প্রবাস

লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাব নির্বাচন: উৎসবের আমেজে মনোনয়নপত্র দাখিল

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯

লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাব নির্বাচন: উৎসবের আমেজে মনোনয়নপত্র দাখিল

  লন্ডন প্রতিনিধি

আগামী ২৭ জানুয়ারি ব্রিটেনের বাংলা মিডিয়া সাংবাদিকদের প্রতিনিধিত্বশীল সংগঠন লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাবের নির্বাচন। এ উপলক্ষে নির্বাচনের মনোনয়নপত্র দাখিলের দিন ৯ জানুয়ারি বুধবার পূর্ব লন্ডনের প্রিন্সলেট স্ট্রিটের প্রেস ক্লাব কার্যালয়ে ছিল উপচে পড়া ভীড়। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই প্যানেল সদস্য ও তাদের সমর্থক ক্লাব সদস্যদের পদচারণায় বুধবার সন্ধ্যা প্রেস ক্লাব কার্যালয় ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকা ছিল উৎসবমুখর।

মনোনয়নপত্র জমা দানের স্থানীয় শেষ সময় ছিল রাত ৮টা। নির্ধারিত সময়ের আগেই প্রতিদ্বন্ধী দুটো প্যানেল তাদের সমর্থকদের নিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার আজিজ চৌধুরী ও তার সহযোগী অন্য দুই কমিশনারের কাছে তাদের মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। ক্লাবের বর্তমান সভাপতি, সাপ্তাহিক জনমত’র প্রধান সম্পাদক ও কমনওয়েলথ জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সহসভাপতি সৈয়দ নাহাস পাশার নেতৃত্বাধীন একটি ও সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদক গত নির্বাচনে সভাপতি পদে পরাজিত ইমদাদুল হক চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন অপর একটি প্যানেল এবারের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা জন্য মনোনয়ন দাখিল করেন। দুই প্যানেলে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সৈয়দ নাহাস পাশা ও ইমদাদুল হক চৌধুরী।

সেক্রেটারি পদে ইমদাদুল হক চৌধুরীর প্যানেলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ক্লাবের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জোবায়ের। তার প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে সেক্রেটারি পদে রয়েছেন আনিসুর রহমান আনিস। সৈয়দ নাহাস পাশার প্যানেলে সহসভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন প্রবীন সাংবাদিক মুহাম্মদ আব্দুস সাত্তার। তার বিপরীতে ইমদাদুল হক চৌধুরীর প্যানেলে রয়েছেন ব্যারিস্টার তারেক চৌধুরী। নাহাস পাশার প্যানেলে ট্রেজারার পদে আবারও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ক্লাবের বর্তমান ট্রেজারার আবু সালেহ মোহাম্মদ মাসুম। তার প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে ইমদাদুল হক চৌধুরীর প্যানেলে রয়েছেন আব্দুল কাদির মুরাদ। ১৫ সদস্য বিশিষ্ট নির্বাহী কমিটির প্রতিটি পদের জন্য দুজন করে ক্লাব সদস্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

দুই প্যানেলের সভাপতি প্রার্থীই উৎসবমুখর পরিবেশে মনোনয়নপত্র দাখিল করতে পেরে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। মনোনয়নপত্র দাখিল পরবর্তী প্রতিক্রিয়ায় তারা বলেন, নির্বাচনকে ঘিরে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের এই সম্মিলিত উৎসবের আমেজই আমাদের ক্লাবের বিউটি।

নির্বাচনকালীনই শুধু আমরা প্রতিদ্বন্দ্বী, এরপর পুরো দুবছর ক্লাবের স্বার্থে আমরা একে অপরের সহযোদ্ধা— এমন মন্তব্য করেন দুই সভাপতি পদপ্রার্থী সৈয়দ নাহাস পাশা ও ইমদাদুল হক চৌধুরী।

উল্লেখ্য, এবারই প্রথম ক্লাবের নিজস্ব কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র দাখিলসহ নির্বাচন প্রক্রিয়ার কাজ চলছে। এটি সৈয়দ নাহাস পাশার নেতৃত্বাধীন বর্তমান কমিটির একটি বিশাল সফলতা বলেই মনে করছেন ক্লাব সদস্যরা। মনোনয়নপত্র দাখিলের মাধ্যমে যে উৎসব আমেজের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে ক্লাব সদস্যদের মধ্যে এটি নির্বাচন ও নির্বাচন পরবর্তী সময়েও অব্যাহত থাকবে এমনটিই আশা করছেন তারা।

মন্তব্য


অন্যান্য