সিলেট

একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে দিশেহারা পরিবার

প্রকাশ : ০৬ নভেম্বর ২০১৮

একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে দিশেহারা পরিবার

নিহত নজরুল ইসলাম

  হবিগঞ্জ প্রতিনিধি

টাকার জন্য হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ উপজেলার রসুলপুর গ্রামের যুবক নজরুল ইসলামকে দক্ষিণ আফ্রিকায় নৃশংসভাবে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। 

নিহত নজরুল ওই গ্রামের আবদুল আউয়াল মিয়ার ছেলে। মর্মান্তিক এ ঘটনার বেশ কয়েকদিন পার হয়ে গেলেও এখনও থামেনি নিহতের স্বজনদের আহাজারি। 

ওই বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, নজরুলের মা সামাত্ত্ব বানু মোবাইল ফোনে ছেলের ছবি দেখে কান্নায় বুক ভাসাচ্ছেন। নজরুলের মা ছাড়াও তার দুই অবুঝ শিশু বারবার বাবা বাবা বলে কান্নায় ভেঙে পড়ছে।

নিহত নজরুলের পিতা আবদুল আউয়াল জানান, তাদের পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী ছেলেটিকে হারিয়ে তারা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। কীভাবে পরিবার-পরিজন নিয়ে তাদের দিন কাটবে, তা আলল্গাহ ছাড়া আর কেউ জানে না। তিনি তার ছেলের লাশ ফেরত আনতে সরকারের প্রতি দাবি জানান। একই সঙ্গে ছেলের হত্যাকারীদের বিচার চান।

স্থানীয় ইউপি মেম্বার আব্দুস সহিদ জানান, বাংলাদেশ সরকারের কাছে আমাদের একটি চাওয়া, সরকার যেন দ্রুত নজরুলের লাশ ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করে এবং নজরুলের পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতা দেয়।

হবিগঞ্জের ডিসি মাহমুদুল কবীর মুরাদ বলেন, আফ্রিকায় আজমিরীগঞ্জের এক যুবক নিহতের খবর পত্র-পত্রিকায় দেখেছি। ঘটনাটি খুবই বেদনাদায়ক। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহতের পরিবারকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

প্রায় আট বছর আগে জীবিকার তাগিদে দক্ষিণ আফ্রিকায় পাড়ি জমান দুই সন্তানের জনক নজরুল ইসলাম। তিনি জোহানেসবার্গে কিশোরগঞ্জ সুপার মার্কেটে দীর্ঘদিন ধরে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের ব্যবসা করে আসছিলেন। গত শনিবার সকালে জিনিসপত্র কেনার জন্য টাকা নিয়ে গাড়ি করে বের হন। পথে ফোর্ডসবার্গ এলাকায় একদল দুর্বৃত্ত গতিরোধ করে তাকে গুলি করে হত্যা করে। এ হত্যাকাণ্ডের পরপরই একটি সিসিটিভির ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়। 

এতে দেখা যায়, রাস্তার পাশে গাড়ি দাঁড় করিয়ে ভেতরে বসা নজরুল ইসলাম। তার গাড়ির পেছনেই ছিল দুর্বৃত্তদের গাড়ি। গাড়িটি থামিয়ে দুর্বৃত্তরা নেমে নজরুলের গাড়ির দিকে যায় এবং কিছুক্ষণ কথা কাটাকাটির পর তাকে গুলি করে।

ফুটেজে আরও দেখা যায়, গুলিটি নজরুলের হাতে লাগার পর তাৎক্ষণিক তিনি গাড়ি থেকে নেমে রাস্তা পার হয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। দুর্বৃত্তরা আবারও তার গতিরোধ করে ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে গাড়ির ভেতর নিয়ে যায় এবং বেশ কয়েকটি গুলি করে। পরে নজরুলসহ গাড়িটি নিয়ে চলে যায় দুর্বৃত্তরা। অন্য স্থানে নিয়ে গাড়িসহ নজরুলের লাশ ফেলে টাকা-পয়সা নিয়ে পালিয়ে যায় তারা।

মন্তব্য


অন্যান্য