, এটাও বাস্তবতা।'

মিল্টন এজরাতি লিখেছেন, সাইবার নিরাপত্তা-সংক্রান্ত প্রযুক্তিগত রহস্যগুলো খুব বেশি মানুষের সামনে উন্মোচন করা হয় না। নিরাপত্তার ব্যাপারে সচেতন থাকার উপায়গুলোও সহজ করে বলা হয় না। বরং বিভিন্ন কর্মশালা এবং আলোচনাগুলোতে ঝুঁকির বিষয়টিই ক্রমাগত বিশাল অবয়বে তুলে ধরা হয়। এর কারণ হচ্ছে, ঝুঁকির বিষয়টি বিস্তৃত হলে সচেতন ব্যবহারকারী ঝুঁকি এড়াতে নিরাপত্তা প্রযুক্তি ব্যবস্থার জন্য বেশি ব্যয় করতেও উৎসাহিত হবেন। তার মতে, কম্পিউটার ও স্মার্টফোন অপারেটিং সিস্টেমের মূল উৎপাদকরা চাইলে ব্যবহারকারীর ডিজিটাল ডিভাইসে নিরাপত্তার জন্য তৃতীয় পক্ষের কোনো সফটওয়্যার ব্যবহারের প্রয়োজনই পড়বে না।


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

‘টেন ইয়ার চ্যালেঞ্জ’ নিয়ে বিতর্ক


আরও খবর

প্রযুক্তি

  অনলাইন ডেস্ক

ফেসবুক, টুইটার ও ইনস্টাগ্রামে এখন চলছে ‘টেন ইয়ার চ্যালেঞ্জ’ ট্রেন্ড। দশ বছর আগের ছবির সঙ্গে সদ্য তোলা ছবি কোলাজ করে পোস্ট করছেন ব্যবহারকারীরা। 

প্রথমদিকে ব্যবহারকারীরা খুবই সহজভাবে নেন নতুন এ ট্রেন্ডকে। কিন্তু এটি নিয়ে বিতর্ক শুরু হতে সময় লাগেনি। 

তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলেন, ব্যবসায়িক লাভের গোপন উদ্দেশ্য নিয়ে এই ট্রেন্ড চালু করেছে ফেসবুক। ফেসবুক তার নিজস্ব ফেশিয়াল রিকগনিশন অ্যালগরিদম উন্নত করার জন্য এটি চালু করেছে। এসব ছবি থেকে তথ্য সংগ্রহ করে সংরক্ষণ করছে প্রতিষ্ঠানটি। 

তবে ফেসবুক বিষয়টি অস্বীকার করেছে। এক বিবৃতিতে ফেসবুক বলেছে, এ চ্যালেঞ্জ শুরু করার ক্ষেত্রে তারা কোনো ভূমিকা রাখেনি এবং এ থেকে তারা কোনো সুবিধা দেখছে না।

বিশেষজ্ঞদের দাবি, এই ছবির চ্যালেঞ্জ ফেসবুককে তাদের মেশিন লার্নিং উন্নত করার পূর্ণাঙ্গ সুযোগ দিচ্ছে। ‘টেন ইয়ার চ্যালেঞ্জ’ এর মাধ্যমে একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পাশাপাশি দুটি ছবি পেয়ে যাচ্ছে ফেসবুক। দুই ছবির পরিবর্তনের তথ্য সংরক্ষণ করে রাখছে প্রতিষ্ঠানটি। ফলে পরবর্তীতে ব্যবহারকারী 

ফেসবুকে কোনো ছবি আপলোড করলেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে ধরতে পারবে ফেসবুক।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

বিআইজেএফ নির্বাচনে ৯ পদে ৯ প্রার্থী


আরও খবর

প্রযুক্তি

  অনলাইন ডেস্ক

তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি সাংবাদিকদের সংগঠন বাংলাদেশ আইসিটি জার্নালিস্ট ফোরামের (বিআইজেএফ) ২০১৯-২০২০ মেয়াদের কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচনে ৯ পদে প্রার্থী সংখ্যা ছিল ১২ জন।

তবে গত বুধবার রাজধানীর জনতা টাওয়ারের বিআইজেএফ কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ সময়ে ৯ পদের জন্য ৯ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন।

নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো আগামী ৯ ফ্রেব্রুয়ারি। প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় ওই ৯ জনই নির্বাচিত হচ্ছেন বলে জানা গেছে।

সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার বিকেল ৫টায় মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ সময় ছিল। প্রাথমিক প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হবে ১৯ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৬টায়।

তবে এবার সভাপতি পদে প্রার্থী ছিলেন মোজাহেদুল ইসলাম ও রাহিতুল ইসলাম রুয়েল। বুধবার দুপুরে বিআইজেএফ সভাপতির পদ থেকে সরে দাঁড়িয়ে রাহিতুল ইসলাম রুয়েল নির্বাহী সদস্য প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেন।

এদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হয়েছিলেন সাব্বিন হাসান ও হাসান জাকির। পরে সাব্বিন হাসান তার মনোনয়নপত্র জমা দেননি।

৯ পদে ৯ জন প্রার্থী যারা হলেন: সভাপতি, মোজাহেদুল ইসলাম (ইত্তেফাক), সহ-সভাপতি, নাজনীন নাহার (টেক ওয়ার্ল্ড), হাসান জাকির (সমকাল), যুগ্ম সম্পাদক পদে মোস্তাফিজুর রহমান সোহাগ (আলোকিত বাংলাদেশ), গবেষণা সম্পাদক পদে জান্নাতুল ইসলাম রাহাদ (ডেইলি সান), কোষাধ্যক্ষ পদে মো. এনামুল করিম (ডিজিটাল সময়), সাংগঠনিক সম্পাদক পদে হাসিব রহমান (খোলা কাগজ), নির্বাহী সদস্য পদে মিজানুর রহমান সোহেল (যুগান্তর) ও রাহিতুল ইসলাম রুয়েল (কমপিউটার জগৎ)।

পরের
খবর

২২৬ আইডি পেজ শনাক্ত


আরও খবর

প্রযুক্তি

ফেসবুকে গুজব

২২৬ আইডি পেজ শনাক্ত

প্রকাশ : ১৭ জানুয়ারি ২০১৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

  বিশেষ প্রতিনিধি

ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একাধিক মন্ত্রীসহ রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানোর ঘটনায় ২২৬টি আইডি, পেজ এবং ওয়েবসাইট শনাক্ত করা হয়েছে। যারা এসব আইডি নিয়ন্ত্রণ করছেন তাদের নজরদারিতে রেখেছে সিআইডির সাইবার মনিটরিং টিম। কয়েকজন যাতে দেশত্যাগ করতে না পারেন সে জন্য ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। সুনির্দিষ্টভাবে যাদের নাম-পরিচয় পাওয়া গেছে তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ৬টি মামলা করা হয়েছে।

সিআইডির দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, সৌদি আরব প্রবাসী সুমন সরদার (২৫)  নামে এক ব্যক্তি দীর্ঘদিন ধরে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার চালিয়ে আসছেন। তার গ্রামের বাড়ি ফরিদপুরের সদরপুরের ঢেউখালী। সৌদি আরব থেকে দেশে ফেরত আসার সময় তাকে গ্রেফতার করতে ইমিগ্রেশনের পুলিশ সুপারকে চিঠি দিয়েছে সিআইডি। এ ছাড়া তুহিন শেখ নামে এক ব্যক্তি 'শেখ তুহিন' নামে ফেসবুক আইডি থেকে গুজব ছড়ান। এরই মধ্যে সিআইডি তাকে গ্রেফতার  করেছে। গ্রেফতারের পর নিজের দায় স্বীকার করে তুহিন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দিয়েছেন। আরও যেসব আইডি থেকে অপপ্রচার ও গুজব ছড়ানো হচ্ছে তা হলো- সুমন আহমেদ চৌধুরী, ওয়াহেদুল ইসলাম, মো. জাহান, জামিল হাসান আজাদ পিয়াস, লক্ষ্মীপুরের রামগতির মৃত গোলাম সোবহানের ছেলে আব্দুর রহমান, নরসিংদীর শিবপুরের সাঈদ খানের ছেলে মোহাম্মদ জাকির হোসেন, মুসাফির পথিক, হাসান মাহমুদ, গোলাম নবিউল, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট, আমি আওয়ামী লীগের ডাক্তার, রুবেল আহমেদ, দাদা ভাই, বিএনপি ব্রেকিং নিউজ২৪, মোখলেছুর রহমান ভূঁইয়া, সুমন আহসান, সঞ্জীব আনোয়ার, থলের বিড়াল, নারায়ণগঞ্জের জামতলার মৃত গিয়াস উদ্দিনের ছেলে মঈনুল হাসান আনিস, কিশোরগঞ্জের ভৈরবের নান্দু আহমেদ, নওয়াব, মিনার আহমেদ, আনোয়ার পারভেজ পাভেল, ফারিয়া সুলতানা পলি, হারুন অর রশিদ, রাকিব হুসাইন, রনি সভাপতি, আমি নেতা হবো, নূর আলম রিপন, আব্দুল্লাহ ইউসুফ শামীম ও চৌধুরী আনিস।

সিআইডির দায়িত্বশীল সূত্র আরও জানায়, গুজব ও অপপ্রচার ছড়ানোর ঘটনায় ৩৭ ফেসবুক আইডি শনাক্তের পাশাপাশি ৬৫টি ফেসবুক পেজ, ৬৩টি ভুঁইফোঁড় নিউজ ওয়েবসাইট, ৫টি ইউটিউব চ্যানেল, একটি ব্লগ ও ২টি ওয়েবসাইট শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩৫টি ফেসবুক আইডি ও ১১টি পেজ বন্ধ করে দিতে ফেসবুক কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়েছে সিআইডি।

জানা যায়, এসব ফেসবুক আইডি থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সাবেক তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান, সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম সম্পর্কে মানহানিকর স্ট্যাটাস দেওয়া হয়।

তদন্ত সূত্রে জানা যায়, গুজবে ইন্ধনকারী আইডি ছাড়াও একটি গ্রুপ রয়েছে যারা প্রতিষ্ঠিত গণমাধ্যমের অনলাইনে গিয়ে বিভিন্ন নিউজে পাঠক মন্তব্যের জায়গায় অশ্নীল ও বানোয়াট তথ্য উপস্থাপন করে বিভ্রান্তি ছড়ায়।

সিআইডি বলছে, গুজব ছড়ানোর ঘটনায় এ পর্যন্ত আটজনকে তারা গ্রেফতার করেছে। অন্যদের গ্রেফতার করতে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চলছে। এছাড়া সাইবার টহল জোরদার করা হয়েছে।

সিআইডি কর্মকর্তারা জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার ঠেকাতে এরই মধ্যে সিআইডি সাইবার সেন্টার প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। সেখানে মোট জনবল ৩৪২ জন। বর্তমানে সাইবার সেন্টারে কর্মরত আছেন ৫২ জন। সমাজের বিশিষ্ট নাগরিক ও স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়ানো হচ্ছে। অস্ট্রেলিয়া, সৌদি আরব, ওমান, কাতার থেকে অপপ্রচার চালাচ্ছেন এমন কয়েকজনকে শনাক্ত করেছে সিআইডি। দেশে বসে যারা গুজব ছড়াচ্ছেন তাদের মধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে তুহিন শেখ, আবদুর রহমানসহ কয়েকজনকে। বিদেশে বসে গুজব রটনাকারীদের ওয়ার্ক পারমিট বাতিলে এরই মধ্যে প্রক্রিয়া শুরু করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এরই মধ্যে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে কূটনৈতিক চ্যানেলে রাষ্ট্রদূতদের চিঠি দিয়েছে সিআইডি। এছাড়া ন্যাশনাল সেন্টার ব্যুরোর (এনসিবি) মাধ্যমে ইন্টারপোলকে অবহিত করে বিদেশ থেকে কয়েকজন গুজব রটনাকারীকে দেশে ফেরত আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মোল্যা নজরুল ইসলাম সমকালকে বলেন, গুজব রটনাকারীদের ব্যাপারে অতীতের যে কোনো সময়ের তুলনায় বর্তমানে সজাগ রয়েছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পল্টন, রামপুরাসহ কয়েকটি থানায় এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। গুজব রটনাকারীরা দেশ-বিদেশে যেখানে থাকুন তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

সংশ্লিষ্ট খবর