খেলা

১৭ বছর পর বিদেশে টেস্ট জয় জিম্বাবুয়ের

প্রকাশ : ০৬ নভেম্বর ২০১৮ | আপডেট : ১৭ নভেম্বর ২০১৮

১৭ বছর পর বিদেশে টেস্ট জয় জিম্বাবুয়ের

ছবি: এএফপি

  অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয় পেয়েছে সফরকারী জিম্বাবুয়ে। চলতি বছর খেলা তাদের একমাত্র টেস্ট এটি। বছরের প্রথম টেস্ট খেলতে নেমেই জয় পেয়েছে তারা। এর আগে গেল বছরের নভেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে খেলেছিল মাসাকাদজারা। বাংলাদেশের বিপক্ষে এই জয়ে জিম্বাবুয়ে দীর্ঘ ১৭ বছর পরে বিদেশের মাটিতে টেস্ট জয়ের স্বাদ পেলে।

জিম্বাবুয়ের বিদেশের মাটিতে সর্বশেষ টেস্ট জয়টিও ছিল এই নভেম্বর মাসে। ২০০১ সালের নভেম্বরে জিতেছিল তারা। যেন-তেন জয় নয়। প্রতিপক্ষকে উড়িয়ে জিতেছিল জিম্বাবুয়ে। প্রথমে ব্যাট করে জিম্বাবুয়ে তুলেছিল ৫৪২ রান। প্রতিপক্ষকে প্রথম ইনিংসে ফেলেছিল ফলোঅনে। এরপর দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করে প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়েকে দিতে পারে মোটে ১১ রানের লিড। জিম্বাবুয়ে জয় পায় ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে। আর জিম্বাবুয়ের ওই জয়টি ছিল বাংলাদেশের বিপক্ষে।

বাংলাদেশ তখন টেস্ট ক্রিকেটের নতুন সদস্য। টেস্টের সাদা জার্সি পরা শুরু করেছে কেবল দুই বছর। ওদিকে জিম্বাবুয়ের নয় বছরের পথচলা। তাদের দলে আছেন হিথ স্ট্রিক, অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার, গ্রান্ড ফ্লাওয়াররা। তখন বাংলাদেশের মাটিতে টেস্ট খেলতে এসে ওই জয় পায় জিম্বাবুয়ে। ২০০১ সালের ওই জয়টাই বিদেশের মাটিতে সর্বশেষ টেস্ট জয় ছিল জিম্বাবুয়ের। এরআগে ভারতের মাটিতে ১৯৯৯ সালে একটি জয় আছে জিম্বাবুয়ের। এছাড়া ঘরের মাঠে বাংলাদেশ-পাকিস্তানকে হারিয়েছে তারা। এবার বিদেশের মাটিতে পেলো ভুলতে বসা টেস্ট জয়ের স্বাদ। 

২০০১ সালের ওই টেস্টটি ছিল দুই টেস্টের সিরিজ। প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ দল জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ড্র করে। কিন্তু খারাপ আবহাওয়ার সহায়তা না পেলে হার দেখছিল বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে নাঈমুর রহমানের দল ১০৭ রানে অলআউট হয়ে যায়। জবাবে জিম্বাবুয়ে প্রথম ইনিংসে করে ৪৩১ রান। দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশ ১২৫ রানে ৩ উইকেট হারায়। কিন্তু টেস্টটা শেষ পর্যন্ত ড্র ঘোষিত হয়। এরপর দ্বিতীয় টেস্টে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হারে বাংলাদেশ। ওই টেস্ট সিরিজে অভিষেক হয় মাশরাফি বিন মর্তুজার।

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

মাশরাফির চোখে হারের কারণ


আরও খবর

খেলা
মাশরাফির চোখে হারের কারণ

প্রকাশ : ১১ ডিসেম্বর ২০১৮

ছবি: ফাইল

  অনলাইন ডেস্ক

অসহায় আত্মসমর্পণ বাংলাদেশ করেনি। শেষ সময় পর্যন্ত লড়ে গেছে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। কিন্তু আশা জাগিয়েও হেরে গেছে ম্যাচটি। সিরিজে ফিরেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। প্রথম ম্যাচে জয়ের পর মাশরাফি বলেছিলেন, আমরা বেশ কিছু ভুল করেছি। কিন্তু ম্যাচ জেতায় তা নিয়ে কথা ওঠেনি। ক্যাচ মিসের কথাটা জোর দিয়ে বলেছিলেন অধিনায়ক। 

দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে মাশরাফি পরাজিত দলের অধিনায়ক। আর তাই হারের কারণ নিয়ে কথা উঠল। কথা বলতে হলো তাকে। বেশ কিছু ভুলের কথা বললেনও মাশরাফি। তার মধ্যে অবশ্যই আগের ম্যাচে ক্যাচ মিসের সমস্যাটা আছে।

বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, 'ম্যাচটা ফিফটি-ফিফটি ছিল। শেষ পর্যন্ত আমরা তাদের ওপর চাপ ধরে রাখতে পারেনি। মিডল অর্ডারে সেট হওয়ার পরে আমরা বেশ কিছু উইকেট হারিয়েছি। সাকিব-মাহমুদুল্লাহ আউট হয়ে গেছে। ক্যাচ মিস করার চড়া দাম দিতে হয়েছে আমাদের। ব্যাটিংটা প্রথম ২০-২৫ ওভার পর্যন্ত ঠিক ছিল। বোলিংয়েও শুরুটা ভালো হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত আমরা ভালোই লড়াই করেছি।'

বাংলাদেশের সামনে এখনও সিরিজ নিশ্চিত করার সুযোগ আছে। সেজন্য মাশরাফিদের জিততে হবে সিলেটের শেষ ম্যাচটি। ওই ম্যাচে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী বাংলাদেশ অধিনায়ক। এছাড়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে দারুণ এক ইনিংস খেলায় বাংলাদেশ অধিনায়ক কৃতিত্ব দিয়েছেন উইন্ডিজ ওপেনার শাই হোপকে।

মাশরাফি বলেন, 'আমাদের হাতে এখনও এক ম্যাচ আছে। আশা করছি আমরা ঘুরে দাঁড়াবো। দারুণ ইনিংস খেলায় হোপকে কৃতিত্ব দিতে হবে। তিনি শেষ পর্যন্ত তার দম ধরে রেখেছেন এবং দারুণভাবে ম্যাচ শেষ করে ফিরেছেন।' ম্যাচ শেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক রোভম্যান পাওয়েল বলেন, ম্যাচে আমরা শুরুটা ভালো না করলেও শেষে ব্যাটে-বলে খুব ভালো করেছি। আমাদের সামনে এখন সিরিজ জেতার সুযোগ।' 

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

চ্যাম্পিয়নস লিগে সমীকরণের রাত


আরও খবর

খেলা

ছবি: ফাইল

  অনলাইন ডেস্ক

ছয় মাস আগে কিয়েভে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনাল খেলেছিল লিভারপুল। রিয়াল মাদ্রিদের কাছে হেরে রানার্সআপ হয়েছিল ইয়ুর্গেন ক্লপের দল। অর্ধ বছর যেতে না যেতেই ইউরোপিয়ান ক্লাব প্রতিযোগিতার সবচেয়ে বড় আসরে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায়ের শঙ্কায় অল রেডরা। অ্যানফিল্ডে আজ বাঁচা-মরার লড়াইয়ে ন্যাপোলির মুখোমুখি হবে লিভারপুল।

গ্রুপ 'সি' থেকে ৯ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে থাকা ইতালিয়ান ক্লাবটি ড্র করলেই শেষ ষোলোতে চলে যাবে। তখন প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ে এবং রেড স্টার বেলগ্রেডের মধ্যকার অন্য ম্যাচের ফল যাই হোক না কেন মোহামেদ সালাহর দলের বিদায়ঘণ্টা বেজে যাবে। গ্রুপ 'বি' থেকে আগেই শেষ ষোলোতে ওঠা বার্সেলোনার বিপক্ষে ন্যু ক্যাম্পে খেলবে টটেনহাম হটস্পার। ঘরের মাঠে পিএসভিকে আতিথ্য দেবে ইন্টারমিলান। চ্যাম্পিয়ন্স লীগে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে এসেছে অঙ্ক মেলানোর অপেক্ষায় দলগুলো।

গ্রুপ 'সি'-তে খাদের কিনারায় ছিল নেইমার-এমবাপ্পের পিএসজি। কিন্তু সর্বশেষ ম্যাচে লিভারপুলকে হারিয়ে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় ফরাসি জায়ান্টরা। এখন ৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা পিএসজিই আছে গ্রুপের সবচেয়ে সেফ জোনে। কারণ আজকের ম্যাচে তারা খেলবে টেবিলের তলানিতে থাকা রেড স্টার বেলগ্রেডের বিপক্ষে।

এই গ্রুপে যত সমস্যায় এখন লিভারপুল। ৯ পয়েন্ট নিয়েও ন্যাপোলি স্বস্তিতে নেই। আজ লিভারপুল যদি ৩ গোলের ব্যবধানে জেতে এবং রেড স্টারের সঙ্গে যদি পিএসজি ড্র করে তাহলে গোল পার্থক্যে বিদায় নিতে হবে ন্যাপোলিকে। এর কম ব্যবধানে জিতলে লিভারপুল শেষ ষোলোতে উঠবে যদি বেলগ্রেডের কাছে হেরে যায় পিএসজি।

গ্রুপ 'বি'থেকে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে আগেই পরের রাউন্ডে উঠে গেছে বার্সেলোনা। এই গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় দল হিসেবে কারা বার্সার সঙ্গী হবে, তা জানা যাবে আজ। টটেনহাম ও ইন্টারমিলানের পয়েন্ট যেমন সমান ৭, তেমনি করে গোল পার্থক্যও সমান। ইন্টারমিলানের জন্য স্বস্তি হলো তারা শেষ ম্যাচটি খেলবে পিএসভির বিপক্ষে নিজ মাঠে। টটেনহামের দুশ্চিন্তা হলো তাদের প্রতিপক্ষ বার্সেলোনা। গত অক্টোবরে নিজেদের মাঠে কাতালানদের কাছে ৪-২ গোলে হেরেছিল হ্যারি কেনরা। এবার বার্সার মাঠে জিততে হবে তাদের।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

স্মিথের বিপিএল খেলা নিয়ে প্রশ্ন


আরও খবর

খেলা

ছবি: ফাইল

  অনলাইন ডেস্ক

বিপিএলের আগামী আসরে বড় বড় কিছু নাম যোগ হয়েছে। গেইল-নারইনরা তো আছেনই। প্রথমবারের মতো বিপিএলে নাম লিখিয়েছেন ডেভিড ওয়ার্নার, এবি ডি ভিলিয়ার্স, স্টিভেন স্মিথরা। কিন্তু এবার অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক স্মিথের খেলা নিয়ে অনিশ্চিয়তা তৈরি হয়েছে। বিপিএলে অংশগ্রহণকারী কিছু দল তার ব্যাপারে খুঁতখুঁতানি প্রকাশ করেছে।

বিপিএলের আগামী আসরের প্লেয়ার ড্রাফটে নাম ছিল না স্মিথের। নাম না থাকা কোন ক্রিকেটারকে দলে নেওয়া যাবে না বলে বিপিএলের বিধিতে বলা আছে। কিন্তু ড্রাফটের বাইরে থেকে তাকে দলে ভেড়ায় ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। তাদের দলে থাকা লংকান অলরাউন্ডার আসলে গুনারত্নের বদলে স্মিথকে দলে নেয় কুমিল্লা।

কিন্তু ড্রাফটের বাইরের খেলোয়াড় হওয়ায় অন্য দলগুলো এ নিয়ে অভিযোগ করেছে। প্রথমে রংপুর রাইডার্স বিষয়টি নিয়ে খুঁতখুঁতানি প্রকাশ করে। পরে অন্য দলগুলো এ নিয়ে অভিযোগ করে। তাই বিষয়টি নিয়ে সিদ্ধান্তর জন্য বিসিবি'র কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

বিপিএলের টেকনিক্যাল কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউসুফ মঙ্গলবার বলেন, 'আমরা বিষয়টি নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য এটি বিসিবি' কাছে হস্তান্তর করেছি। বিভিন্ন দল বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ করায় এটার সমাধান দেওয়া আমাদের জন্য কঠিন হয়ে গেছে। আর তাই আমরা বিসিবি'কে বিষয়টি দেখার জন্য বলেছি। আগামী বোর্ড মিটিংয়ে এ নিয়ে আলাপ হবে। অথবা বিষয়টি নিয়ে কুমিল্লাকে সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হবে।'

অস্ট্রেলিয়ান এই তারকা ব্যাটসম্যানের বিপিএলের মাঝখানে এসে যোগ দেওয়ার কথা ছিল। কুমিল্লা দলে থাকা শোয়েব মালিক দলের সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যোগ দিতে চলে যাবেন। সে সময় আসার কথা ছিল স্মিথের। বর্তমানে স্মিথ বল টেম্পারিংয়ের দায়ে এক বছরের নিষেধাজ্ঞায় আছেন। আগামী বছরের মার্চে তার নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার কথা।

সংশ্লিষ্ট খবর