রংপুর

নওগাঁয় সুহৃদের শীতবস্ত্র বিতরণ

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯ | আপডেট : ১০ জানুয়ারি ২০১৯

নওগাঁয় সুহৃদের শীতবস্ত্র বিতরণ

নওগাঁয় শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামৃন ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর তারেক মাহমুদ সজীব-সমকাল।

  নওগাঁ প্রতিনিধি

উত্তরাঞ্চলে বেড়েছে শীতের তীব্রতা। সেই সঙ্গে বইছে হিমেল বাতাস। বিশেষ করে বরেন্দ্র অঞ্চলের সমতল ভূমির পিছিয়ে পড়া নৃ-তাত্বিক গোষ্ঠীর মানুষেরা রয়েছেন চরম দুর্ভোগে। ভুক্তভোগীদের কষ্ট লাঘবে শীতের সকালে নওগাঁর বরেন্দ্র অঞ্চলে শীতবস্ত্র নিয়ে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে আল-খায়ের ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশ। 

বৃহস্পতিবার সকালে নওগাঁর কীর্ত্তিপুর হাইস্কুল মাঠে জেলার সদর উপজেলার বর্ষাইল, বক্তারপুর ও কীর্ত্তিপুর ইউনিয়নরে ৩শ' হতদরিদ্র আদিবাসী ও দুস্থ অসহায় শীর্তাতদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়। আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশের যৌথ উদ্যোগে শীতবস্ত্র হিসেবে একটি করে চাদর ও কম্বল তুলে দেওয়া হয় প্রত্যেক সুবিধাবঞ্চিতের হাতে।

শীতার্তদের হাতে শীতবস্ত্র তুলে দেন নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামৃন, আল-খায়ের ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর তারেক মাহমুদ সজীব, নওগাঁ ডিগ্রি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ও জেলা সুহৃদ সমাবেশ কমিটির প্রধান উপদেষ্টা প্রফেসর শরিফুল ইসলাম খান, সমকালের নওগাঁ প্রতিনিধি এম আর ইসলাম রতন, সমকাল সুহৃদ সমাবেশ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সেতু ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক আবদুল্লাহ আল রাফি সরোজ, কীর্ত্তিপুর ইউপি চেয়ারম্যান আতোয়ার রহমান ও কীর্ত্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জাহিদুল ইসলাম।

নওগাঁর তিনশ হতদরিদ্র আদিবাসী ও দুস্থ অসহায় শীর্তাতদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়-সমকাল

 এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন কীর্ত্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক আব্দুষ সামাদ, স্থানীয় সাংবাদিক সুলতানুল আলম মিলন, আল-খায়ের ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের প্রোগ্রাম অফিসার মনিকা নওশীন, ইস্তিয়াক হোসেন খান, মিডিয়া অফিসার মো. সেলিম, কীর্ত্তিপুর স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আসাদুজ্জামান আসাদ, সুহৃদ রাশিদ আনজুম তন্ময়, আশরাফুল ইসলাম, তালহা, নূর নবী, নাঈমুর রহমান, মাসুম, মিজান, নাজমুল, তামিম আহমেদ, ইউশা আরাফ খাঁন, শাফাত আজম, অলিন্দ কুমার সাহা, প্লাবন, মারুফ, নিলয়, সাজু ও মিশু।

নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দল্লাহ আল মামুন বলেন, শীতার্ত এসব মানুষ বিশেষ করে পিছিয়ে পড়া নৃ-তাত্বিক গোষ্ঠীর হত দরিদ্র মানুষের পাশে এসে দাঁড়ানোর মহতি উদ্যোগ নিয়েছে আল খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশ। যেসব কম্বল দেওয়া হচ্ছে সেগুলো ৪-৫ বছর পর্যন্ত ব্যবহার করার মতো। সরকারের পাশাপাশি অন্যান্য সংগঠন ও ব্যক্তিদেরও অসহায় মানুষের পাশে এসে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান তিনি।

আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের মানব সেবামূলক বিভিন্ন কার্যক্রমের কথা তুলে ধরে ফাউন্ডেশনের বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর তারেক মাহমুদ সজীব বলেন, বরেন্দ্র অঞ্চলের হতদরিদ্র অধিবাসী ও নৃ-তাত্বিক গোষ্ঠীর শীতার্ত মানুষদের পাশে দাঁড়াতে পেরে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করছি। ভবিষ্যতেও আমরা তাদের পাশে থাকবো।

সমকাল সুহৃদ সমাবেশের জেলা কমিটির প্রধান উপদেষ্টা প্রফেসর শরিফুল ইসলাম খাঁন বলেন বলেন, সব সময় সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে থাকে সুহৃদের বন্ধুরা। আল-খায়ের ফাউন্ডেশন এই মহতি উদ্যোগে পাশে থাকায় তাদেরকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

কীর্ত্তিপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. আতোয়ার রহমান আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আজকে তারা যে কাজ করছে তা নিঃসন্দেহে একটি মহতি উদ্যোগ। তাদের মত সমাজের ধনাঢ্য ব্যক্তি ও অন্যান্য সংগঠনগুলো সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলে শুধু শীত নয় যেকোনো দুর্ভোগ লাঘব সম্ভব। 

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত


আরও খবর

রংপুর

  ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

ঠাকুরগাঁওয়ের ধর্মগড় সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে জাহাঙ্গীর আলম রাজু (২১) নামে এক বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। 

শুক্রবার ভোরে এ ঘটনা ঘটে। নিহত রাজু (২১) জেলার রাণীশংকৈল উপজেলার শাহানাবাদ গ্রামের বাদশা মিয়ার ছেলে। তিনি একজন গরু ব্যবসায়ী। 

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) জানায়, ভোর ৪টার দিকে রাজুসহ কয়েকজন ধর্মগড় সীমান্তের ৩৭২ পিলার সংলগ্ন এলাকা দিয়ে অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ করেন। বিষয়টি বুঝতে পেয়ে ভারতের উত্তর দিনাজপুর জেলার শ্রীপুর বিএসএফ ক্যাম্পের সদস্যরা তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়লে ঘটনাস্থলেই রাজু নিহত হন। এ সময় তার সঙ্গীরা পালিয়ে আসতে সক্ষম হন। 

এ বিষয়ে বিজিবির ঠাকুরগাঁও-৫০ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তুহিন মোহা. মাসুদ জানান, সংবাদটি পেয়েছি। এ ব্যাপারে বিএসএফের সঙ্গে যোগাযোগ করে মরদেহ ফেরত আনার চেষ্টা চলছে।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

ঠাকুরগাঁও সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত


আরও খবর

রংপুর

  ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈল উপজেলার ধর্মগড় সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে এক বাংলাদেশি নিহত হয়েছে। তার নাম জাহাঙ্গীর আলম রাজু (২১)। তিনি রাণীশংকৈল উপজেলার শাহানাবাদ গ্রামের বাদশা মিয়ার ছেলে।

এলাকাবাসী জানান, শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে জাহাঙ্গীর আলম রাজুসহ কয়েকজন গরু ব্যবসায়ী ধর্মগড় সীমান্তের ৩৭৪/২ নম্বর সীমান্ত পিলারের পাশ দিয়ে ভারতে প্রবেশ করে। এ সময় ভারতের উত্তর দিনাজপুর জেলার শ্রীপুর বিএসএফ ক্যাম্পের টহল দল তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এতে গুলিবিদ্ধি হয়ে ঘটনাস্থলেই রাজুর মৃত্যু হয়। বাকিরা পালিয়ে আসে।

বিজিবির ঠাকুরগাঁও ৫০ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল তুহিন মোহা. মাসুদ বলেন, সংবাদটি পেয়েছি। বিএসএফের সাথে যোগাযোগ করে লাশ আনার চেষ্টা চলছে।


সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

বাসচাপায় প্রাণ গেল তিন ভাই-বোনের


আরও খবর

রংপুর

  রংপুর অফিস

রংপুরে বাসের ধাক্কায় প্রাণ গেল মোটরসাইকেল আরোহী তিন ভাই-বোনের। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের পীরগঞ্জ উপজেলার বিশ মাইল নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উপজেলার শানেরহাট ইউনিয়নের হরিরাম সাহাপুর গ্রামের মোজাম্মেল মুন্সীর ছেলে শাহীনুর রহমান (২৫), আজগার আলীর ছেলে মশফিকুর রহমান (১৮) ও আব্দুল কাইয়ুমের মেয়ে রুমী বেগম (২৩)। নিহতরা সম্পর্কে মামাতো-ফুফাতো ভাইবোন।

বড়দরগাহ হাইওয়ে পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, তারা তিনজন একই মোটরসাইকেলে শঠিবাড়ী হাটে যাচ্ছিল। পথে বিশমাইল এলাকায় এলে রংপুর থেকে ঢাকাগামী হানিফ এন্টারপ্রাইজের একটি বাস মোটরসাইকেলটিকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই তিন ভাই-বোনের মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে বড় দরগা হাইওয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ফাঁড়িতে নিয়ে যায়।

দুর্ঘটনার খবরে উত্তেজিত এলাকাবাসী সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। ওই সময় শত শত যানবাহন মহাসড়কে আটকা পড়ে। প্রায় ১ ঘণ্টা সড়ক অবরোধের পর প্রশাসনের হস্তক্ষেপে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার টিএমএ মমিন বলেন, এ ঘটনায় পুলিশ ঘাতক বাসটি আটক করেছে। তবে চালক ও তার সহযোগী পালিয়ে গেছে। স্থানীয়রা অবরোধ প্রত্যাহার করে নেওয়ায় যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট খবর