প্রযুক্তি

তৃতীয় সাবমেরিন কেবলে যুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ

ক্রমবর্ধমান চাহিদার কারণে এ উদ্যোগ : মোস্তাফা জব্বার

প্রকাশ : ১৯ অক্টোবর ২০১৮ | প্রিন্ট সংস্করণ

তৃতীয় সাবমেরিন কেবলে যুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ

  রাশেদ মেহেদী

তৃতীয় সাবমেরিন কেবলে সংযুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ। চট্টগ্রাম থেকে সিঙ্গাপুর পর্যন্ত তৃতীয় সাবমেরিন কেবল সংযোগ স্থাপনের জন্য একটি প্রস্তাব ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগকে দিয়েছে বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি-বিএসসিসিএল। এখন প্রস্তাবকে ঘিরে সরকারি নিয়মে বিশদ প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) তৈরির কাজ শুরু হবে। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার সমকালকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মন্ত্রী জানান, দেশে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথের চাহিদা দ্রুত বাড়ছে। এ অবস্থায় নতুন আর একটি সাবমেরিন কেবল সংযোগ স্থাপন করে ব্যান্ডউইথ সক্ষমতা না বাড়ালে ভবিষ্যতে সংকটের সৃষ্টি হবে। এ বিষয়টি মাথায় রেখেই তৃতীয় সাবমেরিন কেবল সংযোগ স্থাপনের ব্যাপারে উপায় খুঁজে বের করতে বিএসসিসিএলকে নির্দেশ দেওয়া হয়। তারা একটি প্রস্তাব দিয়েছে। এটার ওপরই কাজ শুরু হয়েছে।

বিএসসিসিএল সূত্র জানায়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের নির্দেশনা অনুযায়ী সিঙ্গাপুরের একটি বেসরকারি কোম্পানির সঙ্গে সাবমেরিন কেবল সংযোগ স্থাপন করা হবে। ওই কোম্পানির মোট চার জোড়া কেবল থাকবে। প্রতি জোড়া কেবলের সক্ষমতা হবে আট টেরাবাইট বা আট হাজার জিবিপিএস। বাংলাদেশ প্রথম পর্যায়ে এক জোড়া কেবল সংযোগ বা আট হাজার জিবিপিএস সক্ষমতা সংযোগ নেবে। সাবমেরিন কেবলের সম্ভাব্য ল্যান্ডিং স্টেশন হতে পারে চট্টগ্রামে।

সূত্র জানায়, বর্তমানে দেড় হাজার জিবিপিএস সক্ষমতার দ্বিতীয় সাবমেরিন কেবল থেকে প্রায় ৩০০ জিবিপিএস ব্যবহূত হচ্ছে। অপর একটি সূত্র জানায়, বর্তমানে দেশে মোট ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ ব্যবহার হয় প্রায় ৯০০ জিবিপিস। দ্বিতীয় সাবমেরিন কেবলের বাইরে বাকি ব্যান্ডউইথ আসছে প্রথম সাবমেরিন কেবল এবং ভারত থেকে ভূমির মধ্য দিয়ে আসা কেবল বা টেরেস্ট্রিয়াল কেবল থেকে।

মোস্তাফা জব্বার জানান, দেশে ইন্টারনেট ব্যবহার বৃদ্ধির চিত্র থেকে দেখা যায় গত চার-পাঁচ মাসেই ব্যবহার প্রায় দ্বিগুণের বেশি বেড়েছে। বিশেষ করে ফোরজি প্রযুক্তি চালু এবং সারা দেশে ফাইবার অপটিক কেবলের মাধ্যমে ব্রডব্যান্ড সংযোগ ছড়িয়ে দেওয়ার কারণে ইন্টারনেটের ব্যবহার আগামী দিনগুলোতে আরও দ্রুতগতিতে বাড়বে। এর ফলে বিদ্যমান প্রথম ও দ্বিতীয় সাবমেরিন কেবলের যে সমক্ষতা আছে, তা দিয়ে ক্রমবর্ধমান ব্যান্ডউইথের চাহিদা বেশিদিন পূরণ করা অসম্ভব হয়ে পড়বে। এ অবস্থায় তৃতীয় সাবমেরিন কেবল সংযোগ বিকল্প নেই।

তিনি আরও বলেন, ভারত থেকে টেরেস্ট্রিয়াল কেবলের মাধ্যমে আসা ব্যান্ডউইথের গুণগত মান বা লেটেন্সি ভালো নয়। এর চেয়ে সাবমেনির কেবল দিয়ে আসা ব্যান্ডউইথের গুণগত মান অনেক ভালো। এ কারণে ভারত থেকে আসা টেরেস্ট্রিয়াল কেবলের ওপর থেকে নির্ভরতাও কমাতে হবে। এই নির্ভরতা কমানোর জন্যও তৃতীয় সাবমেরিন কেবলের বিকল্প নেই।

দেশে এর আগে দুটি সাবমেরিন কেবল সি-মিই-উই-৪ এবং সি-মিই-উই-৫ স্থাপন করা হয় দুটি আন্তর্জাতিক কনসোর্টিয়ামের মাধ্যমে। ২০০৬ সালে এবং ২০১৭ সালে এ দুটি সাবমেরিন কেবলের ব্যান্ডউইথ ব্যবহার শুরু হয়। তবে মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার জানান, তৃতীয় সাবমেরিন কেবলটি কোন কনসোর্টিয়ামের মাধ্যমে হওয়ার সম্ভাবনা নেই। কারণ আবার কতদিনে নতুন কনসোর্টিয়াম হবে তার জন্য অপেক্ষা করলে ক্রমবর্ধমান ব্যান্ডউইথের চাহিদা মোকাবেলা করা যাবে না। এ কারণে বাংলাদেশ থেকে সিঙ্গাপুর পর্যন্ত সাবমেরিন কেবল স্থাপন করা হতে পারে অন্য কোনো কোম্পানির সঙ্গে যুক্ত হয়ে। তবে বাংলাদেশ থেকে সিঙ্গাপুর পর্যন্ত যেসব দেশ পড়বে, তারা এ সংযোগে যুক্ত হতে চাইলে তা বিবেচনা করা হবে।

মন্ত্রী জানান, তৃতীয় সাবমেরিন কেবল স্থাপনের জন্য সরকারি নিয়মে ডিপিপি তৈরি করা হচ্ছে। এই প্রস্তাবের ভেতরে প্রকল্পের জন্য যৌক্তিক ব্যয় নির্ধারণসহ এর কারিগরি দিক সুনির্দিষ্ট করা হবে। এরপর প্রকল্পটি পাসের জন্য সরকারি উচ্চ পর্যায়ে পেশ করা হবে।


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

গুগলের ডুডলে জাতীয় শিশু দিবস


আরও খবর

প্রযুক্তি

জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে গুগলের ডুডল

  অনলাইন ডেস্ক

গুগলের ডুডলে এবার জায়গা করে নিয়েছে জাতীয় শিশু দিবস।

রোববার বাংলাদেশ থেকে গুগলের হোম পেজ 'গুগল ডটকম' বা 'গুগল ডটকম ডটবিডি' ভিজিট করলেই দেখা যাচ্ছে দৃষ্টিনন্দন ডুডলটি।

শিশু দিবসের বিশেষ এই ডুডল শিশুদের নিয়েই সাজিয়েছে গুগল। এতে প্রাকৃতিক পরিবেশে গাছপালার মাঝে শিশুদের বইপড়ার, খেলা করার ও উল্লাসে মেতে ওঠার দৃশ্য ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।

'চিলড্রেন'স ডে ২০১৯' শিরোনামের ডুডলটিতে ক্লিক করলে জাতীয় শিশু দিবস সম্পর্কিত তথ্য পাওয়া যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মিদন ১৭ মার্চ। ২০০৯ সাল থেকে এই দিনে বাংলাদেশজুড়ে পালিত হচ্ছে জাতীয় শিশু দিবস।

এর আগে সর্বশেষ গত ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবসে বিশেষ ডুডলে হোমপেজ সাজায় সার্চ ইঞ্জিন জায়ান্ট গুগল।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

ফেসবুকে বিভ্রাট


আরও খবর

প্রযুক্তি
ফেসবুকে বিভ্রাট

প্রকাশ : ১৪ মার্চ ২০১৯

  অনলাইন ডেস্ক

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ব্যবহারে ভোগান্তি দেখা দিয়েছে।

বাংলাদেশ সময় বুধবার রাত ১০টা থেকে থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ব্যবহারকারী এই সমস্যায় পড়েছেন বলে বিবিসি জানিয়েছে।

জনপ্রিয় এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লগইন করা গেলেও কোনও কিছু শেয়ার করা যাচ্ছে না; লোডিংও হচ্ছে না, তবে ম্যাসেঞ্জারে ছবি বা ভিডিও ছাড়া ম্যাসেজ পাঠানো যাচ্ছে।

একই সঙ্গে ফেসবুকের মালিকানাধীন জনপ্রিয় অ্যাপ ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারেও বিভ্রাট তৈরি হয়েছে।

কী কারণে ফেসবুকে এই বিভ্রাট দেখা দিয়েছে তা এখনও নিশ্চিত নয়।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে বলেছে, 'কিছু কিছু ব্যবহারকারী ফেসবুক ও আমাদের অন্য অ্যাপ ব্যবহারে সমস্যায় পড়েছেন বলে আমরা অবগত আছি। যতদ্রুত সম্ভব সমস্যাটি সমাধানে কাজ চলছে।'

ফেসবুকে কোনও সাইবার আক্রমণের ঘটনা ঘটেনি বলেও জানিয়েছে তারা।

এদিকে ইনস্টাগ্রামের পক্ষ থেকে এক টুইট বার্তায় বলা হয়েছে, ইনস্টাগ্রামে ঢুকতে সমস্যা হচ্ছে। আমরা অবগত রয়েছি। সমস্যা দ্রুত সমস্যা সমাধানের চেষ্টা চলছে।

এর আগে ২০১৫ সালে ৫০ মিনিট বন্ধ ছিল ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রাম। ২০১০ সালে আড়াই ঘণ্টা বন্ধ ছিল ফেসবুক। তবে এবার ফেসবুকের ইতিহাসে দীর্ঘ সময় ধরে বিভ্রাট স্থায়ী হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

১২ মের মধ্যে দেশের সব টিভি বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে: তথ্যমন্ত্রী


আরও খবর

প্রযুক্তি

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ- ফাইল ছবি

  সমকাল প্রতিবেদক

আগামী ১২ মের মধ্যে দেশের সব টেলিভিশন চ্যানেল সম্প্রচারে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট ব্যবহার করবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ প্রথম তিন মাস বিনামূল্যে সেবা দেবে। সবার সঙ্গে আলোচনা করে সেবার দাম নির্ধারণ করা হবে। পাশাপাশি আগামী ১ এপ্রিলের মধ্যে বিদেশি চ্যানেলে বাংলাদেশের বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধ না করলে সরকার ব্যবস্থা নেবে।

সোমবার সচিবালয়ে টেলিভিশন মালিকদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্স-অ্যাটকোর সঙ্গে বৈঠক শেষে মন্ত্রী সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান এমপি, তথ্য সচিব আবদুল মালেক, বাংলাদেশ কমিউনিকেশন্স স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএসসিএল) চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ, মাছরাঙা টেলিভিশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও অ্যাটকোর সদস্য অঞ্জন চৌধুরী, এশিয়ান টিভির চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ, ডিবিসি নিউজের চেয়ারম্যান ইকবাল সোবহান চৌধুরী, একাত্তর টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোজাম্মেল বাবুসহ বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলের প্রধান নির্বাহীরা উপস্থিত ছিলেন।

তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, ১২ মে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের এক বছর পূর্তি হবে। ওইদিন বাংলাদেশের সব টেলিভিশন চ্যানেলের সম্প্রচার বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে করা হবে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ তিন মাস বিনামূল্যে সেবা দেবে। স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ ওইদিন ফাইবার অপটিক কেবলের মাধ্যমে গাজীপুরের সজীব ওয়াজেদ গ্রাউন্ড স্টেশনে নিয়ে যাবে। সেখান থেকে আপলিঙ্ক ও ডাউনলিঙ্ক করা হবে। সে জন্য স্যাটেলাইট কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে পাবলিক নোটিশ দেওয়া হয়েছে। আইন অনুযায়ী বিদেশি চ্যানেলের মাধ্যমে বাংলাদেশি বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। এটা ভারত, যুক্তরাজ্য ও ইউরোপেও দণ্ডনীয় অপরাধ। ইতিমধ্যে কেবল অপারেটরদের সতর্ক করা হয়েছে। ১ এপ্রিলের পর থেকে কেউ এ আইন ভঙ্গ করলে সরকার ব্যবস্থা নেবে।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বাংলাদেশে ৪৪টি টেলিভিশন চ্যানেলের লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৩০টি বা এর চেয়ে বেশি সম্প্রচারে রয়েছে। ৪৪টির বাইরে টেলিভিশন চ্যানেল নামে যেগুলো করা হয়, সেগুলো সব অননুমোদিত।

একাত্তর টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোজাম্মেল বাবু সাংবাদিকদের বলেন, টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রি দুর্বল হয়ে পড়েছে। বিজ্ঞাপনের বাজার ছোট। তারপরও বিজ্ঞাপন যতটুকু ছিল তার একটা বড় অংশ বিদেশে পাচার হচ্ছে। আরেকটা বড় অংশ ডিজিটাল মিডিয়ায় অবৈধভাবে পাচার হয়ে যাচ্ছে। এগুলো বন্ধের ব্যাপারে তথ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। মন্ত্রীর কাছ থেকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস পাওয়া গেছে।