রাজনীতি

ছাত্রদলের সভাপতি-সম্পাদকের আচরণ নিয়ে ক্ষোভ

প্রকাশ : ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ছাত্রদলের সভাপতি-সম্পাদকের আচরণ নিয়ে ক্ষোভ

ফজলুর রহমান খোকন (বাঁয়ে) ও ইকবাল হোসেন শ্যামল

  সমকাল প্রতিবেদক

ছাত্রদলের নবনির্বাচিত সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামলের আচরণে ক্ষুব্ধ হয়েছেন সংগঠনটির নেতা-কর্মীসহ বিএনপি নেতারা।

শনিবার সকাল সাড়ে দশটায় রাজধানীর চন্দ্রিমা উদ্যানে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদনের কথা খাকলেও সেখানে তারা প্রায় আধাঘন্টা দেরিতে যান।

নির্দিষ্ট সময়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের সিনিয়র নেতারা দলের প্রতিষ্ঠাাতার সমাধিতে গেলেও ছাত্রদল সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক যেতে পারেননি। এ সময় বিএনপি নেতাদের দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করতে দেখা যায়।

১১টার দিকে ছাত্রদল সভাপতি সাধারণ সম্পাদক উপস্থিত হওয়ার পর কর্মসূচি শুরু করেন বিএনপির সিনিয়র নেতারা। সিনিয়র নেতাদের অপেক্ষায় রাখায় ছাত্রদলের নবনির্বাচিত দুই নেতার ওপর অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

এছাড়া অভিযোগ রয়েছে, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় দুই নেতা নির্বাচিত হওয়ার পর সৌজন্যবশত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচন করা অন্যান্য প্রার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ করেননি তারা। জিয়াউর রহমানের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদনের কর্মসূচিতেও তাদেরকে ডাকা হয়নি। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে বেশিরভাগ প্রার্থী এ কর্মসূচি বয়কট করেন।

ক্ষোভ প্রকাশ করে সভাপতি পদে পরাজিত ছাত্রদলের এক প্রার্থী বলেন, খোকন সভাপতি ও শ্যামল সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ার পরে পরাজিত কোনও প্রার্থীকে এখন পর্যন্ত কোন ফোন করেননি। সাধারণ সম্পাদককে অভিনন্দন জানাতে কেউ কেউ ফোন দিলেও তিনি ফোন ধরেননি।

জানা গেছে, জিয়াউর রহমানের কবরের সামনেও পরাজিত কয়েকজন প্রার্থীর সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোনেন শ্যামল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী ছিলেন এমন একজন নেতা বলেন, নেতাকর্মীদের নিয়ে কর্মসূচিতে গিয়ে সভাপতির সঙ্গে দেখা করে কোলাকুলি করেছি। কিছুক্ষণ পর সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে দেখা হলে তার দিকে হাত বাড়ালে তিনি তাকে এড়িয়ে যান।

জানতে চাইলে ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন বলেন, তারা শেরে বাংলা নগরের এক গেটে মহাসচিবকে অভ্যর্থনা দেওয়ার জন্য অপেক্ষায় ছিলেন। কিন্ত মহাসচিব অন্যগেট দিয়ে প্রবেশ করেন। পরে এ সংবাদ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে পৌঁছান।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নির্বাচনে যারা পরাজিত হয়েছেন তারা ভাই, বন্ধু। নির্বাচনের পরে সবাইকে ফোন করেছি। তবে অনেকের ফোন বন্ধ পেয়েছি।


মন্তব্য


অন্যান্য