আন্তর্জাতিক

ওপেক থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে কাতার

প্রকাশ : ০৩ ডিসেম্বর ২০১৮ | আপডেট : ০৩ ডিসেম্বর ২০১৮

ওপেক থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে কাতার

  অনলাইন ডেস্ক

তেল রপ্তানিকারক দেশগুলোর সংগঠন অরগানাইজেশন অব দ্য পেট্রোলিয়াম এক্সপোর্টিং কান্ট্রিজ (ওপেক)  থেকে নাম প্রত্যাহার করতে যাচ্ছে কাতার। আগামী বছর জানুয়ারিতে ওপেকের সঙ্গে ৫৭ বছরে সম্পর্ক ছিন্ন করতে যাচ্ছে দেশটি।

ওপেক থেকে বেরিয়ে আসার বিষয়টি সোমবার নিশ্চিত করেন দেশটির জ্বালানি মন্ত্রী ড. সাদ-অাল-কবি।

আরব নিউজ জানায়, ২০১৭ সাল থেকে কূটনৈতিক এবং রাজনৈতিক সংকটে ভুগছে আরব উপসাগরীয় দেশ কাতার। সন্ত্রাসবাদ ইস্যুতে কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে সৌদি আরব, মিসর, বাহারাইন এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত। এছাড়াও কাতারের ওপর চাপানো হয় একাধিক নিষেধাজ্ঞা।

ওপেক থেকে কাতারের বেরিয়ে আসার এটেই অন্যতম কারণ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

তবে ওপেক থেকে কাতার বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিলেও চলতি সপ্তাহে ভিয়েনায় ওপেক সম্মেলনে তারা অংশ নেবে বলে জানিয়েছে আবদুল্লা বিন নাসেরের সরকার। 

সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত মোটেও সহজ ছিল না। তবে, ওপেক থেকে বেরিয়ে এলেও তেল উৎপাদনে এর কোনও প্রভাব পড়বে না বলে জানিয়েছে দেশটি।

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

যাত্রীদের নিরাপদে নিয়ে পানিতেও চলে যে বাস


আরও খবর

আন্তর্জাতিক

  অনলাইন ডেস্ক

সাধারণত শুকনো রাস্তায় চলে বাস। একটু পানি হলেই থেমে যায় এ যানবাহনের গতি। যদি এমন হয় যে বাস পানিতেও চলে আবার শুকনো রাস্তাতেও চলে। শুনতে অবাক লাগলেও এমন বাসও চলে বিশ্বের শহরে। 

এমনই বাস চালু হয়েছে জার্মানির হামবুর্গ শহরে। এলবে নদীর ধারেই এই শহর। শহরের অন্যতম আকর্ষণ হয়ে উঠেছে এই রিভারবাস। বাসটির ভাবনা প্রথম মাথায় আসে ফ্রেড ফ্রাঙ্কেন নামে এক ব্যক্তির। তিনিই চার বছর আগে এটি প্রথম চালু করেন।

মেরিটাইম ওয়ার্কার ফ্রেড বলেন, সিঙ্গাপুরে এমন একটি বিষয় নজরে এসেছিল তার। তারপর এই ভাবনা। হাঙ্গেরির একটি সংস্থার সহায়তায় তৈরি হয়েছে এই রিভারবাস।

প্রথম দু’মাসেই ৬৫০০ জন যাত্রী উঠেছিল বাসটিতে। বিপুল সাড়া মেলে পর্যটক ও স্থানীয়দের মধ্যে। তিনি বলেন, এই হামবুর্গ শহরের মতো আরও সাতটি নদী তীরবর্তী শহরেও এই রিভারবাস চালু করার আবেদন এসেছে।

এই বাসের চালকের আসনের পাশে লাইফ জ্যাকেট, জয়স্টিক, রেডিও ইক্যুয়িপমেন্টসও রয়েছে। ২৮০ হর্সপাওয়ারের ছয় সিলিন্ডার ইঞ্জিনের বাসটির প্রযুক্তি অনেকটাই জাহাজ ভাসার প্রযুক্তির মতোই।

এই বাসের আসন কিন্তু একেবারেই আর পাঁচটা সাধারণ বাসের মতো। যাত্রা শুরু হলে প্রথমেই শহরটি ঘুরে দেখতে পারেন যাত্রীরা। তারপর কিছুক্ষণের বিরতি দেওয়া হয়। যাত্রীদের বলা হয়, আপনারা ছবি তুলতে পারেন বাস থেকে নেমে।

এই বাসের আসন কিন্তু একেবারেই আর পাঁচটা সাধারণ বাসের মতো। যাত্রা শুরু হলে প্রথমেই শহরটি ঘুরে দেখতে পারেন যাত্রীরা। তারপর কিছুক্ষণের বিরতি দেওয়া হয়। যাত্রীদের বলা হয়, আপনারা ছবি তুলতে পারেন বাস থেকে নেমে। 

এই বিরতিতে বাসটা নদীতে ভেসে বেড়ানোর জন্য উপযুক্ত কি না, তা দেখা হয়। তারপরই বাসটি এলবে নদীর মধ্যে ভেসে বেড়ায় একটা স্টিমার বোটের মতোই। সবমিলিয়ে ৮০ মিনিটের মতো চড়া যায় এই বাসে।

৬৫ কি.মি প্রতি ঘণ্টা বেগে চলে এই বাসটি। ৩৬ আসনের এই বাসের ভাড়া প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য দুই হাজার চারশ আট টাকা আর ৫-১৪ বছরের শিশুদের জন্য ভাড়া প্রায় ১, ৬৭৩ টাকা। সূত্র: আনন্দবাজার। 

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

আস্থা ভোটে জিতলেন থেরেসা মে


আরও খবর

আন্তর্জাতিক
আস্থা ভোটে জিতলেন থেরেসা মে

প্রকাশ : ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮

  অনলাইন ডেস্ক

নেতৃত্ব নিয়ে শঙ্কার কারণে আস্থা ভোটের ডাক দিয়েছিল তার নিজ দল কনজারভেটিভ পার্টি। সেই আস্থা ভোটে জয়লাভ করেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। খবর বিবিসির

বুধবার ব্রিটিশ হাউজ অব কমন্সে থেরেসা মে'র পক্ষে ভোট দিয়েছেন কনজারভেটিভ পার্টির ২০০ জন সংসদ সদস্য। বিপক্ষে ভোট পড়েছে ১১৭টি জন। 

আস্থা ভোটে জয় পাওয়ায় আগামী এক বছর দলের নেতৃত্বে আর কোনো চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে না থেরেসা'কে। অন্তত আরও এক বছরের জন্য কনজারভেটিভ পার্টির সংসদীয় প্রধানের পদ নিশ্চিত থাকলো তার।  

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে ইইউর সঙ্গে ব্রেক্সিট বাস্তবায়ন নিয়েও বেশ চাপে আছেন তিনি। ইউরোপীয় নেতাদের সঙ্গে সমঝোতার পর যে ব্রেক্সিট পরিকল্পনা তিনি গেলাতে চাইছেন, তা দলের ভেতরেই তুমুল সমালোচনার জন্ম দিয়েছে।

পরের
খবর

শাশুড়ি দিলেন ৪৫২ কোটি রুপির বাংলো


আরও খবর

আন্তর্জাতিক

ঈশা আম্বানি- ফাইল ছবি

  অনলাইন ডেস্ক

এখন সবার নজর ভারতীয় ধনকুবের মুকেশ আম্বানি কন্যা ঈশা আম্বানির বিয়ের দিকে। সপ্তাহখানেক হই-হুল্লোড়ের পর বুধবার বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন ঈশা আম্বানি ও আনন্দ পিরামল। 

ইতিমধ্যে বলি ও হলি তারকাদের উপস্থিতি আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে এনে দিয়েছে এই বিয়েকে। তাই বিয়ের আদ্যপান্ত জানতে সবাই মুখিয়ে।

জি-নিউজ জানায়, বিয়ের আগে শাশুড়ির কাছ থেকে ঈশা আম্বানি পেলেন একটি দৃষ্টিনন্দন বাংলো। শাশুড়ির দেওয়া ওই বাংলোর দাম ৪৫২ কোটি রুপি। ৫ তলা বাংলোর মাপ ৫০ হাজার বর্গফুট। বাংলোটি তৈরিতে কাজ করে দেড় হাজার শ্রমিক।

বাড়ির ভেতরের মেঝেয় বসানো হয়েছে সাদা মার্বেল। 

ঈশা আম্বানির কাছে যদিও বিলাসবহুল বাড়ি নতুন কিছু নয়। ভারতের মুম্বাইয়ে মুকেশ আম্বানির বাড়ি অ্যান্টিলিয়া দেশে তো বটেই বিদেশেও আলোচনার বিষয়। তবে ঈশার নতুন ঠিকানাও কম সুন্দর নয়! 

এই সেই বাংলো 

বাংলোটি ছিল ইউনিভার মালিকানাধীন। ২০১২ সালে সেটি কেনে পিরামল গোষ্ঠী। সেই বাংলোটিই সংস্কার করে চকচকে করে তোলা হয়েছে। বিয়ের পর এই বাড়িতেই থাকবেন আনন্দ ও ঈশা। 

সংশ্লিষ্ট খবর