ময়মনসিংহ

ভালুকায় শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পুলিশের তাণ্ডব

প্রকাশ : ২১ মে ২০১৯ | আপডেট : ২১ মে ২০১৯

ভালুকায় শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পুলিশের তাণ্ডব

পুলিশের হামলার প্রতিবাদে আগুন জ্বালিয়ে মহাসড়ক অবরোধ করেন ব্যবসায়ীরা- সমকাল

  ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ির সিডস্টোর বাজারে সোমবার সন্ধ্যায় শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কয়েক দফা হামলা ও ব্যাপক ভাংচুর চালিয়েছে পুলিশ। ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে টায়ার জ্বালিয়ে তিন ঘণ্টা অবরোধ করে রাখেন। এ সময় পুলিশ ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

অবরোধকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ কমপক্ষে ৩০ রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে। সংবাদ পেয়ে ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, ইউএনও ও ভালুকা মডেল থানার ওসি রাত সোয়া ৯টায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার ইফতারের পাঁচ মিনিট আগে ওই বাজারে সাদা পোশাকে শিল্প পুলিশের দুই সদস্য নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে রাস্তা পরিস্কারের কথা বলে ইফতার নেওয়ার জন্য থামানো বেশ কয়েকটি গাড়ির কাগজপত্র তল্লাশির নামে চালকদের কাছ থেকে টাকা নেয়। এ ঘটনা জানাজানি হলে স্থানীয় শ্রমিক লীগের নেতারা ঘটনার প্রতিবাদ জানান এবং তাদের পরিচয় নিশ্চিতের জন্য ওই দুই পুলিশকে তাদের দলীয় অফিসে নিয়ে আটকে রাখেন। খবর পেয়ে ওই বাজারের শিল্প পুলিশের ক্যাম্প থেকে ১৪-১৫ জনের একটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে আকস্মিক শ্রমিক লীগের অফিসসহ আশপাশের বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ব্যাপক ভাংচুর ও ব্যবসায়ীসহ বাজারের লোকজনকে এলোপাতাড়ি মারধর করে। পরে ওই বাজারের কয়েকশ' ব্যবসায়ী ও উপস্থিত হাজার হাজার মানুষ ঘটনার প্রতিবাদে মহাসড়ক অবরোধ করে শিল্প পুলিশের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করতে থাকে। সংবাদ পেয়ে ভালুকা মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্যার্থ হয়।

এ সময় শিল্প পুলিশের সদস্যরা ফের ঘটনাস্থলে এসে মারধর ও ভাংচুর চালাতে থাকলে ব্যবসায়ী এবং এলাকাবাসী তাদের ওপর হামলা চালিয়ে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় অবরোধকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ অন্তত ৩০ রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে। সংঘর্ষে ভালুকা মডেল থানার এসআই কাজল হোসেন, শিল্প পুলিশের এএসআই গৌতম, নাজিম উদ্দিন ও কনস্টেবল অভিজিত ধরসহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন। রাত সাড়ে ৯টায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলে ব্যবসায়ীরা অবরোধ তুলে নেন।

ভালুকা মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মাজাহারুল ইসলাম সমকালকে জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। পরে তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য


অন্যান্য