প্রবাস

হার মানল ব্রিটিশ হোম অফিস

মানবিকতার জয়

প্রকাশ : ২১ ডিসেম্বর ২০১৮ | প্রিন্ট সংস্করণ

মানবিকতার জয়

  সৈয়দ আনাস পাশা, লন্ডন

অবশেষে মানবিকতার কাছে হার মানতে বাধ্য হলো ব্রিটিশ হোম অফিস। লন্ডনে মৃত্যুশয্যায় শায়িত স্ত্রী জমিলুন নেসার বাংলাদেশে বসবাসরত স্বামী সৈয়দ হাবিবুর রহমানকে শেষ পর্যন্ত ডেকে নিয়ে লন্ডনের ভিসা দিয়েছে ব্রিটিশ হাইকমিশন। ব্রিটেনের মিডলসবারা জেইমস কুক ইউনিভার্সিটি হাসপাতালে মৃত্যুশয্যায় শায়িত জমিলুন নেসা শেষবারের মতো স্বামীকে দেখার ইচ্ছে প্রকাশ করলে স্বামী সৈয়দ হাবিবুর রহমান ব্রিটিশ ভিসার জন্য আবেদন করেন। কিন্তু ডাক্তারের সুপারিশ থাকার পরও ব্রিটেনে এলে তিনি আর ফেরত যাবেন না- এমন ধারণার কথা জানিয়ে হাবিবুর রহমানের ভিসা আবেদন প্রত্যাখ্যান করে হোম অফিস। ভিসা প্রত্যাখ্যানের কারণ হিসেবে আরও বলা হয়, হাবিবুর রহমান তার অ্যাকাউন্টে যে পরিমাণ অর্থ দেখিয়েছেন, ব্রিটেন সফরের সময় তা তার ব্যয় মেটাতে যথেষ্ট নয়। ভিসা আবেদন প্রত্যাখ্যান চিঠিতে হাবিবুর রহমানকে জানিয়ে দেওয়া হয়, এই আবেদনের আর কোনো আপিলের সুযোগও নেই। একজন মৃত্যুপথযাত্রী নারীর স্বামীকে শেষ দেখার এমন আকুতি হোম অফিস প্রত্যাখ্যান করায় বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমসহ সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার ঝড় ওঠে। জমিলুন নেসার বসবাসস্থল হার্টলিপুলের স্থানীয় প্রাচীন সংবাদপত্র 'হার্টলিপুল মেইল' বিষয়টি সংবাদ শিরোনাম করে ফলাও করে প্রচার করে। ওই সংবাদে হার্টলিপুলের স্থানীয় ব্যবসায়ী জমিলুন নেসার বড় ছেলে বাংলা গানের জনপ্রিয় গীতিকার সৈয়দ দুলাল তার প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, 'আমার বাবা তার মৃত্যুপথযাত্রী স্ত্রীকে দেখুক, হোম অফিস তা চায় না।' 'হার্টলিপুল মেইল' ছাড়াও অনলাইন সংবাদমাধ্যম সত্যবাণী, বাংলাদেশের শীর্ষ জাতীয় দৈনিক সমকালসহ বিভিন্ন বাংলা সংবাদমাধ্যমেও এ বিষয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

বিষয়টি নিয়ে সংবাদমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ার সমালোচনার ঝড় হার্টলিপুলের স্থানীয় এমপির দৃষ্টিগোচর হলে বিষয়টি বিবেচনার জন্য তিনি সুপারিশ করেন হোম অফিসের কাছে। হোম অফিসের সঙ্গে যোগাযোগ করেন 'হার্টলিপুল মেইলে'র সম্পাদকও। অবশেষে টনক নড়ে হোম অফিসের।

এদিকে, বাবা সৈয়দ হাবিবুর রহমানের ভিসাপ্রাপ্তির খবরে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন জমিলুন নেসার ছেলে সৈয়দ দুলাল। ব্রিটেন যে একটি মানবিক রাষ্ট্র, বিলম্বে হলেও ভিসা দেওয়ার হোম অফিসের এ সিদ্ধান্ত সেটিই প্রমাণ করল। তিনি বলেন, 'স্বামীর ভিসাপ্রাপ্তির খবরে আমার অসুস্থ মা খুব খুশি। খুশি আমরাও।' তিনি জানান, আগামী সপ্তাহেই তার বাবা সৈয়দ হাবিবুর রহমান ব্রিটেন এসে পৌঁছবেন।

মন্তব্য


অন্যান্য