সিলেট

কোম্পানীগঞ্জের পাথর কোয়ারিতে হামলা, পুলিশ-বিজিবিসহ আহত ২০

প্রকাশ : ০৭ জানুয়ারি ২০১৯

কোম্পানীগঞ্জের পাথর কোয়ারিতে হামলা, পুলিশ-বিজিবিসহ আহত ২০

  সিলেট ব্যুরো

সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জ পাথর কোয়ারিতে টাস্কফোর্স অভিযানকারী দলের ওপর হামলা করেছে পাথরখেকো ও তাদের পক্ষের শ্রমিকরা। 

হামলায় পুলিশ কর্মকর্তা, বিজিবি সদস্যসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। আত্মরক্ষার্থে টাস্কফোর্সের সদস্যরা ৪০ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করেন। 

সোমবার বিকেলে কেয়ারির লিলাইবাজার-লালপাথর এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর (আরএমবি) ইনচার্জ এসআই আমিনুল হক, বিজিবি নায়েক আবদুর রহিম, সিপাহি আমিন, ভূমি অফিসের চেইনম্যান হেমায়েত, টাস্কফোর্সের শ্রমিক মোবারক, মিজান, শাহীনসহ ২০ জন রয়েছেন।

অভিযানকালে ২০টির মতো বোমা মেশিন ও মেশিনের পাইপ ধ্বংস করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিজন ব্যানার্জি। তিনি সমকালকে জানান, বোমা মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে ভোলাগঞ্জের লিলাইবাজার এলাকায় উপজেলা টাস্কফোর্স অভিযান শুরু করে। 

ওই সময় পাথর শ্রমিকদের উসকানি দেয় একটি পক্ষ। তারা অভিযানকারী দলের ওপর পাথর নিক্ষেপ ও হামলা করে। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৪০ রাউন্ড গুলি ছোড়া হয়।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাজুল ইসলাম সমকালকে জানিয়েছেন, আহতদের কয়েকজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।

স্থানীয়রা জানান, কোয়ারি এলাকার লিলাইবাজার, বাংকার এলাকাসহ কয়েকটি স্থান থেকে অবৈধভাবে নিষিদ্ধ বোমা মেশিন দিয়ে গর্ত করে পাথর উত্তোলন করে আসছে একটি চক্র। ফলে ধ্বংসের পথে লিলাইবাজারসহ বিভিন্ন স্থাপনা। নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেবে সোমবার অভিযানকালে হামলা করে পাথরখেকোরা। স্থানীয় আলাউদ্দিন, আলিম উদ্দিন, বিল্লাল হোসেন, সাহাব উদ্দিন, পরিবেশ মোল্লা, রইছ উদ্দিন, লাল মিয়া ও বশির উদ্দিনের মদদ ও নেতৃত্বে হামলা করা হয় বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। 

তারা প্রথমে পাথর কোয়ারি এলাকার শ্রমিকদের উসকানি দেয়। পাথর উত্তোলনের সঙ্গে জড়িতদের অনেকেই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।

এর আগে রোববার ভোলাগঞ্জের কালাইরাগ, গুচ্ছগ্রাম, ধলাই নদী এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১৫টি বোমা মেশিন ধ্বংস করে আভিযানিক দল।

মন্তব্য


অন্যান্য