বন্দর নগরী

পুলিশের ধাওয়ায় ভবন থেকে পড়ে ছাত্রদলকর্মীর মৃত্যুর অভিযোগ

প্রকাশ : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮

পুলিশের ধাওয়ায় ভবন থেকে পড়ে ছাত্রদলকর্মীর মৃত্যুর অভিযোগ

প্রতীকী ছবি

   চট্টগ্রাম ব্যুরো

চট্টগ্রামে পুলিশের ধাওয়া খেয়ে চারতলা ভবন থেকে পড়ে ছাত্রদলকর্মীর মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার গভীর রাতে নগরের ইপিজেড থানার মাইলের মাথা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত ছাত্রদলকর্মী মো. রাসেল ব্যারিস্টার সুলতান আহমেদ চৌধুরী ডিগ্রি কলেজ এলাকার মো. শফির ছেলে।

স্থানীয় বিএনপি নেতারা জানিয়েছেন, ব্যারিস্টার সুলতান আহমেদ চৌধুরী ডিগ্রি কলেজ শাখা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন রাসেল। তিনি চট্টগ্রাম-১১ (বন্দর-পতেঙ্গা) আসনে বিএনপির প্রার্থী আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় সক্রিয় ছিলেন।

রাসেলের বাবা মো. শফি সমকালকে বলেন, 'রাতে পুলিশের ভয়ে বাসায় থাকতে পারতেন না রাসেল। শনিবার রাতে নগরীর মুরাদ ভবনে ছিল। ওই সময় কেউ একজন পুলিশ আসছে বললে ভয়ে সে চারতলা ভবন থেকে লাফ দেয়। তার বন্ধুরা তাকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসে।'

আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর ব্যক্তিগত সহকারী মো. সেলিম বলেন, 'পুলিশের হয়রানির কারণে বন্দর-ইপিজেড এলাকার বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা নিজ বাসা-বাড়িতে থাকতে পারছে না। রাসেলও শনিবার রাতে মুরাদ ভবনে আশ্রয় নিয়েছিল। রাতে সাদা পোশাকে পুলিশের ধাওয়ায় চারতলা ভবন থেকে পড়ে মৃত্যু হয়েছে ছাত্রদল কর্মী রাসেলের।'

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির নায়েক মো. আমীর সমকালকে বলেন, 'রাত ২টার দিকে চারতলা ভবন থেকে পড়ে আহত এক যুবককে তার স্বজনরা নিয়ে আসেন। তাকে হাসপাতালের ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। ভোর চারটার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।'

ইপিজেড থানার ওসি নুরুল হুদা সমকালকে বলেন, ‘রাতে ইপিজেড থানা পুলিশের কোনো অভিযান ছিল না। আমরা হাসপাতাল থেকে খবর পেয়েছি ইপিজেড এলাকার এক যুবক চারতলা ভবন থেকে পড়ে মারা গেছে। এরপর পুলিশ পাঠানো হয়েছে। কিভাবে মৃত্যু হয়েছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। যে ভবন থেকে পড়ে মারা গেছে বলা হচ্ছে ভবনটি পরিত্যক্ত। এটি একসময় পোশাক কারখানা ছিল। এখন এলাকার বখাটে ছেলেরা সেখানে আড্ডা দেয়।’

মন্তব্য


অন্যান্য