ময়মনসিংহ

এ কেমন শত্রুতা!

প্রকাশ : ০৭ জানুয়ারি ২০১৯ | আপডেট : ০৭ জানুয়ারি ২০১৯

এ কেমন শত্রুতা!

নান্দাইলে এভাবেই এক চাচাতো ভাইয়ের ঘরের পাশে গর্ত খুঁড়েছেন অন্য এক চাচাতো ভাই। ছবি: সমকাল

  নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

জমি বদল করতে রাজি না হওয়ায় এক ভাই অপর ভাইয়ের বসতভিটা ঘেঁষে গভীর গর্ত খুঁড়েছে, যাতে ভাইয়ের ঘরবাড়ি গর্তে ধসে পড়ে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার সুন্দাইল গ্রামে। গভীর গর্ত তৈরি করার কারণে বাড়ির সব বাসিন্দা চরম ঝুঁকির মধ্যে বসবাস করছে।

সরেজমিন সোমবার সুন্দাইল গ্রামে গিয়ে জানা যায়, মো. হারিছ মিয়া, নজরুল ইসলাম ও বাচ্চু মিয়া সম্পর্কে চাচাতো ভাই। তাদের লাগোয়া প্রতিবেশী হচ্ছেন আলী উছমান। এই চারটি পরিবার দীর্ঘদিন ধরে এক উঠোনকে কেন্দ্র করে বসবাস করে আসছে। এদের মধ্যে হারিছ মিয়া পাকা ঘর তৈরির উদ্যোগ নেন। এ কারণে তিনি তার বসতভিটার সাড়ে তিন শতক জমির বদলে চাচাতো ভাই নজরুলের অন্য একটি জমি দাবি করেন। নজরুলের ওই জমিটি পেলে হারিছ তার পছন্দমতো একটি বাড়ি তৈরি করতে পারেন। কিন্তু হারিছ মিয়ার ওই প্রস্তাবে রাজি হননি নজরুল। এ নিয়ে সুন্দাইল গ্রামে বেশ কয়েকটি সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হলেও এ বিষয়টির সমাধান হয়নি।

এদিকে নতুন বাড়ি তৈরি করার প্রয়োজনে গত দুই মাস আগে হারিছ মিয়া তার নিজের বসতবাড়ি ভেঙে ফেলেন। বসতবাড়ির ভিটা সীমানা বরাবর মাটি খুঁড়ে অন্য জায়গায় স্থানান্তর করেন। প্রায় সাত ফুট গভীর গর্ত খনন করে মাটি অন্যত্র নিয়ে যাওয়ায় সেখানে বিশাল গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে বাড়ির অন্য বাসিন্দাদের বসতঘর হুমকির মুখে পড়েছে। বাড়ির শিশুদের রক্ষার জন্য বিশাল গর্তের চারপাশে বাঁশের বেড়া দিয়ে রাখা হয়েছে। 

নজরুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, সাড়ে তিন শতক জমির বদলে সাড়ে আট শতক জমি দাবি করেছিল হারিছ মিয়া। তাই আমি ওই প্রস্তাবে রাজি হইনি। অভিযুক্ত হারিছ মিয়া এ বিষয়ে বলেন, আমার প্রয়োজনে আমার ভিটা আমি খুঁড়েছি। তাতে কার কী বলার আছে? প্রয়োজন পড়লে আবারও খুঁড়ে মাটি আনব।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহমুদা আক্তার বলেন, জমির শ্রেণি পরিবর্তন করতে হলে ভূমি কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে। প্রতিবেশীকে ঝুঁকিতে ফেলা কোনোমতেই আইনসিদ্ধ নয়। ভুক্তভোগী আবেদন করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

নেত্রকোনায় দোকান কর্মচারীকে গলা কেটে হত্যা


আরও খবর

ময়মনসিংহ

  নেত্রকোনা প্রতিনিধি

নেত্রকোনা সদর উপজেলায় আশীষ কুমার সাহা (৪৮) নামের এক দোকান কর্মচারীকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। বৃহস্পতিবার রাতে আমতলা ইউনিয়নের সাপমারা পূর্বপাড়ার রাস্তায় তাকে হত্যা করা হয়। শুক্রবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। 

নেত্রকোনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান জুয়েল জানান, সাপমারা পূর্বপাড়া গ্রামের মৃত ক্ষিতিশ চন্দ্র সাহার ছেলে আশীষ কুমার সাহা জেলা শহরের বড়বাজারের প্রতিমা বস্ত্রালয়ে কর্মচারী হিসেবে কাজ করতেন। বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে কাজ শেষে বাজার করে বাড়ি ফিরছিলেন তিনি। পথে সাপমারা পূর্বপাড়ার কাছে পৌঁছালে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা তাকে গলা কেটে করে হত্যা করে লাশ রাস্তার পাশে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ শুক্রবার সকালে লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। ঘটনাস্থল থেকে তরিতরকারি ভর্তি একটি ব্যাগ, একটি টর্চ লাইট ও বিড়ির প্যাকেট উদ্ধার করা হয়েছে। তবে নিহতের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি খুঁজে পায়নি পুলিশ। 

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত রহস্য উদঘাটন ও এর সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারে চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

সাংবাদিক আমানউল্লাহ কবিরের দাফন সম্পন্ন


আরও খবর

ময়মনসিংহ

বৃহস্পতিবার সকালে মেলান্দহ উপজেলার রেখিরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে সাংবাদিক আমানউল্লাহ কবিরের জানাজা হয়। ছবি: সমকাল

  জামালপুর প্রতিনিধি

জামালপুরের মেলান্দহের নিজ গ্রাম রেখিরপাড়ায় মা-বাবার কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সাংবাদিক আমানউল্লাহ কবির। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় মেলান্দহ উপজেলার রেখিরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে তার মরদেহ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এর আগে বুধবার সন্ধ্যায় সাংবাদিক আমানউল্লাহ কবিরের মরদেহ জামালপুরে আনা হয়। এরপর তার মরদেহ জামালপুর প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে রাখা হয়। সেখানে গণমাধ্যমকর্মীরাসহ জেলার সর্বস্তরের মানুষ তার প্রতি শেষশ্রদ্ধা জানান। 

জানাজার নামাজের আগে মরহুমের বড় ছেলে ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের বার্তা প্রযোজক শাতিল কবির বাবার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে সবার কাছে দোয়া চান।

জানাজায় অংশ নেন- মরহুমের ভাই গণফোরামের কেন্দ্রীয় নেতা নঈম জাহাঙ্গীর, সাবেক স্বাস্থ্য উপমন্ত্রী সিরাজুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার কামরুজ্জামান, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ওয়ারেছ আলী মামুন, মেলান্দহ উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান নুরুল আলম সিদ্দিকসহ স্থানীয় রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতারা।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

ঈশ্বরগঞ্জের চর রামমোহনে সুহৃদের কম্বল বিতরণ


আরও খবর

ময়মনসিংহ

সোমবার ঈশ্বরগঞ্জের চর রামমোহনে সুহৃদের পক্ষ থেকে কম্বল বিতরণ করা হয়-সমকাল

  ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

শহরে শীত একটু কম অনুভূত হলেও গ্রামে বেড়েছে শীতের তীব্রতা। ফলে দুর্ভোগে পড়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষরা। ভুক্তভোগীদের কষ্ট লাঘবে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের চর রামমোহনের শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করেছে সমকাল সুহৃদ সমাবেশ।

সোমবার দুপুরে রাজিবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এ কে এম মুদাব্বিরুল ইসলামের সার্বিক সহযোগিতায় ও সুহৃদ সমাবেশ ঈশ্বরগঞ্জ শাখার উদ্যোগে কম্বল দেওয়া হয়। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সমকালের ঈশ্বরগঞ্জ প্রতিনিধি মোস্তাফিজুর রহমান, সুহৃদ সমাবেশের উপদেষ্টা ফেরদৌস কোরাইশী টিটু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম শুভ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মোস্তাকীম, সদস্য রুহুল আমিন রিপন, নাঈম বাশার ও ইউপি সদস্য এমদাদুল হক প্রমুখ।

সংশ্লিষ্ট খবর