রাজশাহী

আমরা ফাঁকা মাঠে জিততে চাই না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশ : ০৮ নভেম্বর ২০১৮ | আপডেট : ০৮ নভেম্বর ২০১৮

আমরা ফাঁকা মাঠে জিততে চাই না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বগুড়ায় সরকারি মালিকানাধীন অ্যাসেনসিয়াল ড্রাগস কোম্পানি লিমিটেডের (ইডিসিএল) সেফালোস্পোরিন ইউনিটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম -সমকাল

  বগুড়া ব্যুরো

নির্বাচনকে ভয় না পেয়ে বরং তাতে অংশগ্রহণের জন্য বিএনপি নেতৃবৃন্দকে আহবান জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। 

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, নির্বাচনের ঘণ্টা বেজে গেছে। আপনারা ভয় পান কেন? জনগণকে বিশ্বাস করুন। রায় দেওয়ার মালিক তারা। নির্বাচনের কোন বিকল্প নেই। 

এ সময় আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামী লীগের প্রস্তুতির কথা বলতে গিয়ে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, আমরা ফাঁকা মাঠে জিততে চাই না। প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেই জিততে চাই। সারা বাংলাদেশে উন্নয়ন হয়েছে। জঙ্গি দমন হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশবাসীকে দেওয়া সব প্রতিশ্রুতিই বাস্তবায়ন করেছেন। প্রমাণ হয়েছে শেখ হাসিনার কোন বিকল্প নেই।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বগুড়ায় সরকারি মালিকানাধীন অ্যাসেনসিয়াল ড্রাগস কোম্পানি লিমিটেডের (ইডিসিএল) সেফালোস্পোরিন ইউনিটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মোহাম্মদ নাসিম এসব কথা বলেন। 

পরে সন্ধ্যায় তিনি জেলার নন্দীগ্রামে উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক জনসভায় বক্তৃতা করেন। নন্দীগ্রাম মনসুর হোসেন ডিগ্রী কলেজ মাঠে আয়োজিত জনসভায় তিনি নৌকা মার্কার পক্ষে কাজ করার জন্য নেতা-কর্মীদের প্রতি আহবান জানান। 

নন্দীগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মমতাজ উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান মজনু ও নন্দীগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন রানা বক্তৃতা করেন।

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামের অন্যতম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ২০১৪ সালের পাঁচ জানুয়ারি নির্বাচনে অংশ না নিয়ে বিএনপি নিজেদের ক্ষতি করেছে। তারা নির্বাচন ঠেকানোর কথা বলেছিল, কিন্তু পারেনি। সরকার ঠিকই তার মেয়াদ পার করেছে। কি লাভ হলো? বরং নির্বাচনে অংশ না নিয়ে বিএনপি সব সিট (আসন) হারিয়েছে। এমনকি যে বগুড়া তাদের ঘাঁটি ছিল সেটিও হারিয়েছে। দয়া করে নির্বাচন থেকে পালাবেন না। পালিয়ে গেলে বাটি চালান দিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবে না।

ইতিপূর্বে জাতীয় নির্বাচনে অংশ না নেওয়ায় বিএনপি সাংগঠনিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়েছে উল্লেখ করে মোহাম্মদ নাসিম ওই দলের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, নেত্রী জেলে আছেন। কিন্তু আপনারা কোন আন্দোলন করতে পারেন না। একটি বড় মিছিলও করতে পারেন না। আপনাদের জন্য দুঃখ হয়, আপনারা মাঠে কোন কর্মীও খুঁজে পান না। আকাশে মেঘ দেখলেই পালিয়ে যান। অথচ বিরোধী দলে থাকার সময় আমরা বার বার জেলে গেছি। মার খেয়েছি কিন্তু মাঠ ছাড়িনি।

মোহাম্মদ নাসিম ১৯৭০ সালে সামরিক আইনের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর নির্বাচনের অংশগ্রহণের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, তখন মার্শাল ল ছিল। মাওলানা ভাসানী নির্বাচনে অংশ নিতে চাননি। কিন্তু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ অংশ নিয়েছিল। আর ওই নির্বাচনে অংশগ্রহণের কারণেই আওয়ামী লীগ বিজয়ী হয় এবং বাংলাদেশ স্বাধীন হয়।

সদ্য সমাপ্ত সংলাপ প্রসঙ্গে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথম কোন সরকার প্রধান সংলাপ ডেকেছেন এবং তাতে নেতৃত্ব দিয়েছেন। ১৫ দিন ধরে সংলাপ চলেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাউকে হতাশ করেননি, ছোট-বড় সব দলকে ডেকেছেন। তাদের কথা শুনেছেন।

সংলাপে ঐক্যফ্রন্টের উত্থাপিত ৭ দফার বিষয়ে তিনি বলেন, আপনারা যে সাত দফা উত্থাপন করেছেন তার পক্ষে জনগণের কাছে রায় চান। তারা রায় দিলে তা বাস্তবায়ন করুন। প্রয়োজনে ১০০ দফা বাস্তবায়ন করুন। আমাদের কোন আপত্তি থাকবে না।

বগুড়ায় অ্যাসেনসিয়াল ড্রাগস কোম্পানি লিমিটেডের (ইডিসিএল) সেফালোস্পোরিন ইউনিটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যানের মধ্যে বগুড়া-১ আসনের সাংসদ আব্দুল মান্নান, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বাবলু সাহা, ইডিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. এহসানুল কবির জগলুল, বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মমতাজ উদ্দিন এবং ইডিসিএলের বগুড়া প্লান্টের ডিজিএম এস এম আহসান বক্তৃতা করেন।

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

টাকার কাছে হেরে যাবেন সারোয়ার?


আরও খবর

রাজশাহী

  রাবি প্রতিনিধি

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী গোলাম সারোয়ারের দুটি কিডনিই অকেজো। তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ২১ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন। তার চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন ১২ লাখ টাকা। কিন্তু তার পরিবারের পক্ষে বিপুল এই অর্থের সংস্থান করা অসম্ভব। সারোয়ারের বাড়ি নওগাঁ জেলার বদলগাছী উপজেলায়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সারোয়ারের ছোটবেলায় তার বাবা মারা যান। অভাবের সংসারে নানা প্রতিকূলতার সঙ্গে লড়াই করে ভর্তি হন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে। তিন বছর আগে তার কিডনিজনিত (সিকেডি) রোগ ধরা পড়ে। কিছুদিন চিকিৎসা নিলেও অর্থাভাবে মাঝপথে দুই বছরের অধিক সময় তিনি নিয়মিত চিকিৎসা নেননি। বর্তমানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। ক্রিয়েটিনিনের মাত্রা ৬ দশমিক ৭ পরিমাণ বেড়ে গিয়ে তার কিডনি কাজ করছে না। এমন অবস্থায় তার সুস্থ হয়ে ওঠার জন্য প্রয়োজন ডায়ালাইসিস অথবা কিডনি প্রতিস্থাপন।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ডায়ালাইসিস করলে যতদিন বাঁচবেন নিয়মিত এটি করতে হবে। ডায়ালাইসিস করলে তিনি কোনো কাজ করতে পারবেন না। এ জন্য কিডনি প্রতিস্থাপনকেই গুরুত্ব দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। সুস্থ জীবনে ফিরতে সমাজের হৃদয়বানদের সহযোগিতা কামনা করেছে সারোয়ারের পরিবার। তাকে সাহায্য পাঠানো যাবে- বিকাশ নম্বর-০১৯৩০৯১৯২৬৭ (ব্যক্তিগত)।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

নওগাঁয় শিক্ষার্থীদের মাঝে পেন্সিল ও ক্লাস রুটিন বিরতণ


আরও খবর

রাজশাহী

  নওগাঁ প্রতিনিধি

নওগাঁয় শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের উদ্যোগে শিক্ষার্থীদের মাঝে ৫০০ পেন্সিল ও ৫০০ ক্লাস রুটিন বিরতণ করা হয়েছে।

রোববার বেলা ১১টার দিকে খাঁস-নওগাঁ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও পশ্চিম নওগাঁ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এসব দ্রব্য বিতরণ করেন, শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদ নওগাঁ শাখার আহ্বায়ক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিভাষ মজুমদার গোপাল।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের যুগ্ম আহ্বয়াক রোকনু দ্দোলা (রোকন), আব্দুল হাই সিদ্দিকী সিটু, যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ জামান, প্রধান শিক্ষক মেসবাউল হক, আলমগীর হোসেন, কামরুল হাসান চৌধূরী, জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আমানুজ্জামান শিউল, নূরে আলম বাবু, রশিদুল আলম, প্রশান্ত মন্ডল জনি প্রমূখ।

এসময় প্রধান অতিথি জাতির পিতার ৯৯তম জন্মবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে এ দিনের তাৎপর্য তুলে ধরেন।


সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

ভোটকেন্দ্রে না যেতে মাইকিং করছিলেন তারা


আরও খবর

রাজশাহী

আটক ৩ যুবক -সমকাল

  বগুড়া ব্যুরো

উপজেলা নির্বাচনের দিন ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের না যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে মাইকিংয়ের দায়ে বগুড়ার শাজাহানপুরে সিএনজি অটোরিকশার চালকসহ ৩ যুবকের প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা  জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। 

শনিবার রাতে এই ঘটনা ঘটে। শাজাহানপুর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) কানিজ ফাতেমা লিজা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।

জরিমানাপ্রাপ্তরা হলেন- শাজাহানপুর উপজেলার জোড়া নাজমুল উলম মাদ্রাসার আলিম দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র হুজাইফা (২১), খরনা ইউনিয়নের দাড়িগাছা গ্রামের ফজলুর রহমানের ছেলে পলাশ (২৮) ও সিএনজি অটোরিকশা চালক বামনিয়া গ্রামের মজিবর রহমানের ছেলে রাসেল (২১)। 

পুলিশ জানায়, হুজাইফা ও পলাশ নামে দুই যুবক শনিবার রাতে রাসেলের সিএনজি চালিত একটি অটোরিকশায় মাইক লাগিয়ে তাতে নির্বাচনের দিন ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে না যাওয়ার অনুরোধ সম্বলিত রেকর্ড করা বক্তব্য প্রচার করছিলে। রাত সাড়ে ৮টার দিকে শাজাহানপুর উপজেলা পরিষদের সামনে বগুড়া-ঢাকা মহাসড়কে এ ধরনের মাইকিং স্থানীয় প্রশাসনের নজরে আসে। এরপর তাদের আটক করা হয়। তাদের কাছ থেকে প্রচারের সরঞ্জামাদি জব্দ করা হয়েছে। পরে রাত ৯টার দিকে তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় আদালত উপজেলা পরিষদ নির্বাচন আচরণ বিধির ১৮ নম্বর ধারায় ওই তিন যুবকের ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে ৭দিন করে কারাদণ্ডের নির্দেশ দেন। 

শাজাহানপুর থানার ওসি জিয়া লতিফুল ইসলাম জানান, রায় ঘোষণার পর দণ্ডিতরা জরিমানা দিয়ে কারাবাস থেকে রেহায় পান। 

তারা কোন রাজনৈতিক দলের সদস্য কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে ওসি বলেন, ‘না, এটা তারা স্বীকার করে না।’

সংশ্লিষ্ট খবর