সাক্ষাৎকার

সাক্ষাৎকার

গতি বাড়ানোই আমার লক্ষ্য : পরিকল্পনামন্ত্রী

প্রকাশ : ১৫ জানুয়ারি ২০১৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

গতি বাড়ানোই আমার লক্ষ্য : পরিকল্পনামন্ত্রী

  মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন

পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান বলেছেন, ফাস্ট ট্র্যাক প্রকল্পের গতি বাড়ানোই হবে তার মূল লক্ষ্য। যারা প্রকল্পগুলোর সঙ্গে যুক্ত তারা সবাই অভিজ্ঞ। তাই গতি বাড়াতে নতুন করে চাকা আবিস্কার করতে হবে না। যে চাকা আছে তার গতি আরও বাড়াতে পারলেই সাফল্য আসবে।

সমকালকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, মেগা প্রকল্পে অর্থায়ন একটি বড় বিষয়। অর্থায়ন জোগানের দায়িত্ব অর্থ মন্ত্রণালয়ের। কোন প্রকল্পে কত বরাদ্দ এবং কি পরিমাণে ছাড় হবে, তা পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় থেকে হয়। কোনো অবস্থাতেই অর্থাভাবে প্রকল্প বাস্তবায়ন ঝুঁকির মধ্যে পড়তে দেওয়া হবে না। যে কোনোভাবেই ফাস্ট ট্র্যাক প্রকল্পগুলো গুণগতমান ঠিক রেখেই দ্রুত বাস্তবায়ন করা হবে।

এমএ মান্নান বলেন, তিনি দ্রুততার সঙ্গে কাজ করতে পছন্দ করেন। তিনি বিশ্বাস করেন, গতিই জীবন। তার কাজে এ বিশ্বাসের প্রতিফলন থাকবে। তবে বাস্তবায়নকারী সংস্থাসহ অন্যদেরও জোর প্রচেষ্টা থাকতে হবে। তিনি জানান, নির্ধারিত মেয়াদ ২০১৯ সালে পদ্মা সেতুর কাজ শেষ করা সম্ভব হবে না। যে কোনোভাবেই ২০২০ সালে পদ্মা সেতুর কাজ শেষ হবে বলে তিনি আশাবাদী। তবে পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্প বাস্তবায়নে আরও দেরি হবে। কারণ রেল সংযোগের অর্থায়ন নিয়ে জটিলতার কারণে প্রকল্পটি বিলম্বে শুরু হয়েছে। অভ্যন্তরীণ সমস্যার কারণে এর বিলম্ব হয়নি। উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার আমলতান্ত্রিক জটিলতার কারণে এটি হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে সোনাদিয়া গভীর সমুদ্রবন্দর হারিয়ে যাচ্ছে না উল্লেখ করে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, একসঙ্গে দুই কাজ করতে গেলে সমস্যা হয়। ইতিমধ্যে পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দর স্থাপন প্রকল্প অনেক এগিয়ে গেছে। এর বাস্তবায়ন কাজেও গতি বাড়ানো হয়েছে। অন্যদিকে সোনাদিয়ার গভীর সমুদ্রবন্দর স্থাপন করা প্রযুক্তিগতভাবে অনেক জটিল হবে। এ কারণে খুব সাবধানে এগোতে হবে।

তিনি বলেন, মেট্রোরেল প্রকল্পটি সময়মতো শেষ হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি ছিল। কিন্তু গুলশানে হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার কারণে সম্ভাবনাময় প্রকল্পটির বাস্তবায়ন দুই বছর পিছিয়ে গেছে। একইভাবে জাপানের অর্থায়নে মাতারবাড়ী কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণও পিছিয়ে গেছে। পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, এলএনজি প্রকল্পটিও পিছিয়ে আছে। এটা নিয়ে তিনি সবার সঙ্গে বৈঠকে করবেন। প্রকল্পটি নিয়ে আমাদের বেসরকারি বিনিয়োগকারীদের খুব আগ্রহ রয়েছে।

দোহাজারী হতে ঘুমধুম পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ প্রকল্পে ভূমি অধিগ্রহণের কারণে বিলম্ব হয়েছে। ভূমি অধিগ্রহণ এ দেশে দীর্ঘদিনের সমস্যা। এ সমস্যা দূর করতে বহু আইন বদলাতে হবে। এটা অনেক দীর্ঘ মেয়াদের কাজ।

মন্তব্য


অন্যান্য