খেলা

বিশ্বকাপের সেরা পাঁচ

প্রকাশ : ১৬ জুলাই ২০১৯

বিশ্বকাপের সেরা পাঁচ

  ...

রুদ্ধশ্বাস ফাইনাল জিতে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ উঁচিয়ে ধরেছে ইংল্যান্ড। ফাইনালের মতো গোটা  টুর্নামেন্টেও ছিল অনেক উত্তেজনাপূর্ণ মুহূর্ত। ৪৮ ম্যাচের এই টুর্নামেন্টে ব্যাটে-বলের অনেক লড়াই ক্রিকেটপ্রেমীদের  মনে আসন গেড়েছে। তেমনই সেরা পাঁচ ব্যাটিং ও বোলিং পারফরম্যান্স নিয়ে এ আয়োজন।

হৃদয় ভাঙল ব্রাথওয়েটের

২২ জুন ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে কেন উইলিয়ামসনের ১৪৮ রানে ভর করে উইন্ডিজকে ২৯২ রানের লক্ষ্য দেয় নিউজিল্যান্ড। তবে এ ম্যাচে উইলিয়ামসনের ১৪৮ নয়, বরং ক্রেইগ ব্রাথওয়েটের ১০১-ই আলোচনায় আসে বেশি। কারণ, ১৬৪ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে উইন্ডিজ যখন ধুঁকছিল, তখন সেঞ্চুরি করে একপেশে লড়াইয়ে প্রাণ ফিরিয়ে এনেছিলেন ব্রাথওয়েট। কেমার রোচ, শেলডন কটরেল আর ওশানে থমাসকে নিয়ে দলকে প্রায় জয়ের দ্বারপ্রান্তেই নিয়ে যান এই ক্যারিবিয়ান। তবে শেষ পর্যন্ত পারেননি। ৪৯তম ওভারে দল যখন জয় থেকে মাত্র ৬ রান দূরে, তখন জেমস নিশামের বলে ট্রেন্ট বোল্টকে ক্যাচ দেন তিনি। খুব কাছে এসেও ভগ্ন হৃদয় নিয়েই ফিরতে হয় তাকে।

ভারতের ঘাতক হেনরি

ভারতের বিপক্ষে সেমিতে জিততে হলে শুরুতে উইকেট নেওয়ার বিকল্প ছিল না নিউজিল্যান্ডের। তাদের হয়ে সে কাজটি করলেন ম্যাট হেনরি। নিজের প্রথম দুই ওভারেই রোহিত শর্মা আর কেএল রাহুলকে তুলে নিয়ে ভারতের ব্যাটিং মেরুদণ্ড ভেঙে দেন তিনি। ম্যাচ শেষ করেন ২৪ রানে চার উইকেট নিয়ে।

বাবর আজমের  ক্যারিশমা

বিশ্বকাপের একপর্যায়ে প্রতিটি ম্যাচই ডু অর ডাই হয়ে দাঁড়িয়েছিল পাকিস্তানের জন্য। এমনই এক ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে দারুণ এক সেঞ্চুরি করেন বাবর আজম। কিউইদের ২৩৮ রানের লক্ষ্য অল্প হলেও পিচের ধীরগতির কারণে শট খেলাটা সহজ ছিল না। সেখানেই চোখ-ধাঁধানো শটের পসরা সাজিয়ে সেঞ্চুরি করেন বাবর। এর মধ্য দিয়ে ১৯৮৭ সালে সেলিম মালিকের পর বিশ্বকাপে তিন নম্বরে পাকিস্তানের হয়ে সেঞ্চুরির গৌরব অর্জন করেন তিনি।

এক্স-ফ্যাক্টর আর্চার

টুর্নামেন্ট শুরুর আগে তাকে কেন ইংল্যান্ডের এক্স-ফ্যাক্টর বলা হচ্ছিল, তার প্রমাণ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই দিলেন জোফরা আর্চার। ৩৭ রানের বিনিময়ে দুই উইকেট নেন তিনি। উইকেট কম হলেও এই পেসারের গতি, বাউন্স আর আগ্রাসী ভঙ্গির মুখে পড়েই মাত্র ২০৭ রানে গুটিয়ে যায় প্রোটিয়ারা। শুরুতেই বাউন্স দিয়ে হেলমেটে লাগিয়ে তিনি মাঠছাড়া করেছিলেন হাশিম আমলাকে। সেই যে ধাক্কা খায় প্রোটিয়ারা এরপর আর ম্যাচে ফিরতে পারেনি।

ইংল্যান্ডকে উড়িয়ে দিলেন স্টার্ক

লর্ডসের মাঠে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের পেয়ে জ্বলে উঠেছিলেন অসি পেসার মিচেল স্টার্ক। ২৮৫ রানের নিচে ইংলিশদের বেঁধে রাখতে হলে তার জ্বলে ওঠার বিকল্পও ছিল না। স্টার্ক হতাশ করেননি। এদিন ৪৩ রানে চার উইকেট নেন তিনি। এর মধ্যে অসাধারণ এক ইয়র্কারে বোল্ড করেন বেন স্টোকসকে। এমন ডেলিভারি তাকে আরও অনেক ম্যাচে করতে দেখা গেছে। এই অজি পেসার বিশ্বকাপে ছিলেন দুর্দান্ত ফর্মে। ১০ ম্যাচে ২৭ উইকেট নিয়ে শীর্ষে থেকে শেষ করেন টুর্নামেন্ট।

মন্তব্য


অন্যান্য