ময়মনসিংহ

রাষ্ট্রপতির সাধারণ ক্ষমার ১০ বছর পর মুক্তি পেলেন আজমত

প্রকাশ : ১৬ জুলাই ২০১৯

রাষ্ট্রপতির সাধারণ ক্ষমার ১০ বছর পর মুক্তি পেলেন আজমত

মুক্তির পর কারাগারের সামনে আজমত আলী

  জামালপুর প্রতিনিধি

রাষ্ট্রপতির সাধারণ ক্ষমার পরও প্রায় ১০ বছর কারাবাসের পর মুক্তি পেয়েছেন জামালপুরের সরিষাবাড়ি উপজেলার পাখিমারা গ্রামের বৃদ্ধ  আজমত আলী মাস্টার। 

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে জামালপুর কারাগার থেকে হাই কোর্টের আপিল বিভাগের নির্দেশে তাকে মুক্তি দেয় কারা কর্তৃপক্ষ। 

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে একটি হত্যা মামলায় ১৯৮৯ সালে জামালপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালত আজমত আলীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দেন। 

এই আদেশের বিরুদ্ধে হাই কোর্টে আপিলের পাশপাশি রাষ্ট্রপতির কাছে আপিল করে আজমত আলীর পরিবার। 

২০০৯ সালে রাষ্ট্রপতির সাধারণ ক্ষমায় আজমত মুক্তি পান। পরে তিনি চলে আসেন জামালপুরের গ্রামের বাড়ি সরিষাবাড়িতে। এর কয়েকদিন পরই পুলিশ ফের আজমতকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠায়। 

আজমতের মেয়ে বিউটি খাতুন এ ব্যাপারে হাইকোর্টে আপিল করেন। আইন সহায়তা কর্মকর্তাদের সার্বিক সহযোগিতায় মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ কারাবাসী আজমতকে নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দেন। 

আপিল বিভাগের নির্দেশে বেলা ১১টার দিকে জামালপুর কারা কর্তৃপক্ষ তাকে মুক্তি দেন। 

আজমতের মেয়ে বিউটি আক্তার বলেন, রাষ্ট্রপতির নির্দেশের পরও আইনি জটিলতা দেখিয়ে বিনা দোষে বাবাকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হয়। যে কারণে বাবার জীবন থেকে ১০টি বছর হারিয়ে গেল। তবে এখন বাবার মুক্তিতে আনন্দের জোয়ার বইছে পুরো পরিবারে।

 মুক্তি পাওয়া আজমত আলী বলেন, বিনা দোষে আমাকে কারাভোগ করতে হয়েছে। মুক্তি পাওয়াটা আনন্দের তবে এই ১০ বছর বিনা কারণে কারাগারে থাকার বিচারটি আপনাদের কাছে দিলাম। 

জামালপুর কারাগারের জেল সুপার মকলেছুর রহমান বলেন, সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের নির্দেশের কপি পাওয়া মাত্রই তাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। তার মুক্তিতে কারা কর্তৃপক্ষ সন্তুষ্ট। 

মন্তব্য


অন্যান্য