প্রযুক্তি

মঙ্গলের মাটি খুঁড়ে তথ্য জানাবে ইনসাইট রোবট

প্রকাশ : ২৮ নভেম্বর ২০১৮

মঙ্গলের মাটি খুঁড়ে তথ্য জানাবে ইনসাইট রোবট

  অনলাইন ডেস্ক

মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার রোবট ‘ইনসাইট’ সোমবার মঙ্গলগ্রহে সফলভাবে অবতরণ করেছে। এই রোবটটি প্রথম মানবসভ্যতার পাঠানো কোনও মহাকাশযান, যা মঙ্গলগ্রহের মাটি খুঁড়ে তথ্য পাঠাবে। 

কোন কোন ‘মণি-মাণিক্য’ লুকিয়ে রয়েছে মঙ্গলে, মাটি খুঁড়ে তার তন্নতন্ন তল্লাশী চালাবে নাসার পাঠানো ‘ইনসাইট’ ল্যান্ডার মহাকাশযান। লাল গ্রহ-এর ভেতরে তরল পানির ধারা এখনও গোপনে বয়ে চলেছে কি না, তা-ও খুঁজে দেখবে নাসার এই ল্যান্ডার। দেখবে এখনও অগ্ন্যূৎপাত হয় কি না মঙ্গলের পিঠের নীচে, হলে তা কতটা ভয়াবহ। এও দেখবে, কম্পন কতটা তীব্র হয় ‘লাল গ্রহ’-এর শিলাস্তরে।

‘অপরচুনিটি’, ‘কিউরিওসিটি’-র মতো দু’টি রোভার পাঠানোর পরেও মঙ্গলে ইনসাইট পাঠানো হয়েছে মূলত, মাটি খোঁড়ার জন্য। মাটি খুঁড়ে মঙ্গলের ভেতরের আগ্নেয়গিরিগুলোর সক্রিয়তা বোঝা ও মাপার জন্য। যা আগামী দিনে চাঁদ ও মঙ্গলে মানবসভ্যতার পুনর্বাসনের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় তথ্যাদি হয়ে উঠবে বলে বিশ্বাস নাসার অ্যাডমিনিস্ট্রেটর জিম ব্রিডেনস্টিনের।

নাসার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ইনসাইট তার দু’বছরের মেয়াদে যাবতীয় কাজকর্ম করার জন্য শক্তি নেবে সূর্যের কাছ থেকে। তার জন্য ইনসাইট-এ রয়েছে সোলার প্যানেল। যেগুলো প্রত্যেকটি চওড়ায় সাত ফুট বা ২.২ মিটার। পৃথিবীর চেয়ে সূর্য থেকে দূরে আছে বলে ইনসাইট-এর ওই দু’টি সোলার প্যানেল সূর্যালোক কম পাবে ঠিকই, কিন্তু তাতে কোনও অসুবিধা হবে না তার কাজকর্মে। মেঘমুক্ত আকাশে গিলে ৬০০ থেকে ৭০০ ওয়াট সৌরশক্তি পেলেই ইনসাইট-এর সোলার প্যানেলগুলির প্রয়োজন মিটবে।

মঙ্গলে প্রায়ই ধূলিঝড় হয়। আর সেই ঝড় হয়ে উঠলে লাল গ্রহ-এর আকাশ অন্ধকার হয়ে যায়। আর সেটা দীর্ঘ দিন ধরে থাকে। তখন পৃথিবী থেকে আর মঙ্গলের পিঠে নামা রোভার, ল্যান্ডারগুলোকে দেখা যায় না। তাদের সিগন্যাল পাঠানো যায় না। তারাও সিগন্যাল পাঠাতে পারে না। 

নাসার বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, ইনসাইট-এ এমন ব্যবস্থা রয়েছে, যাতে সেই বিপদ এড়ানো যায় অনেকটাই। ওই সময় সূর্যালোক থাকে না বলে রোভার, ল্যান্ডারদের সোলার প্যানেলগুলো নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ে। কিন্তু ইনসাইট-এর সোলার প্যানেলগুরো দিনে ২০০ থেকে ৩০০ ওয়াট সূর্যালোক পেলেই সক্রিয় থাকবে।

উৎক্ষেপণের পর মহাকাশে টানা সাত মাস দৌড়ে সোমবার গভীর রাতে মঙ্গলে পা ছুঁইয়েছে নাসার ওই ল্যান্ডার মহাকাশযান। পাঁচ বছর আগে নাসার পাঠানো রোভার ‘মিস কিউরিওসিটি’ এখন যেখানে রয়েছে, তার ধারেকাছেই মঙ্গলের বিষূবরেখায় ‘এলিসিয়াম প্লানিশিয়া’ এলাকায় নেমেছে ইনসাইট। যে এলাকায় ছড়িয়ে রয়েছে বহু কোটি বছর আগে লাল গ্রহ-এর অন্দরের আগ্নেয়গিরিগুলো থেকে বেরিয়ে আসা লাভা স্রোত। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে যে হেতু সেই লাভা স্রোত ঠান্ডা হয়ে গিয়েছে, তাই লাভা জমে থাকা ওই এলাকা অনেকটাই সমতল। এবড়োখেবড়ো নয় বলেই বিস্তর হিসেব কষে, বেছে বেছে মঙ্গলের বিষূবরেখার ওই এলাকাতেই ইনসাইট-কে নামিয়েছেন নাসার বিজ্ঞানীরা। যাতে কোনও ভাবে টাল সামলাতে না পারার জন্য ব্যাঘাত না ঘটে ইনসাইট ল্যান্ডারের কাজকর্মে। সূত্র: আনন্দবাজার। 

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

বিজ্ঞাপন প্রচারে বাধা নেই গ্রামীণফোনের


আরও খবর

প্রযুক্তি

  বিশেষ প্রতিনিধি

গ্রামীণফোনকে 'সিগনিফিকেন্ট মার্কেট পাওয়ার' (এসএমপি) ঘোষণার পর জারি করা দুটি নির্দেশনা স্থগিত করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। এর ফলে বিজ্ঞাপন প্রচারে বিধিনিষেধসহ কয়েকটি শর্ত গ্রামীণফোনের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না।

আগের দুটি নির্দেশনা স্থগিতের বিষয়টি উল্লেখ করে মঙ্গলবার বিটিআরসির পক্ষ থেকে গ্রামীণফোনকে চিঠি পাঠানো হয়।

টেলিযোগাযোগ খাতের নিয়ন্ত্রণ সংস্থা বিটিআরসির সিনিয়র সহকারী পরিচালক (জনসংযোগ) জাকির হোসেন খান সমকালকে জানান, গ্রামীণফোনকে 'এসএমপি' হিসেবে যে ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল, তা প্রত্যাহার করা হয়নি। তবে এসএমপি ঘোষণার পর আরোপিত কয়েকটি শর্ত এবং দুটি নির্দেশনা প্রত্যাহার করা হয়েছে।

কেন আগের নির্দেশনা প্রত্যাহার করা হলো— জানতে চাইলে জাকির হোসেন খান বলেন, বিটিআরসি আইনগত বিষয়গুলো আরও ভালোভাবে পর্যালোচনা করে নতুন নির্দেশনা জারি করতে চায়। এ ক্ষেত্রে গ্রামীণফোনের বক্তব্য কী সেটাও জানতে চায়। এ কারণেই আগের নির্দেশনাগুলো প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। পর্যালোচনার পর যে কোনো সময় আবারও এ ব্যাপারে নতুন নির্দেশনা জারি করা হবে।

গ্রামীণফোনকে পাঠানো চিঠিতে 'এসএমপি' বিষয়ে বক্তব্য দেওয়ার জন্য ১৫ দিনের সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে।

গত ১০ ফেব্রুয়ারি গ্রামীণফোনকে 'এসএমপি' ঘোষণা করে বিটিআরসি। দেশের বাজারে কোনো কোম্পানির একচ্ছত্র আধিপত্য নিয়ন্ত্রণে এটাই ছিল 'এসএমপি' জারির প্রথম ঘোষণা। এরপর গত ১৮ ফেব্রুয়ারি আরেকটি নির্দেশনা জারি করে 'এসএমপি' ঘোষিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে কয়েকটি শর্ত বেঁধে দেয় বিটিআরসি। এর মধ্যে একটি শর্ত ছিল, গ্রামীণফোন কোনো মাধ্যমেই নতুন কোনো সেবার প্রচার চালাতে পারবে না।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বিটিআরসির এ নির্দেশনা চ্যালেঞ্জ করে সম্প্রতি উচ্চ আদালতে রিট দায়ের করা হয়। রিটের শুনানি শেষে আদালত গ্রামীণফোনের বিজ্ঞাপন প্রচার-সংক্রান্ত বিধিনিষেধ স্থগিতের আদেশ দেন। বিষয়টি নিয়ে আইনি লড়াইয়ে যাওয়ার পরই বিটিআরসি আগের জারি করা নির্দেশনা প্রত্যাহার করে নিল।

বিটিআরসির এ সিদ্ধান্তের বিষয়ে গ্রামীণফোনের উপমহাব্যবস্থাপক মুহাম্মদ হাসান সমকালকে বলেন, গ্রামীণফোন বিটিআরসির এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানায়। গ্রামীণফোন প্রতিযোগিতামূলক বাজারে বিশ্বাস করে এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে কাজ করে যেতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

বেসিস সফটএক্সপোতে এলআইসিটির বিশেষ সেমিনার


আরও খবর

প্রযুক্তি

  অনলাইন ডেস্ক

‘টেকনোলজি ফর প্রসপারিটি’ স্লোগান নিয়ে দেশের সফটওয়্যার খাতের সবচেয়ে বড় প্রদর্শনী বেসিস সফটএক্সপো শুরু হয়েছে মঙ্গলবার।

তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ ও বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফর্মেশন সার্ভিসেস (বেসিস)-এর যৌথ আয়োজনে রাজধানীর কুড়িলে আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরা (আইসিসিবি)’তে তিন দিনব্যাপী এই প্রদর্শনী চলবে ১৯ মার্চ থেকে ২১ মার্চ পর্যন্ত।

এবারের সফটএক্সপোতে থাকছে ‘লিভারেজিং আইসিটি ফর গ্রোথ, এমপ্লায়মেন্ট অ্যান্ড গভার্নেন্স (এলআইসটি)  প্রকল্প’ আয়োজিত তিনটি বিশেষ সেমিনার।

প্রদর্শনীর প্রথম দিন ১৯ মার্চ বিকাল সাড়ে ৫টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত হল-০১ এ অনুষ্ঠিত হয় ৪র্থ শিল্প বিপ্লবের প্রস্তুতির জন্য বাংলাদেশ প্রেক্ষিতে কেমন শিক্ষা ও দক্ষতা প্রয়োজন বিষয়ে আলোকপাত করে ‘Education and Skills: Preparing for 4IR’ শীর্ষক সেমিনার।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. রোকোনুজ্জামান।

উপস্থিত ছিলেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মোস্তাফা জব্বার এবং সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি 

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

বেসিস সফটএক্সপোতে ‘জাপান ডে’


আরও খবর

প্রযুক্তি

বেসিস সফটএক্সপোতে দ্বিতীয় দিনে পালিত হচ্ছে ‘জাপান ডে’

  অনলাইন ডেস্ক

মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) শুরু হয়েছে দেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতের প্রদর্শনী ১৫ তম ‘বেসিস সফট এক্সপো ২০১’। আজ চলছে আয়োজনে দ্বিতীয় দিন। দ্বিতীয় দিনের আয়োজনে পালিত হচ্ছে জাপান ডে।

জাপানের বাজারে বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তির বাজার প্রসারে যৌথভাবে কাজ করছে সরকার এবং বেসরকারী প্রতিষ্ঠানসহ বেসিস। জাপানে বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তির ক্রমবর্ধমান সম্ভাবনার কথা মাথায় রেখে বেসিস মেলার ২য় দিনকে জাপান ডে হিসাবে ঘোষণা করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় বানিজ্য মন্ত্রী জনাব টিপু মুনশী। অনুষ্ঠানে বক্তারা জানান, জাপানে বাংলাদেশের বাজার বৃদ্ধিতে খোলা হচ্ছে বাংলাদেশের ডেস্ক একই ভাবে বাংলাদেশে জাপানের ডেস্ক থাকবে। বর্তমানে জাপানে বাংলাদেশে জাপানের চলমান কার্যাবলি যেমন- জাইকার সহায়তায় মেট্রোরেল, কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র, পোর্ট, বিভিন্ন ইনফ্রাস্টাকচার, রিনিউয়েবল এ্যানার্জি ডেভেলপমেন্ট, বাংলাদেশের বর্তমান জিডিপিতে রিলায়াবল পাওয়ার এর ব্যবহার উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, জাপান বাংলাদেশ সর্ম্পকের উত্তর উত্তর উন্নতি হচ্ছে যা দেশের অর্থনীতি কে সমৃদ্ব করবে।

প্রধান অথিতির বক্তব্যে মাননীয় মন্ত্রী বলেন, জাপানের সাথে বাংলাদেশের সর্ম্পক বহুপুরানো এবং বাংলাদিশের সার্বিক উন্নয়নে জাপানের সহযোগীতা বরাবরই ইতিবাচক। সরকার দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতকে খুবই গুরত্ব দিয়ে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করেছে এবং এর ফলাফল ও ইতিবাচক। সম্প্রতি জাপানকে বাংলাদেশে তাদের কার্যক্রম সহায়তা প্রদান এবং বাংলাদেশের সম্ভাবনা বিবেচনায় সরকার জাপানকে ৪০০ হেক্টর জমি প্রদান করা প্রস্তাব অনুমোদিত হয়েছে। 

মন্ত্রী আরো বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি ছাড়াও অন্যান্য বাণিজ্য প্রসারে ও জাপান বাজার বাংলাদেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। আগামী ৫ বছরে এ সর্ম্পকের আরো উন্নতি হবে বলে আমি মনে করি। এ সর্ম্পক উন্নয়নে এ ধরনের আয়োজন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

তিন দিনব্যাপী বেসিস সফটএক্সপো ২০১৯ চলবে ২১ মার্চ পর্যন্ত।

সংশ্লিষ্ট খবর