আন্তর্জাতিক

১০ বছরে কোনো বাংলাদেশি ভারতে অনুপ্রবেশ করেনি: বিজেপি

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯

১০ বছরে কোনো বাংলাদেশি ভারতে অনুপ্রবেশ করেনি: বিজেপি

সীমান্তে বিএসএফ সদস্যদের নজরদারি— ফাইল ছবি

  অনলাইন ডেস্ক

লোকসভা ও বিধানসভা নির্বাচনের আগে কথিত 'বাংলাদেশি অনুপ্রবেশ'কে প্রচারণার হাতিয়ার করলেও এবার ভারতের শাসক দল বিজেপির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, গত ১০ বছরে কোনো বাংলাদেশি অবৈধ পন্থায় ভারতে প্রবেশ করেনি।

বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে আসাম বিজেপির দুই মুখপাত্র বলেছেন, সমৃদ্ধির লক্ষ্যে বাংলাদেশিরা এখন ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যের সমৃদ্ধ অর্থনীতির দেশগুলোতে যাচ্ছে। ভারতের দি ইকোনমিক টাইমস এ খবর দিয়েছে।

২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত লোকসভা নির্বাচন এবং ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে আসামে প্রচারণা চালাতে গিয়ে বাংলাদেশি অনুপ্রবেশ প্রশ্নকে বারবার সামনে এনেছিল বিজেপি। হুমকি দিয়েছিল অবৈধ বাংলাদেশিদের বিতাড়িত করার।

তবে বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলনে রাজ্যের শাসক দল বিজেপির মুখপাত্র স্বপ্নীল বড়ুয়া বলেন, 'এখন আর অনুপ্রবেশ হচ্ছে না। অবৈধভাবে প্রবেশের বিষয়টি অনেক আগের। আমরা বলতে পারি, গত ১০ বছরে বাংলাদেশ থেকে কোনো অনুপ্রবেশ হয়নি।'

তিনি বলেন, অর্থনৈতিক কারণে বাংলাদেশিরা ভারতে অনুপ্রবেশ করছে না। তারা এখন ইউরোপীয়, উপসাগরীয় কিংবা অন্য উন্নত অঞ্চলগুলোতে যাচ্ছে। ইউরোপ কিংবা উপসাগরীয় দেশগুলোতে দৈনিক ন্যূনতম মজুরি প্রায় তিন হাজার রুপি। ভারতে তারা সর্বোচ্চ এক হাজার রুপি আয় করতে পারে।

প্রতিবেশী দেশগুলো থেকে যাওয়া মুসলিমদের নাগরিকত্ব না দেওয়ার বিধান রেখে সংশোধিত নাগরিকত্ব বিল পাস হওয়ার একদিনের মাথায় অবৈধ অনুপ্রবেশ নিয়ে এমন বক্তব্য হাজির করা হলো।

১৯৮৫ সালের আসাম চুক্তি অনুযায়ী ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের পর ভারতে অনুপ্রবেশকারী বাংলাদেশিদের নাগরিকত্বের সুযোগ ছিল না। তবে সংশোধিত বিলে ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বরের আগে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে ভারতে প্রবেশকারী অমুসলিমদের (হিন্দু, বৌদ্ধ, জৈন, পার্সি, শিখ ও খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ভুক্ত) নাগরিকত্বের বিধান রাখা হয়েছে। কেউ কেউ আশঙ্কা করছে, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের কারণে অনুপ্রবেশ বাড়বে।

তবে বিজেপি সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেছে, নাগরিকত্ব (সংশোধিত) বিলকে ব্যবহার করে নতুন করে কারও অনুপ্রবেশের সুযোগ নেই। মমিনুল আওয়াল নামে বিজেপির মুখপাত্র বলেন, নাগরিকত্ব বিল (সংশোধিত) পাস হলে নতুন করে কোনো হিন্দু বাংলাদেশি ভারতে অনুপ্রবেশ করতে পারবে না।

তিনি বলেন, 'নতুন করে আগত মানুষদের নাগরিকত্ব দেওয়ার কোনো সুযোগ ও বিধি নেই। আগে থেকে বসবাসকারীদের ক্ষেত্রেই কেবল এই বিধান প্রযোজ্য। শুধু তারাই আবেদন করতে পারবে এবং সংশ্লিষ্টরা সেসব আবেদনপত্র যাচাই-বাছাই করবে।'

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

আজ বারাণসী ঘাটে থামবে প্রিয়াঙ্কার নৌযাত্রা


আরও খবর

আন্তর্জাতিক

গঙ্গা নদীতে প্রিয়াঙ্কার ১৪০ কিলোমিটার নৌযাত্রা

  অনলাইন ডেস্ক

ভারতের লোকসভা নির্বাচনে এক অভিনব প্রচার শুরু করেছেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। গঙ্গা নদীতে সোমবার থেকে ১৪০ কিলোমিটার নৌযাত্রা শুরু করেন ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের এই সাধারণ সম্পাদক। 

ভারতের প্রয়াগরাজ শহরের মানাইয়া ঘাট থেকে তিন দিনের এই নৌযাত্রা আজ বুধবার থামবে নরেন্দ্র মোদির কেন্দ্র বারাণসীতে।

বারাণসী ঘাটে পৌঁছার আগেই মোদিকে কটাক্ষ করে প্রিয়াঙ্কা বলেছেন, ৭০ বছর ধরে ভারতে কিছুই হয়নি বলে যে প্রচার, তার মেয়াদ পেরিয়ে গেছে। আর এই পাঁচ বছরে কৃষক হোক কিংবা যুব সমাজ—মোদি সরকারকে নিয়ে খুশি নয় কেউই। এবার তারা সবাই মিলে সরকার পাল্টাবে।

সোমবার থেকে শুরু হওয়া নৌযাত্রায় একাধিক জায়গায় গিয়ে থামেন প্রিয়াঙ্কা। গঙ্গার ধারে বাস করেন এমন মানুষদের সঙ্গে কথা বলে লোকসভা নির্বাচনে সমর্থন চান তিনি।

নৌপথে প্রিয়াঙ্কার যাত্রা শুরুর পর তার নৌকা যত এগোতে থাকে, ততই নদীর ধারে মানুষের ভিড় বাড়তে দেখা যায়। ভিড়ের মধ্যেই নৌকা থামিয়ে গঙ্গার আশপাশের বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলেন প্রিয়াঙ্কা। জানতে চান, তারা কেমন আছেন। যাত্রা শুরুর পর একে একে দমদমা ঘাট, সিরসা ঘাট, লক্ষ্মগ্রহ ঘাট এবং ভদোহী ঘাটে থামেন তিনি।

নদীর তীরের এলাকাগুলোতে রাজীব কন্যার অভিনব এই প্রচার ব্যাপক সাড়া ফেলেছে ভারতে। তবে অনেকে আবার কটাক্ষ করেছেন। ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী উমা ভারতী বলেন, এতো দিন গঙ্গা, রাম, হনুমান কিংবা গরিবের কথা ওদের মনে ছিল না। আমরাই এ নিয়ে বলতাম। তবে প্রিয়াঙ্কা এখন গরীবদের নিয়েও কথা বলছেন। এর আসল উদ্দেশ্য বুঝতে হবে। গরীবদের নিয়ে উনি মোটেই চিন্তিত নন।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলায় নিহতদের দাফন শুরু


আরও খবর

আন্তর্জাতিক

ছবি: রয়টার্স

  অনলাইন ডেস্ক

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ব্যক্তিদের মরদেহের দাফন শুরু হয়েছে। বুধবার সকাল থেকে দাফন শুরু হয়।

আজ প্রথম দিনে সিরিয়া থেকে নিউজিল্যান্ড যাওয়া এক বাবা ও তার সন্তানকে দাফন করা হয়েছে। গত বছর শান্তিতে বসবাসের জন্য নিউজিল্যান্ডে গিয়েছিলেন খালেদ মোস্তফা (৪৪) ও তার ছেলে হামজা (১৬)। খবর বিবিসির

ক্রাইস্টচার্চে লিনউন্ড ইসলামিক সেন্টারের পাশে সমাধিস্থলে শত শত মানুষ ভিড় করেন। সেখানে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। 

নিহত ৫০ জনের মধ্যে এখনও সবার লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তরের কাজ শেষ হয়নি। আজই হস্তান্তর শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।  

বৃহস্পতিবার আরও কয়েকজনকে দাফন করা হবে বলে জানানো হয়েছে। লাশ শনাক্তকরণে দেরি হওয়ায় দাফন প্রক্রিয়াও দেরি হচ্ছে। 

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

লাইভ ভিডিওটি দেখা হয়েছে ৪ হাজার বার: ফেসবুক


আরও খবর

আন্তর্জাতিক

ক্রাইস্টচার্চে হামলা

লাইভ ভিডিওটি দেখা হয়েছে ৪ হাজার বার: ফেসবুক

প্রকাশ : ১৯ মার্চ ২০১৯

নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা- বিবিসি

  অনলাইন ডেস্ক

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে গুলি করে মানুষ হত্যার সময় হামলাকারী সেই দৃশ্য ফেসবুকে লাইভ প্রচার করে। ওই লাইভ ভিডিও মুছে ফেলার আগেই ৪ হাজার বার দেখা হয়েছে বলে জানিয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

ক্রাইস্টচার্চে হামলাকারী ব্রান্টন ট্যারেন্ট অস্ট্রেলিয় নাগরিক। নিজেকে শ্বেত শ্রেষ্টত্ববাদী হিসেবে অভিহিত করেন ২৮ বছরের ব্রান্টন। মসজিদে গুলি চালিয়ে ৫০ জন হত্যা মামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছে তাকে।

ফেসবকু বলছে, ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার লাইভ ভিডিওটি ছিল ১৭ মিনিটের। হামলাকারী ফেসবুক যখন সেটি লাইভ করেন তথন প্রায় ২০০ জন সেটি দেখছিলেন। এর মধ্যে একজন ভিডিওটি শেষ হওয়ার ১২ মিনিটের মাথায় এ নিয়ে রিপোর্ট করেন। হামলার মূল ভিডিওটি মুছে ফেলার আগে সেটি দেখ হয় ৪ হাজার বার।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষের কাছে খবরটি পৌঁছার আগেই অবশ্য ভিডিওটি কপি করেন কেউকেউ। এরপর তা ছড়িয়ে পড়ে। তবে দ্রুতই বিভিন্ন পেজ ও অ্যাকাউন্ট থেকে ভিডিওটি মুছতে শুরু করে ফেসবুক।

বিবিসি জানায়, মাত্র ১২ ঘন্টায় ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ওই লাইভ ভিডিওটির ১২ লাখ কপি ব্লক এবং তিন লাখ কপি মুছে দেয়। ভিডিওটি নিয়ে নিউজিল্যান্ড পুলিশের সঙ্গে ফেসবুক কাজ করছে বলে জানা গেছে। 

ফেসবুকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ক্রিস সোন্দ্রেবাই বলেন, ফেসবুকে কোথাও ভিডিওটি রয়ে গেছে কিনা তা নিশ্চিত হতে কাজ করে যাচ্ছি। 

গত শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে বেলা দেড়টার দিকে এক স্বেতাঙ্গ সন্ত্রাসীর হামলায় অন্তত ৫০ জনের মৃত্যু হয়। এরমধ্যে পাঁচজন বাংলাদেশি বলে জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। 

সংশ্লিষ্ট খবর