রাজনীতি

তারেক রহমানকে ধৈর্য ধরতে হবে: জাফরুল্লাহ চৌধুরী

প্রকাশ : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | আপডেট : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

তারেক রহমানকে ধৈর্য ধরতে হবে: জাফরুল্লাহ চৌধুরী

মানববন্ধনে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী- সমকাল

  সমকাল প্রতিবেদক

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিগত দিনের রাজনীতির প্রতি ইঙ্গিত করে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ভুলভ্রান্তি সবারই হয়। তবে ধৈর্য ধরতে হবে। কারণ আপনি বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ। আপনিই বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীদের ধৈর্য ধরতে হয়। তাড়াহুড়া করবেন না।

তিনি বলেন, আপনার (তারেক রহমান) দিকে অনেকেই চেয়ে আছে। আপনার সঠিক সিদ্ধান্তে আন্দোলন গড়ে উঠবে। আর আন্দোলন গড়ে না উঠলে খালেদা জিয়া সহজে মুক্তি পাবেন না।

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে শনিবার বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার পরিষদের আয়োজনে 'খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির' দাবিতে এক মানববন্ধনে তিনি এসব বলেন।

তারেক রহমানকে উদ্দেশ্য করে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, আপনি আপনার দলের বৈঠক অবশ্যই করবেন। তবে সেখানে আপনার সিনিয়র নেতাদের উপস্থিত থাকতে বলেন, তাদের মাধ্যমেই এসব বৈঠক করেন। ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ, মেজর (অব.) হাফিজউদ্দিন আহমেদদের সামনে রেখে বৈঠক করেন। তাহলেই দেখবেন আন্দোলনটা গড়ে উঠবে। এখন আন্দোলন ছাড়া খালেদা জিয়ার মুক্তির কোনো সম্ভাবনা নেই।

বিএনপির নেতা-কর্মীর উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা রাস্তায় থাকেন, প্রত্যেকদিন মিছিল করেন, প্রত্যেকদিন ট্রাক মিছিল করেন। ঢাকা শহরে প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে যেন আপনাদের চেহারা দেখা যায়। খুশি হতাম- আজকে যদি বিএনপির এক হাজার মহিলা এখান দুই ঘণ্টা রাস্তায় বসে থাকতেন, এক হাজার মহিলা ৫০টা ট্রাক নিয়ে ঢাকা শহরে প্রদক্ষিণ করে একটা স্লোগান দিতেন- গণতন্ত্র চাই, খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশে জাফরুল্লাহ বলেন, আপনি পরিষ্কার করে বলুন, খালেদা জিয়ার জামিনে আপনি কোনো রকম বাধার সৃষ্টি করবেন না। তাহলেই দেখবেন বিচারকরা নড়তে পারবে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল মোমেন ভারতে সফরে গিয়ে 'অসম চুক্তিতে' সই করেছেন দাবি করে তিনি বলেন, দেশের ১৮শ' ঊর্ধবতন কর্মকর্তাকে ভারতে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। যেখানে গরু রাখার জন্য মানুষ হত্যা করে, মানুষের অধিকার নাই, সেদেশে কী শেখার আছে?

তিস্তা চুক্তির বিষয়ে অগ্রগতি না হওয়ার সমালোচনাও করেন জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি বলেন, বাংলাদেশের আকাশে অশনি সংকেত আছে। এর একটি ভারতীয় চক্রান্তের, দ্বিতীয়টা হলো রোহিঙ্গা। রোহিঙ্গাদের ভাষানচরে পাঠিয়ে জঙ্গি ঠেকানো যাবে না।

সংগঠনের মহাসচিব আ ফ ম মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, কেন্দ্রীয় নেতা আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

মন্তব্য


অন্যান্য