মিউজিক

গায়ক থেকে প্রযোজক

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯ | আপডেট : ১০ জানুয়ারি ২০১৯

গায়ক থেকে প্রযোজক

কণ্ঠশিল্পী সালমা

  অনলাইন ডেস্ক

'মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি। কিন্তু ইতিহাসের পাতা উল্টে যে সত্য জেনেছি, তা মনে আঁচড় কেটেছে। লাখো প্রাণের বিনিময়ে যে মুক্ত স্বাধীন দেশের মানচিত্র আঁকা হয়েছে, সেই দেশের সন্তান হিসেবে আমি গর্বিত। দেশের জন্য আমারও কিছু করা দায়িত্ব বলেই মনে করি। আমি শিল্পী, তাই গানে গানেই বীর শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে চাই। আরও চাই বিশ্ববাসীকে জানিয়ে দিতে, এ দেশের মাটির গান কতটা সমৃদ্ধ। সেজন্যই বাউলিয়ানায় মেতে আছি।' লোক ও দেশের গানের নিয়মিত আয়োজন নিয়ে এমন কথাই শোনালেন কণ্ঠশিল্পী সালমা। এ শুধু ইচ্ছা প্রকাশ নয়, নতুন আয়োজনের মধ্য দিয়েও তা করে দেখিয়েছেন এই তারকা কণ্ঠশিল্পী। 'আশায় আশায়' ও 'বাংলাদেশ' গানে তিনি আবারও শ্রোতাদের সামনে তুলে ধরেছেন মুক্তিযুদ্ধের রক্তক্ষয়ী ইতিহাসকে।

গায়কীতে নিজেকে ভাঙার এই প্রয়াসে সালমা ভক্তরা কিছুটা অবাক হলেও সাধুবাদ জানাতে ভুলে যাননি। কারণ তারা এটাও জেনেছেন, সালমা নানা ধরনের গানের মধ্য দিয়ে নিজেকে ভাঙা চেষ্টা করলেও লোকগান থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখেননি। আধুনিক গানেও রাখছেন সময়ের ছাপ। কিছুদিন আগে প্রকাশিত 'প্রাণ ভোমরা', 'আপন মানুষ', 'আমাকে ছাড়িয়া বন্ধু' গানগুলো তার বড় প্রমাণ।

সালমা

সালমা বলেন, 'অনেকেই শ্রোতার প্রত্যাশা পূরণে নানা ধরনের আয়োজন করেন। আমিও চাই গায়কীতে প্রতিনিয়ত নিজেকে ভাংতে। কিন্তু নতুন কিছু করার প্রয়াসে নিজস্বতা বিসর্জন দিতে চাই না। যেজন্য নানা ধরনের গান করলেও শিকড়ের গান থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখার কথা ভাবি না। কারণ লোকগান আমার কাছে সাধনার মতো।' সালমার মুখে এমন কথা শোনা যাবে- এটা ছিল প্রত্যাশিত। সে কারণে তার কাছে জানতে চাওয়া, কিংবদন্তি বাউল লালন শাহের কালজয়ী গান নিয়ে ধারাবাহিক যে অ্যালবামের কথা বলেছিলেন, তার কাজ কতটুকু এগোল? জবাবে সালমা বলেন, 'শুরুতে অ্যালবাম প্রকাশের কথা ভাবলেও এখন সে পরিকল্পনা বাদ দিয়েছি। একক গান হিসেবে ধারাবাহিকভাবে এক এক করে সাঁইজির গান প্রকাশ করব। গানের সঙ্গীতায়োজন সময়োপযোগী হলেও কথা ও সুর থাকবে অবিকৃত। অনেকে নতুন মাত্রা যোগ করতে বাউল বা লোকগানের কথা, সুরে পরিবর্তন নিয়ে আসার চেষ্টা করেন। শিল্পী হিসেবে এটা আমি সমর্থন করি না। শিকড়ের গানের কথা ও সুর বদলে দিলে তার গানের নির্যাসটা হারিয়ে যায়- এটাই আমার ধারণা। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলতে গিয়ে সঙ্গীতায়োজনে ভিন্নতা আনা যেতে পারে। কিন্তু কথা, সুর বদলে গেলে তো গানের প্রকৃত আদলটাই হারিয়ে যায়। তাই লোকগান নতুন করে প্রকাশের বিষয়ে সচেতন থাকি।' 

নিজের কাজের এমন মনোভাব হয়তো সালমাকে অন্যদের থেকে আলাদা করে দিয়েছে। যেজন্য সালমা হয়ে উঠেছেন সময়ের নন্দিত শিল্পীদের একজন। নতুন খবর হলো, সালমার পরিচয় এখন শুধু কণ্ঠশিল্পীর মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। গান ও অ্যালবাম প্রযোজক ও প্রকাশকদের তালিকায়ও উঠে এসেছে তার নাম। সম্প্রতি 'স্নেহা অ্যান্ড সূর্য' নামে অ্যালবাম প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান তৈরি করেছেন তিনি। প্রযোজক হিসেবে সালমার পরিকল্পনা কী? এর উত্তরে তিনি বলেন, 'স্নেহা অ্যান্ড সূর্য' প্রতিষ্ঠা করেছি একটা স্বপ্ন পূরণের জন্য। সে স্বপ্নটা হলো, নিরীক্ষাধর্মী কাজের পাশাপাশি নতুনদের জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করে দেওয়া। এক সময় নিজেও নতুন ছিলাম।

এনটিভির মতো একটা প্ল্যাটফর্ম পেয়েছিলাম বলেই আমি আজকের সালমা। এজন্য নতুনদের সুযোগ করে দিতে 'স্নেহা অ্যান্ড সূর্য' নামের একটি সঙ্গীত প্ল্যাটফর্মটি তৈরি করেছি। অন্য যেসব অ্যালবাম প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আছে, তাদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে কাজ করার ইচ্ছায় এটি তৈরি করিনি। এজন্য আমাকে কেউ অ্যালবাম প্রযোজক ভাবুক এটাও চাই না। আমি গানের মানুষ, গানের সঙ্গেই নিজেকে জড়িয়ে রাখতে চাই।' সালমার কথায় স্পষ্ট, গানের বাণিজ্যিক দিক নয়, সম্ভবনাময় শিল্পীদের সুযোগ তৈরি করে দিতেই প্রযোজনায় এসেছেন।

সালমা

যেজন্য কণ্ঠশিল্পী পরিচয়কে তিনি বড় করে দেখছেন। তার কথায় একটা বিষয় আরও স্পষ্ট, তাহলো- শিল্পীজীবনের অনেক চড়াই-উতরাই পেরিয়ে নিজেকে আরও পরিণত করতে চান সালমা। তার কথা, কাজ এবং আগামী দিনের পরিকল্পনা শুনে সে কথারই আভাস পাওয়া যায়। যেজন্য এখন আরও এটা ভাবার কোনো কারণ নেই যে, কোজআপ ওয়ান তারকা খেতাব পাওয়া কিশোরী সালমা নির্দিষ্ট গণ্ডির মধ্যে আটকা পড়ে আছেন। নিজেকে নিয়ে ভাঙা-গড়ায় যে শিল্পী দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন, গানের পাশাপাশি নারী অধিকার নিয়েও কাজ করছেন তিনি।

দেশের বাইরে গিয়ে আইন বিষয়ে পড়াশোনার কথাও জানালেন। বললেন, শিল্পী হিসেবে যেমন গানে গানে মানুষকে আনন্দ দিতে চাই, তেমনি সবার দুঃখ-সুখ ভাগাভাগি করে নিতে পাশে থাকতে চাই। এজন্য নারী ও মানবাধিকার নিয়ে কাজ করছি। শিল্পীও একজন মানুষ- এই কথা বিশ্বাস করি বলেই আগামীতে নতুন এক সালমার সঙ্গে সবাইকে পরিচয় করিয়ে দিতে চাই।' 


     

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

জাহিদ আকবরের কথায় রুমীর ফেরা


আরও খবর

মিউজিক
জাহিদ আকবরের কথায় রুমীর ফেরা

প্রকাশ : ২০ জানুয়ারি ২০১৯

আরিফিন রুমী ও জাহিদ আকবর

  অনলাইন ডেস্ক

আরফিন রুমী নতুন গান প্রকাশে নেই, প্লেব্যাকে নেই, আছে কেবল  ফেসবুকে। মাঝে মাঝে ফেসবুক লাইভে এসে ভক্তদের গান শুনিয়ে।যান তিনি। সেটাও গত কয়েকমাস ধরে। তাই ভক্তদের প্রশ্নের শেষ ছিলো না। বিশেষ করে আরফিন রুমী নতুন গান নিয়ে কবে ফিরবেন?  

অবশেষে ভক্তদের সুখবর দিলেন এই শিল্পী। ফিরলেন নতুন গান নিয়ে। ফেরাটা হলো রুমীর গাওয়া 'তোমার চোখে আকাশ আমার' গানের  গীতিকার জাহিদ আকবরের হাত ধরে। তার লেখা গান দিয়েই।

যে গান দিয়ে ফিরছেন তার শিরোনাম 'তোমাকেই দেখে যাই'।  জাহিদ আকবরের কথায় কণ্ঠ দেয়ার পাশাপাশি গানটির সুর-সংগীতও করেছেন আরফিন রুমী নিজেই।

তবে মজার বিষয় হচ্ছে গানটি প্রকাশের আগেই বিটিভির জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান  পরিবর্তনে আজকের পর্বে গানটি শুনাবেন রুমী। এ জন্য আলাদা চিত্রায়ণও করা হয়েছে।

রোববার রাত ১০টার ইংরেজি সংবাদের পর রোমান্টিক ধাঁচের এই গানটি প্রচার হবে পরিবর্তনে।

এ প্রসঙ্গে রুমী বলেন, 'অনেকদিন পর নতুন গান নিয়ে ভক্তদের কাছে ফিরলাম। এই গানে নতুনভাবে নিজেকে হাজির করেছি। সুর-গায়কীতে নতুনত্ব পাবেন শ্রোতারা। জাহিদ ভাই অসাধারণ কিছু কথায় 'তোমাকেই দেখে যাই' গানের কথা লিখেছেন।'

এদিকে গানটির গীতিকবি জাহিদ আকবর বলেন, 'রুমির সঙ্গে আমার গানের রসায়ন সবসময়ই ভালো। যেমনটা চেয়েছি তেমন করেই গানটি তৈরি করেছে রুমি। একেবারে নতুন এক গায়ক রুমিকে শ্রোতারা পাবেন এই গানে। আর 'পরিবর্তন'র উপস্থাপক আনজাম মাসুদ ভাইকে ধন্যবাদ আমাদের দুজনকে আবারও একসঙ্গে গান করার প্লাটফর্মটি করে দেয়ার জন্য।'

আরফিন রুমী ও জাহিদ আকবর জুটির বেশ কিছু গান জনপ্রিয় হয়েছে। রুমীর জন্য জাহিদ প্রথম গান লেখেন শাহীন কবির টুটুল পরিচালিত ‘এইতো ভালোবাসা’ ছবিতে। এ ছবির 'ফাঁদ পাতা এই শহরটা' গানটি বেশ শ্রোতাপ্রিয়তা পেয়েছে।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

শীতে ‘বর্ষা বরণ’


আরও খবর

মিউজিক
শীতে ‘বর্ষা বরণ’

প্রকাশ : ১৮ জানুয়ারি ২০১৯

কাজল আরিফ ও ন্যান্সি

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত হলো জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী ন্যান্সির সঙ্গে কাজল আরিফের দ্বৈত গান ‘বর্ষা বরণ’র ভিডিও। বুধবার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জি সিরিজ-অগ্নিবীণার ব্যানারে প্রকাশ পেয়েছে গানটি। গানটির কথা লিখেছেন রবিউল ইসলাম জীবন এবং সুর করেছেন আরিফ নিজেই। 

‘আমার বর্ষাবরণ মনে, তুই সামান্য খড়কুটো, জানি বাঁচবো না আর আমি, যদি ছেড়ে দিস এই মুঠো’ এমন কথার  গানটির সঙ্গীতায়োজন করেছেন মীর মাসুম। মিউজিক ভিডিওতে মডেল হয়েছেন আফরান খান ও আমায়া নূর। 

আতিফ আসলাম বাবলু পরিচালিত এই ভিডিওতে দেখা যাবে  গায়ক গায়িকাকেও।  ঢাকা ও গাজীপুরের বিভিন্ন মনোরম লোকেশনে গানটি চিত্রায়িত হয়েছে।

গানটি প্রসঙ্গে কাজল আরিফ বলেন, ‘বেশ যত্ন নিয়ে গানটি গেয়েছি আমি ও ন্যন্সি আপু। এই গানের কথা ও সুর খুবই হৃদয়গ্রাহী। পাশাপাশি চমৎকার সঙ্গীতায়োজন রয়েছে। আশা করি সবার ভালো লাগবে।’

২০১৩ সালে প্রকাশ পায় কাজল আরিফের প্রথম একক অ্যালবাম ‘নতুন একটা প্রেমে পড়ো’। এর ‘মেঘে মেঘে’, জানতে ইচ্ছে করে’ ও ‘রাজা’ শিরোনামের গানসহ বেশ কয়েকটি গান শ্রোতা মহলে বেশ জনপ্রিয়তা পায়। এরপর তার গাওয়া ‘স্বপ্ন ছেঁড়া’ ও ‘কসম দিলাম’ গানের মিউজিক ভিডিও গানপ্রেমীদের কাছে আলোচিত হয়। পাশাপাশি ‘অজানা পথে’ এবং ‘কেউ নই কারো আপন’ গানগুলো কাজল আরিফকে বেশ পরিচিতি এনে দেয়।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

আবার বিয়ে করলেন সালমা


আরও খবর

মিউজিক
আবার বিয়ে করলেন সালমা

প্রকাশ : ১৭ জানুয়ারি ২০১৯

বরের সঙ্গে সালমা

  অনিন্দ্য মামুন

বিয়ে করলেন লোক সঙ্গীতশিল্পী সালমা। গত ৩১ ডিসেম্বর পারিবারিকভাবে বিয়ে করেছেন বলে সমকাল অনলাইনকে জানিয়েছেন তিনি। 

পাত্র ময়মনসিংহ হালুয়াঘাটের ছেলে সানোয়াল্লা নূরে সাগর। পেশায় আইনজীবী। লন্ডনে 'বার অ্যাট ল' করছেন। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি রেস্তোরাঁয় ঘনিষ্ঠ সংবাদকর্মীদের ডেকে সালমা তার দ্বিতীয় বিয়ের খবর জানান। সালমা বলেন, এটা কিন্তু প্রেমের বিয়ে নয়, দুই পরিবারের দেখাদেখির ভিত্তিতে বিয়ে হয়েছে আমাদের।

সালমা জানান তার বাসাতেই বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা হয়। পরে তার স্বামী সানোয়াল্লা নূরে সাগর লন্ডন চলে যান। 'বার অ্যাট ল' শেষ করতে তার স্বামীর মাস চারেক লাগবে বলে জানান তিনি।  

'লালনকন্যা' খ্যাত এই কণ্ঠশিল্পী আরও বলেন, আমার স্বামী দেশে ফিরলে বিয়ে পরবর্তী সংবর্ধনার আয়োজন করবো, তখন সবার দোয়া নেব। 

তিনি বলেন, একসঙ্গে থাকতে হলে দু'জনের মধ্যে বিশ্বাস, ভালোবাসা, শ্রদ্ধাবোধ দরকার। এসবের সমন্বয় হলে দাম্পত্য জীবন সুখের হয়। সেদিক থেকে সাগরের মধ্যে সবই পেয়েছেন বলে জানান সালমা।


কুষ্টিয়ার মেয়ে মৌসুমি আক্তার সালমা সংগীত রিয়্যালিটি শো ‘ক্লোজআপ– তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’-এর দ্বিতীয় সিরিজের বিজয়ী ছিলেন। এরপর কয়েকটি লোকগীতি দিয়ে সারাদেশে ব্যাপক পরিচিতি পান। ২০১১ সালে পারিবারিকভাবে শিবলী সাদিককে বিয়ে করেন তিনি। 

শিবলী সংগীত পরিবারের ছেলে হলেও পিতার উত্তরসূরি হিসেবে রাজনীতিতে যুক্ত হন। ২০১২ সালে ১ জানুয়ারি তাদের সংসারে একটি কন্যা সন্তান জন্ম নেয়। সাংসারিক দ্বন্দ্বের জের ধরে ২০১৬ সালের ২০ নভেম্বর তাদের বিচ্ছেদ হয়।

সংশ্লিষ্ট খবর