খেলা

'দায়িত্ব নিয়ে খেলতে পছন্দ করি'

প্রকাশ : ১৬ মে ২০১৯ | আপডেট : ২২ মে ২০১৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

'দায়িত্ব নিয়ে খেলতে পছন্দ করি'

  ...

দুয়ারে কড়া নাড়ছে বিশ্বকাপ। একটু একটু করে উত্তাপও বাড়ছে তার। আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের মধ্যেও বিশ্বকাপের মৌতাতে আচ্ছন্ন টাইগাররা। ক্রিকেটের এই শ্রেষ্ঠ মঞ্চে যাওয়ার আগে দলগত পরিকল্পনার বাইরেও ক্রিকেটাররা নিজেদের তৈরি করেছেন নিজের মতো করেই। দেশ ছাড়ার আগে সমকালের সঙ্গে বিশ্বকাপ আড্ডায় নিজেদের সেই ভাবনাগুলোই তুলে ধরেছেন টাইগাররা। বিশ্বকাপযাত্রী টাইগারদের ধারাবাহিক এই সাক্ষাৎকার পর্বে আজ থাকছে মেহেদী হাসান মিরাজ। তার গল্প শোনাচ্ছেন সেকান্দার আলী

সমকাল: মিরাজ, প্রথমবার বিশ্বকাপ খেলবেন, খুব এক্সাইটিং নিশ্চয়?

মিরাজ: প্রতিটা ক্রিকেটারের স্বপ্ন থাকে বিশ্বকাপ খেলার। আমারও স্বপ্ন ছিল বিশ্বকাপ খেলব। আল্লাহর কাছে শুকরিয়া যে, বিশ্বকাপ দলে জায়গা পেয়েছি। এখন চেষ্টা থাকবে দলের প্রয়োজনে ভালো কিছু করা। আসল তৃপ্তি পাওয়া যায় দলের জন্য ভালো কিছু করতে পারলে।

সমকাল: দুই বছর আগে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে খেলেছেন। ওই অভিজ্ঞতা নিশ্চয়ই কাজে দেবে?

মিরাজ: আমাদের দলে খুবই অভিজ্ঞতা সম্পন্ন খেলোয়াড় আছে। দুই-তিনটা বিশ্বকাপ খেলেছে কেউ কেউ। আমরা যারা বিশ্বকাপ খেলিনি তারাও দুই তিন বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলে ফেলেছি। বড় টুর্নামেন্টে এটা কাজে দেবে। সবচেয়ে বড় কথা সবার ফিট থাকা জরুরি। সবাই ফিট থাকলে পারফরম্যান্স ভালো হবে ইনশাআল্লাহ।

সমকাল: ইংল্যান্ডে খেলা, এর আগেও তো কয়েকবার গিয়েছেন সেখানে।

মিরাজ: ইংল্যান্ডে খেলার অভিজ্ঞতা আছে। চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে খেলেছি, কাছ থেকে দেখেছি। এর আগে অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়েও খেলেছি। ওখানে 'ট্রু' উইকেট থাকবে কিন্তু বাউন্সি হবে। কন্ডিশন বুঝে ভালো খেলার মতো ক্রিকেটার আমাদের দলে আছে। আশা করি আমরা ভালো খেলব।

সমকাল: এবারের বিশ্বকাপে প্রতিটি দলই চ্যালেঞ্জিং। আফগানিস্তানকেও হুমকি মনে করা হচ্ছে। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে কতটা প্রস্তুত?

মিরাজ: এই বিশ্বকাপটা অবশ্যই চ্যালেঞ্জ। আগে দেখেন গ্রুপ ভিত্তিতে খেলা হয়েছে। দুটি বা তিনটি ম্যাচ জিতলেই কোয়ার্টার বা সেমিফাইনালে যাওয়া যেত। এবার ধারাবাহিক পারফর্ম করতে হবে। প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত ভালো খেলতে হবে। ম্যাচ জিততে হবে। এখানে দুই-তিনটা ম্যাচ জিতে দ্বিতীয় রাউন্ডে যাওয়ার সুযোগ নেই। এখানে সরাসরি সেমিফাইনাল। আমরা যদি ব্যক্তিগত দিক থেকে ফোকাস রাখি, দল হিসেবে ভালো খেলতে পারি, তাহলে ভালো কিছু করা সম্ভব।

সমকাল: বিধ্বংসী সব ব্যাটসম্যান পাবেন বিশ্বকাপে। তাদের মোকাবেলা করতে আপনার প্রস্তুতি কতটা?

মিরাজ: অবশ্যই ওখানে অনেক গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় আসবে। বড় বড় ব্যাটসম্যান খেলবে। চ্যালেঞ্জ থাকবে বোলারদের জন্য। নিজেকেই চ্যালেঞ্জ নিয়ে ভালো কিছু করার লক্ষ্য সেট করতে হবে। আমি যদি চ্যালেঞ্জ না নেই, তাহলে ব্যাকফুটে চলে যাব। অতএব আমি চেষ্টা করব চ্যালেঞ্জ নিয়ে দলকে কিছু দেওয়ার জন্য।

সমকাল: সাকিবের সঙ্গে বিশেষজ্ঞ স্পিনার একা আপনিই। সেক্ষেত্রে দায়িত্বটা বেশি থাকবে কি?

মিরাজ: অবশ্যই। দায়িত্ব নিয়ে খেলতে আমি খুব পছন্দ করি। বিশেষ করে বিশ্বকাপ দলে আমি একা স্পিনার। এটা আমার জন্য চাপ না, অনুপ্রেরণা। আমার পাশাপাশি সাকিব ভাই আছেন, সৈকত ভাই, রিয়াদ ভাই আছেন। তারা কিন্তু দীর্ঘদিন খেলছেন। আমি যখন তাদের সঙ্গে খেলি তখন তারা নানা পরামর্শ দিয়ে সাহায্য করেন। পরিস্থিতি অনুযায়ী বোলিংটা কীভাবে করতে হবে তারা বলে দেন। আমি চাপ নিচ্ছি না। এটা আমরা জন্য অনুপ্রেরণা। আমার জন্য ভালো লাগা।

সমকাল: এই বিশ্বকাপে আপনার ফেভারিট কোন দল?

মিরাজ: ইংল্যান্ড সব সময় ভালো দল। ওদের ঘরের মাটিতে খেলা। সুযোগটা ওদের জন্য বেশি থাকবে। ওরা জানে সব কিছু। তারপরও দিনশেষে ক্রিকেট খেলা যে কেউ জিততে পারে নিজেদেরে দিনে। এখানে সব দলই ভালো। সেরা দল বলেই তারা বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পেয়েছে। কোনো দলকে ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। যারাই ভালো খেলবে তারাই জিতবে।

সমকাল: আপনিই বলেছেন বাংলাদেশ দল বেশ অভিজ্ঞ। প্রত্যাশাও বেশি। এই অভিজ্ঞতাই কি আপনাদের জন্য চাপ ?

মিরাজ: চাপ না। এটা আমাদের ভালো খেলতে সাহায্য করবে। একটা ভালো লাগার জায়গাও। অনেক অভিজ্ঞ ক্রিকেটার আছেন দলে। এখন আমাদের যেটা করতে হবে, সঠিক সময়ে পারফর্ম করতে হবে। ভালো খেলা, দল হিসেবে খেলে জিততে হবে। আমাদের যে খেলোয়াড় আছে, তারা সবাই বিশ্বমানের। বিশ্বকাপ জেতার মতো সামর্থ্য আমাদের আছে।

সমকাল: আগে টিভিতে বিশ্বকাপের খেলা দেখেছেন। এবার নিজে খেলবেন। আগে জয় উদযাপন করতে দেখেছেন, এবার করবেন?

মিরাজ: আগে টিভিতে খেলা দেখতাম। টিভিতে দেখে নিজের অনুভূতি প্রকাশ করতে পারিনি। হয়তো অনেক আনন্দ পেয়েছি। এবার সেটা দেখানোর সুযোগ এসেছে। ম্যাচ খেলব এবং জিততে পারলে অনেক আনন্দ হবে। প্রথম দিন থেকে ভালো খেলতে হবে। ভালো খেললে নিজের কাছে ভালো লাগবে। দেশ জিতলে আরও ভালো লাগবে।

সমকাল: বাংলাদেশ কি চ্যাম্পিয়ন হতে পারবে?

মিরাজ: চ্যাম্পিয়ন হওয়া ভাগ্যের ওপর। সবারই স্বপ্ন থাকে চ্যাম্পিয়ন হওয়া। আমরাও স্বপ্ন দেখি চ্যাম্পিয়ন হওয়ার। আর নিজের চাওয়া হলো দলকে জেতানো। ওইরকম পারফরম্যান্স দেখাতে পারলে আমার পাওয়া হবে। দেখা গেল আমি সর্বোচ্চ উইকেট পেলাম, কিন্তু দল জিতল না। তখন ভালো লাগবে না। কিন্তু এভারেজ পারফর্ম করেও যদি দল জেতে সেটাই ভালো লাগবে। দিনশেষে ওটাই বড় পাওয়া হয়ে যাবে। দলের প্রয়োজনে যতটুকু নিজেকে উজাড় করে দেওয়া যায় এটাই।

মন্তব্য


অন্যান্য