প্রবাস

লন্ডনে সাপ্তাহিক 'পত্রিকা'র ২১ বছর পূর্তি উদযাপন

প্রকাশ : ১৫ অক্টোবর ২০১৮

লন্ডনে সাপ্তাহিক 'পত্রিকা'র ২১ বছর পূর্তি উদযাপন

  সৈয়দ আনাস পাশা, লন্ডন

লন্ডন থেকে প্রকাশিত বাংলা ভাষার পত্রিকা সাপ্তাহিক 'পত্রিকা' একুশ বছর পেরিয়ে বাইশে পা দিল এ বছর। এ উপলক্ষে রোববার লন্ডনের রমফোডের মে ফেয়ার ইভেন্টস ভেন্যুতে জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ব্রিটেনের কনজারভেটিভ পার্টির এমপি রবার্ট জেমস বাকলেন্ড কিউসি। বিশেষ অতিথি ছিলেন ব্রিটিশ পার্লামেন্টের প্রথম বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এমপি রুশনারা আলী, হাউস অব লর্ডসের একমাত্র বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত সদস্য ব্যারোনেস পলা মনজিলা উদ্দিন, কেয়ম্যান আইল্যান্ডের সাবেক গভর্নর আনোয়ার চৌধুরী, ব্রিটেনের লেস্টার সিটি ক্লাবের ফুটবলার বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত হামজা দেওয়ান চৌধুরী, 'পত্রিকা'র প্রতিষ্ঠাতা ও চ্যানেল 'এস' এর চেয়ারম্যান আহমেদ উস সামাদ চৌধুরী, ব্যবসায়ী ইকবাল আহমেদ ওবিই, লন্ডন-বাংলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি সৈয়দ নাহাস পাশা, বিবিসি বাংলা ও প্রথম আলো পত্রিকার সাংবাদিক কামাল আহমেদ এবং বাংলা প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মহিব চৌধুরী।

বিশিষ্ট টিভি উপস্থাপক ফারহান মাসুদ খানের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন 'পত্রিকা'র সম্পাদক ইমদাদুল হক চৌধুরী। সমাপনী বক্তব্য দেন প্রধান সম্পাদক মোহাম্মদ বেলাল আহমেদ।

এমপি রবার্ট জেমস বাকল্যান্ড কিউসি ব্রিটেনে বাংলা সংবাদপত্রের একশ' বছরেরও বেশি সময়ের ইতিহাস রয়েছে জানতে পেরে বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, একটি এথনিক কমিউনিটি যখন নিজেদের ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি সঙ্গে নিয়ে মূলধারায় অবস্থান নেয়, তখন সেটি শুধু তাদের নয়, মূলধারাকেই সমৃদ্ধ করে। এই ভিন্ন ভিন্ন সংস্কৃতির সংমিশ্রণেই গড়ে উঠেছে আমাদের মাল্টিকালচারাল সোসাইটি।

ব্রিটেনের বাংলা সংবাদপত্রের সঙ্গে পূর্বপ্রজন্মের সম্পর্কের কথা স্মরণ করে রুশনারা আলী বলেন, বাংলা সংবাদপত্রের সঙ্গে রয়েছে আমাদের পিতৃপ্রজন্মের আবেগী সম্পর্ক। এতে আমরা আমাদের বাবাদের স্পর্শ পাই।

অনুষ্ঠানে অন্য বক্তারা ডিজিটাল আগ্রাসনের এই যুগে প্রিন্ট মিডিয়া রক্ষায় নতুন কৌশল উদ্ভাবনের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন। তারা বলেন, ব্রিটেনের বাংলা পত্রিকা কমিউনিটিকে অনেক দিয়েছে, এখন কমিউনিটির উচিত আজকের এই ডিজিটাল আগ্রাসন মোকাবেলায় প্রিন্ট মিডিয়ার পাশে দাঁড়ানো।

মন্তব্য


অন্যান্য