প্রযুক্তি

‘সাইবার সিকিউরিটি ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনার

ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড পরিবর্তন কমাতে পারে সাইবার ক্রাইম

প্রকাশ : ৩০ নভেম্বর ২০১৮

ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড পরিবর্তন কমাতে পারে সাইবার ক্রাইম

সেমিনারে অংশ নেওয়া বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ও অতিথিরা

   সমকাল প্রতিবেদক

ওয়াইফাই, ফেসবুক, গুগুল, ব্যাংক একাউন্টসহ গুরুত্বপূর্ণ সাইট বা একাউন্টে শুরুতে দেওয়া পাসওয়ার্ড ও ইউজার আইডি পরিবর্তন করা গুরুত্বপূর্ণ। ওয়েবসাইটে ঢুকে হোক অথবা ডিভাইস থেকে এগুলো পরিবর্তন করে নিলে বাংলাদেশে সাইবার ক্রাইম অর্ধেক কমিয়ে আনা সম্ভব। এমনটাই জানালেন আন্তর্জাতিক সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ ও যুক্তরাষ্ট্রে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস মেশিন (আইবিএম) এর কর্মকর্তা ড. মাহমুদুর রহমান।

শুক্রবার বিকেলে প্রেজেন্টেশন ক্লাবের আয়োজনে, ক্লাবটির প্রধান কার্যালয়ে ‘সাইবার সিকিউরিটি ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন।

সেমিনারে প্রেজেন্টেশন ক্লাবের সভাপতি রাইসুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান বক্তার আলোচনায় ড. মাহমুদুর রহমান বলেন, গুরুত্বপূর্ণ কোন ওয়েবসাইটের একটি একাউন্টও যদি কোনো হ্যাকার নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিতে পারে তবে পুরো ওয়েবসাইট ঝুঁকিতে থাকে। কারণ আপনার যোগাযোগ, ফটো, ভিডিও, অবস্থান, স্বাস্থ্য ও আর্থিক তথ্যের মতো বিষয়গুলো তারা নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়।

অনলাইন থেকে আয়ের যেমন সুযোগ আছে, তেমনি তথ্য বেহাত হওয়ার ঝুঁকিও রয়েছে উল্লেখ করে ড. মাহমুদুর রহমান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় পড়ূয়া শিক্ষার্থীরা অনলাইন থেকে বিভিন্নভাবে আয় করতে পারে। তবে সেই ক্ষেত্রে নিয়ম মেনে কাজ করতে হবে। যেমন আমি যদি ইউটিউব থেকে আয়ের কথা বলি, ইউটিউব কর্তৃপক্ষের চাওয়া অনুযায়ী ভিডিও কপি না দেওয়া। চুক্তিভিত্তিক লাইক বা ভিউ না বাড়ানো। কারণ ইউটিউব লাইক পাওয়ার পর বুঝতে পারে যে এটা সত্যিকার লাইক, নাকি ভুয়া। লাইক বা সাবস্ক্রাইবের ক্ষেত্রে তারা দেখেন কোন এলাকা থেকে লাইক পড়েছে বা দেখেছে। তারপর তারা কয়েকটি ক্যাটাগরিতে সতর্ক করে দেয়। রেড সিগনালে পড়ে গেলে বুঝতে হবে আইডি বন্ধ হয়ে যাবে। এভাবে সব ওয়েবসাইটেই নজরদারি থাকে। তারপরও হ্যাকার বা সাইবার ক্রাইমের সঙ্গে জড়িতরা তাদের অপরাধ কর্ম চালিয়ে যায়। তাই সাধারণ ব্যবহারকারীকে সর্তকতার সঙ্গে ব্যবহার করতে হবে।

সাইবার বিশেষজ্ঞ ড. মাহমুদুর রহমান বলেন, আইওটির মাধ্যমে বাংলাদেশের ব্যাংক এবং অন্যান্য ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠানের তথ্য সুরক্ষার জন্য নিরাপত্তা বেষ্টনি তৈরি করা যেতে পারে। যার ফলে এসব প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ ডেটা ও অ্যাপ্লিকেশন সুরক্ষিত থাকবে। এছাড়া আপনি আপনার বাড়ির সুরক্ষা নিশ্চিত করতে পারেন। যাতে করে আপনার বাড়িতে চোর ঢুকতে না পারে। কিন্তু এর নেতিবাচক দিক হচ্ছে, আপনার সব তথ্য ওয়েবসাইটে থাকছে। আপনার দৈনন্দিন কাজে ফিটনেস ট্রেকার ডিভাইসে জিপিএস ট্রেকার থাকলে হ্যাকাররা আপনার অবস্থান সম্পর্কে জানতে পারে। এর মাধ্যমে হ্যাকাররা আইডি নিয়ন্ত্রণে নিতে পারলে অন্যান্যা ডিভাইসও নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে পারে। কারণ আইওটি নেটওয়ার্কে ডিভাইজগুলো চেইনের মতো কাজ করে। ২০১৬ সালে সেপ্টেম্বরে মিরাই বটনেট অ্যাটাক হয়েছিল। মিরাই বডনেট নামে ওই অ্যাটাকে হ্যাকারদের একটা দল বিশ্বের বেশ কিছু দেশে বিপুল সংখ্যক ডিভাইস নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়। এরকম হতে পারে ওয়াইফাই পাসওয়ার্ডের ক্ষেত্রেও। আপনি যখন ওয়াইফাই নিচ্ছেন, তখন সব তথ্য দেওয়া লাগছে সেই তথ্য পরিবর্তন না করলে তা হ্যাকারদের হাতে চলে যাচ্ছে। হ্যাকারদের হাতে সম্পূর্ণ তথ্য থাকায় তারা পুরো ওয়েবসাইটকে জব্দ করতে পারে।

সেমিনারে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রেজেন্টেশন ক্লাবের সহ-সভাপতি মোনাসিব রোমেলসহ অন্যান্যরা। এসময় বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠিানটির প্রচার সহযোগী ছিলো লক্ষ্য নিউজ প্রেজেন্টেশন একাডেমি।

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

গুগল সার্চে শীর্ষ দশে খালেদা জিয়া ও হিরো আলম


আরও খবর

প্রযুক্তি

  অনলাইন ডেস্ক

জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা গুগলে প্রতিদিন লাখ লাখ মানুষ তথ্য খোঁজে। গুগলে এ বছর বাংলাদেশ থেকে সবচেয়ে বেশি কোন বিষয়টি বা কাকে খোঁজা হয়েছে তার তালিকা প্রকাশ করেছে সার্চ জায়ান্ট। 

গুগল ট্রেন্ডসের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ট্রেন্ডিং সার্চের তালিকায় দেখা যায়, ২০১৮ সালে বাংলাদেশের মানুষ সবচেয়ে বেশি খুঁজেছেন ক্রোয়েশিয়ার প্রেসিডেন্ট কোলিন্দা গ্রাবার কিতারোভিচকে। রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলে স্টেডিয়ামে উপস্থিত হয়ে সাড়া ফেলেছিলেন তিনি।

গুগল কয়েকটি ক্যাটাগরিতে সার্চ ট্রেন্ড প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশকে নিয়ে সার্চেস, পিপল ও মুভিজ—এই তিনটি ট্রেন্ড প্রকাশ করেছে গুগল। এর মধ্যে ‘পিপল’ অংশে ১০ জনের নামের তালিকা দিয়েছে। তালিকায় বাংলাদেশিদের মধ্যে ৯ নম্বরে আছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও  ১০ নম্বরে আছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচিত ব্যক্তি আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম। 

‘পিপল’ ক্যাটাগরিতে থাকা অন্য ব্যক্তিরা হলেন-প্রিয়া প্রকাশ। তালিকার ২ নম্বরে আছেন তিনি। ভারতের দক্ষিণী চলচ্চিত্রের অভিনেত্রী প্রিয়া প্রকাশ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ২৯ সেকেন্ডের একটি ভিডিও ক্লিপ দিয়ে মাতিয়েছিলেন দর্শকদের। তৃতীয় অবস্থানে আছেন ব্রিটিশ রাজপরিবারের বধূ মেগান মার্কেল। চতুর্থ ও পঞ্চম অবস্থানে আছেন পর্নো তারকা মিয়া খলিফা ও সানি লিওন। ছয় নম্বরে আছেন ফ্রান্স ফুটবল তারকা এমবাপ্পে। সাত নম্বরে আরেক পর্নো তারকা মিয়া মালকোভা। ৮ নম্বরে স্থান পেয়েছেন প্রিয়াঙ্কার চোপড়ার বর নিক জোনাস।

সার্চ ক্যাটগরিতে বাংলাদেশে থেকে সবচেয়ে বেশি খোঁজা হয়েছে-ক্রিকবাজ, ওয়ার্ল্ড কাপ, এসএসসি রেজাল্ট, এইচএসসি রেজাল্ট, লাইভ ফুটবল, আইপিএল, এশিয়া কাপ, বাংলাদেশ ভার্সেস জিম্বাবুয়ে, ফোরএক্স ব্রুয়েরি ব্রিসবেন ও বাংলাদেশ ভার্সেস ইন্ডিয়া।

মুভিজ ক্যাটাগরিতে এ বছর বাংলাদেশে থেকে বেশি সার্চ হয়েছে, থাগস অব হিন্দুস্তান, অ্যাভেঞ্জার্স ইনফিনিটি ওয়্যার, টাইগার জিন্দা হ্যায়, রেস-৩, বাগি-২, সাঞ্জু, ব্ল্যাক প্যানথার, দ্য নান, হেট স্টোরি-৪ ও ভেনম।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে বাংলাদেশকে নিয়ে সার্চেস, পিপল ও নিউজ—এই তিনটি ট্রেন্ড প্রকাশ করেছিল গুগল। সে বছর বাংলাদেশ থেকে গুগল সার্চে শীর্ষে ছিলেন অভিনেত্রী সাবিলা নূর। তীয় অবস্থানে ছিলেন পর্নো তারকা মিয়া খলিফা, তৃতীয় অবস্থানে তাসকিন আহমেদ। চতুর্থ অবস্থানে ছিলেন শাকিব খান, পঞ্চম স্থানে মোশাররফ করিম, ষষ্ঠ স্থানে মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের মুকুট হারানো জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল ও নবম স্থানে ছিলেন অভিনেত্রী শবনম বুবলী। 

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

সফটওয়্যার পেশাজীবী প্রস্তুতে বৃত্তি দিবে 'পিপল এন টেক'


আরও খবর

প্রযুক্তি

  অনলাইন ডেস্ক

বিশেষ কর্মসূচির আওতায় ২০০ জনকে বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে বলে এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক বাংলাদেশি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান 'পিপল এন টেক'র প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী আবুবকর হানিপ।

মঙ্গলবার রাজধানীর কারওয়ানবাজারে বেসিস মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান তিনি। 

প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয়, প্রযুক্তি খাতে দক্ষ পেশাজীবী তৈরিতে ১০০ জন অভিবাসন প্রত্যাশী এবং ১০০ জন স্থানীয় প্রকৌশলীকে বৃত্তি প্রদান করা হবে।

আবুবকর হানিপ বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রে ৫ হাজার বাংলাদেশিকে আমরা এই প্রশিক্ষণ দিয়েছি যাদের মধ্যে অন্তত ৫০০ জন ম্যানেজার লেভেলে চাকরি করছেন। ‘অড জব’ ছেড়ে তারা এখন মাসে ১০ হাজার ডলার বা তার চেয়ে বেশি বেতনে চাকরি করছেন। তারা মাসে প্রায় ৮০০ কোটি টাকা দেশে পাঠিয়ে দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখছেন বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

তিনি জানান, এ বছর তার প্রতিষ্ঠান যুক্তরাষ্ট্রে ১০ লাখ ডলারের বৃত্তি দিয়েছে। এবার বাংলাদেশে বৃত্তি ঘোষণা করা হলো। তিনি আরও বলেন, আমাদের প্রতিষ্ঠানের বাংলাদেশ শাখা থেকে এখন পর্যন্ত ২ হাজার জনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। তারা এখন দেশ বিদেশে ভালো চাকরি করছেন।

আবুবকর হানিপ বলেন, এই বৃত্তির (প্রতিটি) আর্থিক মূল্য ৪ হাজার ডলার। যা আমরা দেশের স্বার্থে বৃত্তি হিসেবে দিয়ে বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ দিয়ে বৃত্তি প্রাপ্তদের যোগ্য করে তুলবো।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, প্রযুক্তিখাতের এই বৃত্তিতে আবেদনের যোগ্যতা হিসেবে স্থানীয় পেশাজীবীদের ক্ষেত্রে কম্পিউটার বিজ্ঞানে স্নাতক অথবা সংশ্লিষ্ট খাতে দুই বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। আর যারা যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসী হিসেবে কাজ করতে চান তাদের ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা ন্যূনতম উচ্চমাধ্যমিক পাশ। 

আবেদন প্রক্রিয়ার পরে সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে যোগ্যদের বাছাই করে বৃত্তি দেওয়া হবে। চার মাস মেয়াদি সফটওয়্যার টেস্টার ইঞ্জিনিয়ার বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

১২ ডিসেম্বর (বুধবার) থেকে অনলাইনে আবেদন করা যাবে এই piit.us ঠিকানায়। আবেদন গ্রহণ করা হবে আগামী ৫ জানুয়ারি পর্যন্ত। এছাড়া ০১৭৯৯৪৪৬৬৫৫ এই নম্বরে ফোন করেও বৃত্তি সম্পর্কে জানা যাবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন পিপল এন টেক- এর উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক অধ্যাপক ড. সাজ্জাদ হোসেন, পরিচালক লায়ন মো. ইউসুফ খানসহ অনেকে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

জামিন পেলেন হুয়াওয়ের সিএফও


আরও খবর

প্রযুক্তি
জামিন পেলেন হুয়াওয়ের সিএফও

প্রকাশ : ১২ ডিসেম্বর ২০১৮

  অনলাইন ডেস্ক

চীনের টেলিকম জায়ান্ট হুয়াওয়ের প্রতিষ্ঠাতা রেন ঝেংফেইয়ের মেয়ে মেন ওয়ানঝো’কে জামিন দিয়েছে কানাডার আদালত। 

মঙ্গলবার শুনানি শেষে শর্ত সাপেক্ষে তার জামিন মঞ্জুর করে কানাডার আদালত। খবর দ্য গার্ডিয়ানের

হুয়াওয়ের চিফ ফাইন্যান্সিয়াল অফিসার (সিএফও) ও ডেপুটি চেয়ারম্যান মেন ওয়াংঝোকে। 

ইরানের বিরুদ্ধে আরোপিত মার্কিন নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করে সেখানে হুয়াওয়ে লেনদেন করেছিল সেই অভিযোগ তুলে যুক্তরাষ্ট্র মেন'কে গ্রেফতারে কানাডার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অনুরোধে গত ১ ডিসেম্বর তাকে গ্রেফতার করে কানাডা।

মেন ওয়ানঝো’কে গ্রেফতারের পর থেকে চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র-কানাডার কূটনৈতিক বাকযুদ্ধ চরমে পৌঁছায়। এর জের ধরে বেইজিংয়ে কানাডার সাবেক এক কূটনীতিককে গ্রেফতার করে চীন।

সংশ্লিষ্ট খবর