খেলা

পর্তুগালের নতুন 'রোনালদো' ফেলিক্স!

প্রকাশ : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

পর্তুগালের নতুন 'রোনালদো' ফেলিক্স!

ছবি: ফাইল

  অনলাইন ডেস্ক

মেসি-রোনালদোর যুগ তো শেষ হতে চলল। তাদের পরে বিশ্ব ফুটনল শাসন করবেন কারা? এই প্রশ্নে ১৮ থেকে ২০ বছরের বেশ কিছু তরুণের নাম উঠে আসবে। রিয়ালের ভিনিসিয়াস-ব্রাহিম দিয়াজ, পিএসজির এমবাপ্পে, ব্রাজিলে থাকা রদ্রিগোদের নাম উল্লেখযোগ্য। তাদের কাতারে যোগ হচ্ছে আরও এক নাম জুয়ান ফেলিক্স। পতুর্গালের ১৯ বছর বয়সী ফুটবল বিস্ময় তিনি। দেশটির নতুন রোনালদোও বটে। তার ক্লাবের সাবেক কর্মকর্তা রুই গোমেজের মতে, নতুন বিস্ময় বালক পেয়ে গেছে বেনফিকা।

কিন্তু ফেলিক্স আলোচনায় আসার মতো কি এমন করেছেন। খুব বেশি কিছু নয়; তরুণ নেইমার, রোনালদোরা যা করেছিলেন সেটা ছাড়িয়ে গেছেন। এমবাপ্পের  পাশে বসেছেন। আর মেসির পিছনে পিছনে ছুটছেন। বিশ্ব ফুটবলের নজরে আসরে আর কি লাগে! তার দুর্দান্ত ফুটবল শৈলী এরই মধ্যে নজর কেড়েছে রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা,  ম্যানইউ এবং পিএসজির। কিন্তু ফেলিক্সের পছন্দ অন্য ক্লাব!

জুয়ান ফেলিক্স তার ১৯ বছর বয়সের মধ্যে সিনিয়র ক্লাবে এক হাজার মিনিট খেলার কৃতিত্ব অর্জন করে ফেলেছেন। আর তার এই এক হাজার মিনিটে ক্লাবের হয়ে আটটি গোল করেছেন তিনি। গোলে সহায়তা দিয়েছেন তিনটি। লিসবন ডার্বিতে ৪৫ হাজার দর্শকের সামনে দারুণ গোল করে এই কীর্তি গড়েছেন তিনি।   নেইমার এই বয়সে তার সমান মিনিটে চার গোল এবং দুই সহায়তা দেন। রোনালদো তিন গোলের পাশাপাশি সহায়তা দেন এক গোলে। এমবাপ্পে একটু এগিয়ে। ফেলিক্সের সমান আট গোলের পাশাপাশি ছয় সহায়তা দেন এমবাপ্পে।  সবার থেকে এই পরিসংখ্যানে এগিয়ে মেসি। তার প্রথম এক হাজার মিনিটে ১৩ গোল এবং আটটি সহায়তা দেন তিনি।

শারীরিকভাবে খুব শক্ত-সামর্থ্য না হওয়ার কম বয়সে ফুটবল ক্লাব পোর্তোয় তিনি টিকতে পারেননি। তবে বেনফিকায় গিয়ে শক্তিশালী হয়ে ওঠেন। তার শৈশবের ফুটবল আইকন ছিলেন ব্রাজিলের কাকা। এখন নেইমারের খেলা দেখতে খুব পছন্দ করেন। তবে ফেলিক্স খেলতে চান দেশি তারকা রোনালদোর পাশে। একথা তিনি বলতে তিনি রাখঢাক রাখেননি।

তাকে দলে নিতে এরই মধ্যে রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা, পিএসজি এবং ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড খুব নিবিষ্টভাবে নজর রাখছে। তাদের কাতারে আছে ইতালির ক্লাব জুভেন্টাসও।  বেনফিকা তাকে ধরে রাখতে পারবে না এ হয়তো তাদের জানা। ধরে তারা রাখতে চাইও না। আর তাই ফেলিক্সের গায়ে সেটে দিয়েছে ১২০ মিলিয়ন ইউরোর মূল্য তালিকা।

তবে রোনালদোর পাশে খেলার স্বপ্নের কথা বলতে দ্বিধা নেই ফেলিক্সের, 'আমি রোনালদোর পাশে খেলতেই বেশি পছন্দ করবো। কারণ সোজা, তিনি বিশ্বের সেরা ফুটবলার। তিনি ফুটবলের একজন আইডল। বিশ্বের মানুষের কাছে আইডল। সবার কাছে তিনি উদাহরণ।  ভবিষ্যতে তার মতো হবার যে মনোকাঙ্খা। তার সঙ্গে অনুশীলন করার সুযোগ আমাকে সেখানে যেতে সহায়তা করবে।' 

মন্তব্য


অন্যান্য