মিউজিক

আনন্দের গানে শানের কণ্ঠ

প্রকাশ : ০৬ নভেম্বর ২০১৮ | আপডেট : ০৬ নভেম্বর ২০১৮

আনন্দের গানে শানের কণ্ঠ

তারেক আনন্দ ও শান

  অনলাইন ডেস্ক

সম্প্রতি প্রকাশিত হলো ‘চক পেন্সিল’ শিরোনামের নতুন একটি গানের ভিডিও। গানটির কথা লিখেছেন তারেক আনন্দ। এর আগেও আনন্দের গানে দেশের অনেক বড় বড় শিল্পীরা কণ্ঠ দিয়েছেন। এবারের গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন শান। সোমবার সন্ধ্যায়  জি-সিরিজের ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ হয় গানটি। 

শিল্পী নিজেই গানটির সুর করেছেন। মিউজিক করেছেন রেজওয়ান সাজ্জাদ। গানটি প্রসঙ্গে শান বলেন, ‘গতানুগতিকের বাইরে একটু বিষয়ভিত্তিক লিরিক খুঁজছিলাম। তারেক আনন্দ ভাইকে বলি ডিফারেন্ট টাইপ কোনো লিরিক আপনার কাছে আছে কিনা। তারপর তিনি ‌'চক পেন্সিল' গানের লিরিকটি দেন। এক ঝলকেই গানের কথা আমার পছন্দ হয়। অনেক সময় নিয়ে গানটি তৈরি করেছি। আশা করছি শ্রোতাদের ভালো লাগবে ’

তারেক আনন্দ বলেন, ‘এমন কথার গান ইচ্ছে করলেই বারবার লেখা যায় না। একবারই হয়। ছোটবেলায় দেখেছি, প্রিয় মানুষের নাম বা নামের প্রথম অক্ষর চক পেন্সিলে দরজায় লিখে রাখতে । সেই স্মৃতি থেকেই লেখা ‌'চক পেন্সিল'। সুর, সংগীত, গায়কীর সুন্দর সমন্বয়ের এ গানটি শ্রোতাদের ভালো লাগবে।’

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

ভালো পাত্র পেয়েছেন পুতুল, এবার বিয়ে


আরও খবর

মিউজিক

বরের সঙ্গে পুতুল

  বিনোদন প্রতিবেদক

‘ভালো পাত্র খুঁজে দেন খোঁজে দেন বিয়ে করবো।’  সমকাল অনলাইনে গত বছরের ১৮ আগস্ট প্রকাশিত এক সাক্ষাৎকার বলেছিলেন ক্লোজআপ ওয়ান গায়িকা সাজিয়া সুলতানা পুতুল।  এবার জানালেন ভালো পাত্র খুঁজে পেয়েছেন তিনি।  তাই বিয়ে কাজ সেরে ফেলতে চাইছেন এবার। পাত্র ইসলাম নুরুল।  কানাডায় সরকারি চাকুরে। 

পুতুল বলেন, ‘আট মাস আগে বিয়ের প্রস্তাব আসে। পুরো ব্যাপারটি পারিবারিকভাবে এগিয়েছে।  পাত্র হিসেবে সবাই তাকে ভালো ভেবেছে।  মাত্র তিন দিন আগে আমাদের দুজনের দেখা হলো।  ভালো লেগেছে আমারও। তাই নতুন জীবন শুরু করতে যাচ্ছি। দোয়া করবেন সবাই।'

আগামী ২০ মার্চ ঢাকার একটি কনভেনশন সেন্টারে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হবে। বিয়ের আগের দিন দুই পরিবারের আত্মীয়স্বজন ও বন্ধুদের নিয়ে গায়েহলুদ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন বলেও জানান পুতুল। 

পুতুল ক্লোজআপ ওয়ান তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় আসরে সেরা দশের অন্যতম প্রতিযোগী ছিলেন। গান গাওয়ার পাশাপাশি লেখালেখিও করেন তিনি। গান লেখা, সুর করা ও সংগীত পরিচালক হিসেবেও পরিচিতি রয়েছে তার। 

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

আরিয়ানের গানে ইরফান সাজ্জাদ


আরও খবর

মিউজিক

মিউজিক ভিডিওর একটি দৃশ্য

  বিনোদন প্রতিবেদক

কথাগুলো ভালোবাসার, আবার বিচ্ছেদেরও। সঙ্গে সুর, সংগীত আর অসাধারণ কণ্ঠের সমান্তরাল সংযোজন। মোট মিলিয়ে অসাধারণ একটি গান। কথাগুলো এমন, কিছুটা ইচ্ছে ইচ্ছে ভুল/ তোমার খোঁপার গোলাপ ফুল/ কোনও অচীন আশায়/ রাতগুলো ঘুমহীন...। এমন কথা আর কণ্ঠের রেশ ধরে তৈরি হয়েছে গল্পনির্ভর মিউজিক ভিডিও। যে গানে কাব্য-সুর দৃশ্য হয়ে ফুটে উঠেছে সবিস্তার।

গানটি মুসাফির আরিয়ানের গাওয়া। কথা লিখেছেন আলী ওয়াজেদ। সুর করেছেন দুজনে মিলেই। আর সংগীতায়োজন করেছেন শুভদীপ। অন্যদিকে ভিডিওটি নির্মাণ করেছেন মীর ইশতিয়াক। যেখানে মডেল হিসেবে আছেন জনপ্রিয় অভিনেতা ইরফান সাজ্জাদ ও তানজিনা রুবী। 

 মোট মিলিয়ে অসাধারণ এই গল্পময় ‘ইচ্ছে ভুল’ গানটি মুক্তি পেয়েছে আজ (১‘৪ মার্চ) সিএমভির ইউটিউব চ্যানেলে। পাশাপাশি গানটি শোনা যাচ্ছে জিপি মিউজিক, বাংলালিংক ভাইব ও রবি স্প্ল্যাশ-এ। 

গানটি প্রসঙ্গে এর শিল্পী-সুরকার মুসাফির আরিয়ান বলেন, ‘দুটো মানুষের ভালোবাসার কথা ও বিচ্ছেদের গল্প রয়েছে এই গানে। আবার দুজনে অনেক দূরে হারিয়ে যাওয়ার গানও এটি। দুজন মানুষ একে অপরকে ছেড়ে একা থাকতে না পারার গান। গীতিকারের কথাগুলো আমাকে অনেক ভাবিয়েছে। সুরেও তাই চেষ্টা করেছি কথাগুলোকে অনুভব করার। বাকিটা শ্রোতা-দর্শকরা ভালো বলতে পারবেন।’

গানটি মুসাফির আরিয়ানের গাওয়া। কথা লিখেছেন আলী ওয়াজেদ। সুর করেছেন দুজনে মিলেই। আর সংগীতায়োজন করেছেন শুভদীপ।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

সম্ভাবনাময় শিল্পীদের পরিচয় করে দিতে চাই: হাবিব


আরও খবর

মিউজিক

হাবিব ওয়াহিদ

  বিনোদন প্রতিবেদক

হাবিব ওয়াহিদ। তারকা কণ্ঠশিল্পী ও সঙ্গীত পরিচালক। সম্প্রতি এইচডব্লিউ ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ হয়েছে তার একক গান 'আলিঙ্গন'। এ ছাড়াও গতকাল প্রকাশিত হয়েছে তার সঙ্গীতায়োজনে লিজার গাওয়া 'এক যমুনা' গানের ভিডিও। কণ্ঠশিল্পী ও সঙ্গীত পরিচালকের পাশাপাশি প্রযোজক হিসেবেও আত্মপ্রকাশ ও অন্যান্য প্রসঙ্গে কথা হয় তার সঙ্গে।

আবারও মেলো রোমান্টিক গান প্রকাশ করলেন। 'আলিঙ্গন' গানটি নিয়ে কেমন সাড়া পাচ্ছেন?

ভক্তদের অনেকেই ভালোলাগার কথা জানিয়েছেন। 'আলিঙ্গন' গানের ভিডিওতে যে গল্প তুলে ধরা হয়েছে, সেটাও অনেকের মনে ছাপ ফেলেছে। এ ধরনের মন্তব্য শুনে মনে হয়েছে, যে পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করেছি, তা বৃথা যায়নি। অবশ্য ভক্তদের এই ভালোলাগার পেছনে গীতিকার রক্তিম মীর, মডেল মুনা গাওচান, সিনেমাটোগ্রাফার অ্যারন অশোক কুমারসহ যারা এ কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন সবারই অবদান আছে বলে আমি মনে করি। 

এ সময়ের মিউজিক ভিডিওগুলোয় নানা চরিত্রে নিজেকে তুলে ধরছেন। গানের পাশাপাশি অভিনয়েও আগ্রহী হয়ে উঠেছেন-

অভিনেতা হওয়ার ইচ্ছা কোনোকালেই ছিল না। কিন্তু সময়ের প্রয়োজনে এখন সেই কাজটি করতে হচ্ছে। গানের প্রকাশনা এখন ভিডিওনির্ভর হয়ে যাওয়ার কারণেই প্রতিটি আয়োজন নিয়ে আলাদা করে ভাবতে হচ্ছে। 'মিথ্যা' গানে মানসিক রোগী, 'ঝড়' গানে প্রেমিক মাস্তান, 'আনমনা মন' গানে পর্যটক, 'অবুঝপনা' গানে অসহায় প্রবাসী বাঙালিসহ অন্যান্য গানে নানা চরিত্রে গানের ভিডিওতে নিজেকে তুলে ধরেছি শুধু ভক্তদের ভালোলাগার কথা ভেবে। অভিনেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠার কোনো উদ্দেশ বা ইচ্ছা কোনোটাই ছিল না। 

নিজের গান প্রকাশের জন্য এইচডব্লিউ ইউটিউব চ্যানেল চালু করার কথা বলেছিলেন। কিন্তু এখন অন্যান্য শিল্পীর গানও প্রকাশ করতে দেখা যাচ্ছে, এর কারণ কী? 

এইচডব্লিউ চ্যানেলে শুধু নিজের গাওয়া গানগুলোই প্রকাশ করব- এমন ঘোষণা দিইনি। বলেছিলাম, এই চ্যানেলে নিজের কাজগুলো তুলে ধরব। অনেক দিন ধরে এমন একটি প্লাটফর্মের কথা ভেবেছি, যেখানে নিজের সৃষ্টি আলাদা করে তুলে ধরব। এইচডব্লিউ ইউটিউব চ্যানেল তেমনই একটি প্লাটফর্ম যেখানে আমার সৃষ্টিকর্ম স্থান পাবে। ভবিষ্যতে ভক্তরা যাতে নিশ্চিত হতে পারেন, এই চ্যানেলে হাবিব ওয়াহিদের যত নতুন গান আছে তা শোনা যাবে। তবে নিজের চ্যানেলের বাইরে অন্য কোনো প্রকাশকের জন্য গান করব না- সেটা ভাবলেও ভুল হবে। যে কাজগুলো একান্ত নিজের মতো করে তৈরি করতে পারব, সেগুলো নিজের চ্যানেলে প্রকাশ করব। পড়শীর 'আবাহন' এবং লিজার 'এক যমুনা' গানটির সুর ও সঙ্গীত পরিচালনা নিজের বলেই এইচডব্লিউ চ্যানেলে প্রকাশ করেছি।

শিল্পী ও সঙ্গীত পরিচালকের পাশাপাশি প্রযোজক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করলেন। প্রযোজনায় আসাটা চ্যালেঞ্জিং মনে হয়নি?

চ্যালেঞ্জিং মনে না হওয়ার কোনো কারণ সেই। সত্যিই ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করা কঠিন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিল্পী ও সঙ্গীত পরিচালকরা নিজেদের চ্যানেল তৈরি করে গান প্রকাশে সাফল্যের দেখা পেয়েছেন। কিন্তু এ দেশে এখনও সেভাবে বাণিজ্যিক সাফল্য ধরা দেয়নি। তবে সম্ভাবনা যে একেবারে নেই, তা নয়। আমরা যারা গানের প্রযোজনা প্রকাশনার সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছি, ভবিষ্যতে হয়তো তারা সুদিনের মুখ দেখতে পাব।

গানের প্রযোজনা ও প্রকাশনার ক্ষেত্রে নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গি আছে কি?

নিজের সৃষ্টিকর্ম তুলে ধরার পাশাপাশি এইচডব্লিউ চ্যানেলে সম্ভাবনাময় কিছু শিল্পীকে পরিচয় করে দিতে চাই। এ জন্য চ্যালেঞ্জ নিয়েই প্রযোজনায় এসেছি। এ বিষয়ে আমাকে সাহস জোগানোর পাশাপাশি সবরকম সহযোগিতা করছেন আমার বাবা ফেরদৌস ওয়াহিদ। আমি ভাগ্যবান কোনো ভালো কাজে সবসময় তাকে পাশে পাওয়ায়। প্রযোজনার বিষয়ে সাহস ও প্রেরণা দুটোই বাবার কাছ থেকে পাচ্ছি। এ কারণেই লক্ষ্য থেকে কোনোভাবেই পিছিয়ে আসতে চাই না।

সংশ্লিষ্ট খবর