খুলনা

বাবা-মায়ের পাশে শায়িত তরিকুল ইসলাম

প্রকাশ : ০৫ নভেম্বর ২০১৮ | আপডেট : ০৫ নভেম্বর ২০১৮

বাবা-মায়ের পাশে শায়িত তরিকুল ইসলাম

  যশোর অফিস

দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের দশ জেলার নেতাকর্মী ও যশোরের সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা ভালোবাসায় চিরবিদায় নিলেন বর্ষীয়ান নেতা বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম। 

সোমবার শহরের ঈদগাহ ময়দানে বাদ আসর তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ২৫ হাজারেরও বেশি মানুষ উপস্থিত হন। জানাজা শেষে সর্বস্তরের মানুষ ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপর শহরের কারবালা কবরস্থানে বাবা-মায়ের কবরের পাশে তাকে দাফন করা হয়।

ঈদগাহ ময়দানে জানাজার আগে তরিকুল ইসলামের কফিন বিএনপির দলীয় পতাকা দিয়ে ঢেকে দেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরীসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। এরপর বিএনপি চেয়ারপারস বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে কফিনে ফুলেল শ্রদ্ধা জানানো হয়। 

জানাজায় পরিবারের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন তরিকুল ইসলামের বড় ছেলে শান্তুনু ইসলাম সুমিত ও ছোট ছেলে বিএনপির খুলনা বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত। 

বাবার জন্য দোয়া চেয়ে শান্তুনু ইসলাম সুমিত বলেন, আমার বাবা মানুষের কল্যাণে কাজ করার চেষ্টা করেছেন। কাজ করতে গিয়ে যদি কোন ভুল বা কারো মনে কষ্ট দিয়ে থাকেন, আপনার ক্ষমা করে দিবেন। আপনাদের কাছে আমি হাতজোড় করে বাবার জন্য ক্ষমা চাইছি। আমার বাবার কাছে কারো কোন পাওনা থাকলো আমরা পরিশোধ করে দিবো। আপনারা আমার বাবার জন্য দোয়া করবেন। বুধবার বাদ আসর নিজ বাসভবনে দোয়া মাহফিলে সবাইকে উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানান।

অনিন্দ্য ইসলাম অমিত তার বক্তব্যে বলেন, আমার বাবা আপনাদের সমর্থনে চারবার সংসদ সদস্য হয়েছেন। চারবার মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে আপনাদের কল্যাণে কাজ করেছেন। জিয়াউর রহমানের জাতীয়বাদী আদর্শ ধারণ করেছেন আমৃত্যু। আমিও যেন বাবার মতো আপনাদের পাশে থাকতে পারি সেই দোয়া করবেন।

তিনি আরো বলেন, জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় স্পিকারের উপস্থিতিতে জানাজা হয়েছে। সেখানে যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন উপস্থিত ছিলেন। এজন্য তাদের প্রতিও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। আমার বাবা যখন অসুস্থ ছিলেন, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা খোঁজ নিয়েছেন, তাদের প্রতিও কৃতজ্ঞতা জানাই। আপনারা আমার বাবার জন্য দোয়া করবেন। 

জানাজায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান বলেন, তরিকুল ইসলাম আমৃত্যু এ অঞ্চলের মানুষের কল্যাণে কাজ করেছেন। আপনাদের প্রতিনিধি হিসেবে ঢাকায় উন্নয়নের জন্য কাজ করেছেন। তিনি যশোর উন্নয়নের কারিগর। দলের নিবেদিত প্রাণ ছিলেন। তার জন্য সবাই দোয়া করবেন। 

জানাজা শেষে খুলনা বিভাগের দশ জেলার বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও যশোর জেলার বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করা হয়।

এর আগে বেলা আড়াইটায় হেলিকপ্টারযোগে যশোর বিমানবন্দরে এসে পৌঁছায় তরিকুল ইসলামের মরদেহ। সেখান থেকে নেওয়া হয় শহরের ঘোপ এলাকার নিজ বাসভবনে। সেখানে তাকে এক নজর দেখার জন্য শত শত নেতাকর্মী ভিড় করে। পরে মরদেহ শহরের লালদিঘিপাড়ে দলীয় কার্যালয়ে নেওয়া হয়। সেখানে কিছুক্ষণ রাখার পর ঈদগাহ ময়দানে আনা হয় কফিন।

তরিকুল ইসলামকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে যশোরে হাজির হন খুলনা বিভাগের দশ জেলার বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের ঢল নামে যশোর শহরে। প্রায় এক লাখ মানুষের সমাগম হয়েছে বলে দলীয় নেতাকর্মীদের দাবি। দলীয় নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, জাসদসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়েছে। এছাড়াও যশোর জিলা পরিষদ, যশোর পৌরসভার পক্ষ থেকেও শ্রদ্ধা জানানো হয়।

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

মা-বাবা এমন নিষ্ঠুরও হয়!


আরও খবর

খুলনা
মা-বাবা এমন নিষ্ঠুরও হয়!

প্রকাশ : ১৯ নভেম্বর ২০১৮

  শৈলকূপা (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি

নির্যাতিত শিশুর কথা শুনে তার বাড়ির রাস্তায় দাঁড়াতেই প্রতিবেশী শিরিনা নাহার, জহুরা, আছিয়া খাতুন, বাকুল মণ্ডল, সালমা খাতুনসহ একে একে ছুটে এলেন জনা পঞ্চাশেক নারী-পুরুষ। সবাই বলাবলি করছে মা-বাবা কি এমন নিষ্ঠুর হতে পারে! বর্ণনা দিলেন শিশু মো. মাহিম হোসেনের (৮) ওপর নিষ্ঠুর বাবা-মার লোমহর্ষক নির্যাতনের কাহিনী। কখনও মুখে বালিশ চেপে, আবার কখনও মুখ বেঁধে নির্যাতন করা হয় তাকে। নির্যাতনের সময় থাকে ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ। শরীরের প্রতি ইঞ্চিতে নির্যাতনের দাগ। একজন হাঁপিয়ে উঠলে আরেকজন মারেন। একটু শব্দ করলে গরম খুন্তি চেপে ধরেন মুখে। কেউ প্রতিবাদ করলে তাকেও শুনতে হয় অকথ্য গালাগাল। 

এমন নিষ্ঠুর বাবা-মা হলেন ঝিনাইদহের শৈলকূপার পৌর এলাকার কবিরপুরের বেসরকারি সংস্থা আশা কার্যালয়ের অফিস সহকারী মতিউর রহমান ও তার স্ত্রী মিরা খাতুন। নির্যাতিত মাহিম মতিউরের একমাত্র সন্তান হাবিবপুর সানু কিন্ডারগার্টেনের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র। মাহিম এবার কিন্ডারগার্টেন অ্যাসোসিয়েশন বৃত্তি পরীক্ষায় মেধা তালিকায় ঝিনাইদহ জেলায় প্রথম স্থান অধিকার করেছে। 

প্রতিবেশীরা জানায়, দেড় বছর ধরে এ ধরনের নির্যাতনের শিকার হচ্ছে শিশুটি। সর্বশেষ সোমবার দুপুরে শিশুটির ওপর নির্যাতন সইতে না পেরে প্রতিবেশীরা প্রতিরোধ গড়ে তোলে এবং বাবা-মাকে গণপিটুনি দেয়। এরপর অবস্থা বেগতিক হলে সন্তান রেখে তারা আত্মগোপনে চলে যায়। পরে শিশুটিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেপে ভর্তি করা হয়। এরপর এনজিও আশা কার্যালয়ের শাখা ব্যবস্থাপক বজলুর রহমান শিশুটিকে দায়িত্ব নিয়ে চিকিৎসা শেষে অফিসে নিয়ে আসেন।

মতিউরের প্রতিবেশী শিরিনা নাহার বলেন, মতিউর হাবিবপুর চরে ভাড়া বাসায় থাকে। প্রতিবেশী হলেও শিশু সন্তানের ওপর নিষ্ঠুর বাবা-মার এ নির্যাতন সহ্য করা দায়। দেড় বছরের এমন কোনো দিন নেই যেদিন শিশুটির ওপর তারা নির্যাতন করেনি। নির্যাতনের সময় কান্না যেন বাইরে না যায় সে জন্য মুখে কাপড় বেঁধে নেয়। আবার কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে তারা। শিশু মাহিম তাদের সন্তান কি-না এ নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করেন শিরিনা নাহার।

মতিউরের পাশের রুমের ভাড়াটিয়া রেশমা খাতুন বলেন, এমন কোনো দিন নেই যে, শিশুটির ওপর নির্যাতন করেনি তার বাবা-মা।

কবিরপুরের আশা অফিসে বাবা-মার নির্যাতনের শিকার মাহিমকে দেখতে গেলে সেও নির্যাতনের কথা জানায়।

আশার শাখা ব্যবস্থাপক বজলুর রহমান বলেন, মতিউর তার অফিসের অফিস সহকারী। বাবা-মা হয়ে কীভাবে শিশুটির ওপর এমন নির্যাতন করতে পারে- এ ঘটনায় তিনি হতবাক। 

তিনি আরও বলেন, তারা কয়েকবার ডেকে সতর্ক করেছেন। সোমবার নির্যাতনের পর প্রতিবেশীরা শিশু মাহিমকে নিয়ে এলে তিনি দায়িত্ব নিয়ে তাকে হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে আবার অফিসে নিয়ে আসেন।

হাবিবপুর গ্রামের জামাল উদ্দিন জানান, কোনো সুস্থ বাবা-মা শিশু সন্তানের ওপর এমন নির্যাতন করতে পারে না। হয়তো তারা দু’জন মাদকাসক্ত। বাবা-মার নির্যাতনের হাত থেকে শিশুটিকে বাঁচাতে অনেকে এমন মেধাবী ছেলেকে দত্তক নিতেও আগ্রহ প্রকাশ করেন।

সানু কিন্ডারগার্টেনের প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, মাহিমের শরীরের প্রতি ইঞ্চিতে আঘাতের চিহ্ন। বাবা-মা সন্তানের ওপর এমন নির্যাতন করতে পারে তা না দেখলে বিশ্বাস করা যায় না।

সানু কিন্ডারগার্টেনের পরিচালক সালমা খাতুন বলেন, এমন বাবা-মার বিচার হওয়া উচিত। প্রতিদিন মাথায় অথবা শরীরে কোনো না কোনো আঘাতের চিহ্ন থাকে মাহিমের। জিজ্ঞাসা করলে তার বাবা-মা প্রতিবেশীর সন্তানদের দোষ দিয়ে নির্যাতন ঢাকার চেষ্টা করে।

শৈলকূপা থানার ওসি কাজী আইয়ুবুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না।

শিশুটির বাবা-মায়ের সাথে কথা বলার জন্য তাদের বাড়িতে এ প্রতিবেদক গেলে কাউকে পাওয়া যায়নি। আশার শাখা ব্যবস্থাপক বজলুর রহমান বলেন, ঘটনার পর থেকে বাবা-মা পলাতক।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

যশোরের বিএনপি নেতা আবু ঢাকায় 'অপহৃত'


আরও খবর

খুলনা

অপহৃত বিএনপি নেতা আবু বকর আবু

  কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি

যশোর জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও কেশবপুর উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান আবু বকর আবুকে ঢাকায় অপহরণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। 

রোববার রাত ৮টার পর রাজধানীর পল্টন এলাকা থেকে তাকে অপহরণ করা হয় বলে তার পরিবার থেকে দাবি করা হয়েছে। এ ঘটনায় তার অনুসারী নেতাকর্মীরা উৎকণ্ঠায় রয়েছেন।

আবুর পরিবার ও ঢাকায় অবস্থানরত বিএনপি নেতাদের সূত্রে জানা গেছে, একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়নের জন্য আবু বকর আবু গত ১২ নভেম্বর ঢাকায় যান। 

পল্টন এলাকার মেট্রোপলিটন হোটেলের ৪র্থ তলায় ৪১৩ নং কক্ষে থেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনে ও জমা দিয়ে  সোমবার সাক্ষাৎকার বোর্ডে অংশ নেওয়ার জন্য ওই হোটেলেই অবস্থান করছিলেন। 

রোববার রাত ৮টার দিকে তার সঙ্গী মজিদপুর ইউপি মেম্বার সাইফুল ইসলাম ওষুধ কিনে ফিরে এসে তাকে আর কক্ষে পাননি। রাত সাড়ে ৮টার দিকে তার ব্যবহূত মোবাইল ফোন থেকে কেশবপুরে অবস্থানরত তার এক ভাগ্নের মোবাইলে কয়েকবার মিসকল আসে। প্রত্যেকবার ব্যাক কলে শুধু হ্যালো হ্যালো ছাড়া কোনো কথা হয়নি। এর পর ওই নম্বরে ভাগ্নের কাছে ফোন দিয়ে তার মামার জন্য দেড় লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। 

ওই রাতে কয়েকটি বিকাশ নম্বরও সরবরাহ করে তারা। কিন্তু রাত ১২টার পর বিকাশের ট্রানজিট বন্ধ থাকায় গতকাল সকালে অপহরণকারীরা আরেকটি নম্বর থেকে আবারও যোগাযোগ করে। এর পর তাদের দেওয়া বিভিন্ন নম্বরে দেড় লাখ টাকা বিকাশ করা হয়। সকাল ৯টার দিকে অপহরণকারীরা দেড় লাখ টাকার প্রাপ্তিস্বীকার করে আরও ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। 

বহু অনুরোধের পর অপহরণকারীরা ২০ হাজার টাকা বিকাশ করার জন্য দুটি নম্বর সরবরাহ করে বলে, ওই টাকা পাওয়ার আধা ঘণ্টার মধ্যে আবু বকর আবুকে ওই হোটেলের সামনে ছেড়ে আসা হবে। সাড়ে ১০টার দিকে ২০ হাজার টাকা বিকাশ করার পরও তাকে ছাড়া হয়নি এবং তারা আর মোবাইল রিসিভ করেনি। বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত আবু বকর আবুর সন্ধান পাওয়া যায়নি।

দীর্ঘদিন কেশবপুর উপজেলা বিএনপি দু'ভাগে বিভক্ত হওয়ায় পৃথক দুটি কার্যালয়ে দলীয় কার্মকাণ্ড পরিচালিত হয়ে আসছে। এর একটি কার্যালয় আবু বকর আবুর নেতৃত্বে পরিচালিত হতো।

চিরকুমার আবু বকর আবুর ছোট বোন আঞ্জুমানারা বলেন, আমার ভাই কেশবপুরের বিএনপি নেতাদের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে ছিলেন। এদিন বিএনপির সাক্ষাৎকার বোর্ডে হাজির হতে না দেওয়ার জন্য তার প্রতিদ্বন্দ্বীদের কেউ তাকে অপহরণ করে থাকতে পারে।

ঢাকায় অবস্থানরত কেশবপুর পৌর বিএনপি সভাপতি ও সাবেক মেয়র আব্দুস সামাদ বিশ্বাস বলেন, আবু বকর আবু নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি ঢাকার র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন সংস্থাকে অবহিত করা হয়েছে।

এ ঘটনায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

পরের
খবর

কুষ্টিয়ায় 'ডাকাতদের গোলাগুলিতে' নিহত ১


আরও খবর

খুলনা

  কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলায় 'ডাকাতদের দু'টি দলের মধ্যে গোলাগুলিতে' একজন নিহত হয়েছে।

রোববার গভীর রাতে উপজেলার প্রাগপুর সড়কের হাওখালী মাঠে এই 'বন্দুকযুদ্ধে'র ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

নিহত ব্যক্তিকে ডাকাত দলের সদস্য বলে জানালেও তার পরিচয় নিশ্চিত করতে পারেনি পুলিশ।

ভেড়ামারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (ওসি) খন্দকার শামীম জানান, ভেড়ামারা-প্রাগপুর সড়কের হাওখালী মাঠে দু’দল ডাকাতের মধ্যে গোলাগুলির খবর পেয়ে পুলিশের টহল দল সেখানে অভিযান চালায়।

তিনি জানান, পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাত দলের সদস্যরা পালিয়ে গেলে ঘটনাস্থলে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় একজনের লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়। উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তুল, ৩ রাউন্ড গুলি ও দু'টি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়েছে। তবে নিহত ব্যক্তির পরিচয় জানা যায়নি।

সংশ্লিষ্ট খবর