সিলেট

বড়লেখায় আইনজীবী হত্যায় তিন আসামি রিমান্ডে

প্রকাশ : ২৮ মে ২০১৯

বড়লেখায় আইনজীবী হত্যায় তিন আসামি রিমান্ডে

  মৌলভীবাজার ও বড়লেখা প্রতিনিধি

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় আইনজীবী আবিদা সুলতানা (৩৫) হত্যার ঘটনায় আটক তানভির আলমের ১০ দিন এবং তার স্ত্রী সাদিয়া ও মা নেহার বেগমের আট দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার বড়লেখার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম হরিদাস কুমার শুনানি শেষে এ আদেশ দেন।

এর আগে সোমবার রাতে চারজনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন নিহতের স্বামী শরিফুল ইসলাম বসুনিয়া।

মামলার আসামিরা হলো- আবিদা সুলতানার বাবার বাসার ভাড়াটিয়া তানভির আলম, ছোট ভাই আফছার আলম, স্ত্রী হালিমা সাদিয়া ও মা নেহার বেগম। তাদের স্থায়ী ঠিকানা সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলার ছিল্লারকান্দি। তানভিরের ছোট ভাই আফছার আলম পলাতক। তবে কী কারণে আবিদাকে হত্যা করা হয়েছে, তা এখনও জানা যায়নি।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মৌলভীবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আইনজীবী আবিদা সুলতানা স্বামীর সঙ্গে মৌলভীবাজার শহরে বসবাস করতেন। তবে ছুটির দিনে বড়লেখার মাধবগুল গ্রামে তার বাবার বাড়ি দেখাশোনা করতে যেতেন তিনি।

রোববার সকালে বিয়ানীবাজারে তার বোনের বাড়ি থেকে বাবার বাড়িতে যান আবিদা। পরে রাত ১০টার দিকে পুলিশ ওই বাড়ি থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করে। ওইদিনই পুলিশ বাড়ির ভাড়াটে তানভির আলমের স্ত্রী ও মাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে। তানভির আলমকে সোমবার শ্রীমঙ্গলের বরুণা এলাকা থেকে আটক করা হয়।

বড়লেখা থানার ওসি মো. ইয়াছিনুল হক জানান, হত্যার কারণ উদ্ঘাটনে কাজ করছে পুলিশ। এ ছাড়া পলাতক আসামি আফছার আলমকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এদিকে এ হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে বড়লেখা আইনজীবীরা বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছেন। মঙ্গলবার বড়লেখা আদালত চত্বরে মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী দীপক কুমার দাস।

আইনজীবী জিল্লুর রহমানের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন বড়লেখা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ, এপিপি গোপাল দত্ত, আইনজীবী ইয়াছিন আলী, শৈলেশ চন্দ্র রায়, আফজাল হোসেন প্রমুখ।

মন্তব্য


অন্যান্য