ময়মনসিংহ

ঝিনাইগাতীতে বাসে গার্মেন্ট কর্মীকে যৌন হয়রানি, গ্রেফতার ১

প্রকাশ : ১৭ জুলাই ২০১৯

ঝিনাইগাতীতে বাসে গার্মেন্ট কর্মীকে যৌন হয়রানি, গ্রেফতার ১

  শেরপুর প্রতিনিধি

ঝিনাইগাতী উপজেলা সদর থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে এক নারী গার্মেন্ট কর্মী যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন- এমন অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় বুধবার বাসের হেলপার জুলহাসকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গত ৯ জুলাই ভারুয়া গ্রামের বাসিন্দা গার্মেন্ট কর্মী রাত ১১টায় ঝিনাইগাতী উপজেলা সদর থেকে 'মমিন পাগলের দোয়া বাস' নামে একটি বাসে করে ঢাকা যাচ্ছিলেন। ওই নারী যে সিটে বসেছিলেন তার পাশের সিটটি খালি ছিল। গার্মেন্ট কর্মীর অভিযোগ, বাস ছাড়ার পর থেকেই ওই বাসের হেলপার জুলহাস তার পাশের সিটে বসে যৌন হয়রানি শুরু করে। বখাটে জুলহাস শেরপুর জেলা সদরের তাতালপুর গ্রামের বাসিন্দা উসমান আলীর ছেলে।

ওই গার্মেন্ট কর্মী আরও অভিযোগ করেন, ঘটনাটি বেশ কয়েকবার ওই গাড়ির চালক রুবেলকে জানানো হলেও সে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। চালক নিজে ও আরেক হেলপার উসাইন তাকে বিরক্ত করে আসছিল। ঝিনাইগাতী থেকে গাজীপুর আসা পর্যন্ত তিনি হয়রানির শিকার হন। একপর্যায়ে যৌন হয়রানি শেষে তাকে বাস থেকে নামিয়ে দেওয়া হয়।

পরে ঘটনাটি তার স্বামীকে জানালে প্রথমে গাজীপুর থানায় অভিযোগ করা হয়। কিন্তু ঘটনাস্থল ঝিনাইগাতী হওয়ায় ১৬ জুলাই রাতে স্বামী-স্ত্রী ঝিনাইগাতী থানায় এসে লিখিত অভিযোগ করেন। বুধবার সকালে পুলিশ অভিযান চালিয়ে জুলহাসকে গ্রেফতার করে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নালিতাবাড়ী-ঝিনাইগাতী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এ ঘটনায় বাসের চালকসহ তিনজনের নামে থানায় মামলা হয়েছে। জুলহাসকে গ্রেফতারের পর ভিকটিম তাকে শনাক্ত করেছেন। চালকসহ অন্যদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। বাস জব্দ করে থানায় রাখা হয়েছে।

মন্তব্য


অন্যান্য