আন্তর্জাতিক

কত দামে বিক্রি হলো হকিংয়ের হুইলচেয়ার?

প্রকাশ : ০৯ নভেম্বর ২০১৮

কত দামে বিক্রি হলো হকিংয়ের হুইলচেয়ার?

  অনলাইন ডেস্ক

বিজ্ঞানের জটিলতম বিষয়গুলো সহজ সরলভাবে তুলে ধরায় সিদ্ধহস্ত ছিলেন স্টিফেন হকিং। গত মার্চে পৃথিবী ছেড়ে চলে গেলেও রেখে গেছেন প্রচুর গবেষণার পাণ্ডুলিপি। হকিংয়ের এমনই কিছু পাণ্ডুলিপি ও ব্যবহার্য কিছু জিনিস সম্প্রতি তোলা হয়েছিল নিলামে, যার মধ্যে ছিল তার হুইলচেয়ারও। 

বৃহস্পতিবার বেশ চড়া মূল্যেই বিক্রি হয়েছে স্টিফেন হকিংয়ের এই জিনিসগুলো। ব্রিটেনের নিলাম সংস্থা ‘ক্রিস্টিজ’-এর পক্ষ থেকে অনলাইনে এই নিলামের আয়োজন করা হয়। তাতে রাখা হয় হকিংয়ের ব্যবহার করা একটি মোটরচালিত হুইলচেয়ার, একাধিক নিবন্ধের পাণ্ডুলিপি এবং বেশ কিছু মেডেল। নিলামে তোলা হয়, হকিংয়ের সই করা ও আঙুলের ছাপ দেওয়া 'আ ব্রিফ হিস্ট্রি অব টাইম'-এর একটি কপি এবং ১৯৬৫ সালে তার লেখা একটি গবেষণাপত্রও।

এর মধ্যে হকিংয়ের ব্যবহার করা মোটরচালিত হুইলচেয়ারটি বিক্রি হয় ২ লাখ ৯৬ হাজার ৭৫০ পাউন্ডে। হকিংয়ের পিএইচডির গবেষণাপত্র 'প্রপার্টি অব এক্সপ্যান্ডিং ইউনিভার্সেস' বিক্রি হয় ৫ লাখ ৮৪ হাজার ৭৫০ পাউন্ডে। হকিংয়ের আঙুলের ছাপসহ 'আ ব্রিফ হিস্ট্রি অব টাইম' বইয়ের কপিটি বিক্রি হয় ৬৮ হাজার ৭৫০ পাউন্ডে। ১৯৭৪ সালে প্রকাশিত হকিংয়ের একটি লেখা বিক্রি হয় ৭ হাজার ৫০০ পাউন্ডে। হকিংয়ের মেডেলগুলো বিক্রি হয় তার হুইলচেয়ারটির প্রায় সমান দামেই।

নিলাম থেকে পাওয়া অর্থের একটা বড় অংশ হকিংয়ের পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে নিলাম সংস্থা ক্রিস্টি। হুইলচেয়ার বিক্রির অর্থ যাবে 'স্টিফেন হকিং ফাউন্ডেশন' এবং মোটর নিউরন ডিজিস অ্যাসোসিয়েশনে। এই মোটর নিউরন ডিজিসে আক্রান্ত হয়েই আজীবন হুইলচেয়ারবন্দি ছিলেন হকিং।

বৃহস্পতিবার হকিংয়ের ব্যবহৃত জিনিসের সঙ্গে আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ জিনিস নিলামে তোলা হয়। এসবের মধ্যে ছিল স্যার আইজ্যাক নিউটনের সই করা ব্যাঙ্ক ঋণ সংক্রান্ত একটি নথি, চার্লস ডারউইনের লেখা কিছু চিঠি এবং নিউটন সম্পর্কে অ্যালবার্ট আইনস্টাইনের একটি লিখিত অভিমত। নিলামে ওঠামাত্র বিক্রি হয়ে যায় সেগুলোও। সব মিলিয়ে বৃহস্পতিবারের নিলাম থেকে ১৮ লাখ পাউন্ডেরও বেশি অর্থ উঠে আসে। সূত্র: গার্ডিয়ান


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

নেদারল্যান্ডসে যাত্রীবাহী ট্রামে গুলি, নিহত ১


আরও খবর

আন্তর্জাতিক

  অনলাইন ডেস্ক

নেদারল্যান্ডসের উট্রেখট শহরে একটি যাত্রীবাহী ট্রামে বন্দুকধারীর গুলিতে একজন মারা গেছেন। এ ছাড়া বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। 

স্থানীয় সময় সোমবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। খবর বিবিসির

এটিকে ‌‘সম্ভাব্য সন্ত্রাসী হামলা’ বলছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। 

পুলিশ গোলাগুলির স্থানটি ঘিরে রেখেছেন। এছাড়া ঘটনাস্থলে অ্যাম্বুলেন্সের পাশাপাশি এয়ার অ্যাম্বুলেন্সও দেখা গেছে।

পুলিশের একজন মুখপাত্র বলেছেন, ঘটনার পর একটি গাড়িতে করে সন্দেহভাজন বন্দুকধারী পালিয়ে গেছে।

জরুরি প্রয়োজন ছাড়া লোকজনকে বের না হওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। 


সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

বিজ্ঞাপন দিয়ে ‘ব্রেক-আপ’!


আরও খবর

আন্তর্জাতিক

  অনলাইন ডেস্ক

সম্পর্কে জড়ানো কিংবা ভেঙে যাওয়া-দু’টিই স্বাভাবিক ঘটনা। যে কারও সঙ্গেই এটা ঘটতে পারে। ব্রেক-আপের পর অনেকেই মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন। কারও কারও ক্ষেত্রে এই ধাক্কা সমালানোও কঠিন হয়ে পড়ে। ব্রেক-আপের পর অনেকেই নানা ধরনের পাগলামী করেন। তবে এমন ঘটনার পর শহরময় প্রেমিকার পোস্টার লাগানোর ঘটনা খুব কম লোকই করেন। সম্প্রতি এভাবেই নিজের বিচ্ছেদের কথা জানিয়েছেন এক প্রেমিক।

ঘটনাটি ঘটেছে ইন্দোনেশিয়ায়। ব্যতিক্রমী ওই প্রেমিক দাবী করেছেন তার প্রেমিকা তার সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। সাধারণত এরকম ঘটনা হলে একজন আরেকজনের সঙ্গে ব্রেক-আপের কথা মুখেই বলে দেন। কেউ বা আবার মেসেজের মাধ্যমে জানান। কিন্তু এই ব্যক্তি এমন কিছু করেননি। তিনি গোটা শহরজুড়ে বিল বোর্ডে প্রেমিকার পোস্টার লাগিয়েছেন। পোস্টার না বলে সেটাকে অনেকে বিজ্ঞাপন বলছেন। কারণ অন্যান্য বিজ্ঞাপনের সঙ্গেই শহরের রাস্তায় রাস্তায় বিলবোর্ডে শোভা পাচ্ছে মেয়েটির ছবি। নিচে লেখা, ‘তুমি আমার হৃদয় ভেঙেছ। আমার সঙ্গে প্রতারণা করেছ। আমি তোমার সঙ্গে ব্রেক-আপ করতে চাই।’

ব্রেক-আপের ছবিগুলো এখন ঘুরে বেড়াচ্ছে সামাজিক মাধ্যমে। ইন্টারনেটে ছবিগুলো রীতিমতো ভাইরাল হয়ে উঠেছে। 

তবে ওই প্রেমিক শুধু বিলবোর্ড দিয়েই ক্ষান্ত হননি,নিজেদের ব্রেক-আপ নিয়ে একটা ভিডিও তিনি আপলোড করেছেন সামাজিক মাধ্যমে। সেখানে দেখা গিয়েছে, ব্যস্ত সড়কে ঝগড়া করছেন ওই যুবক ও তার প্রেমিকা।

এরই মধ্যে ভিডিওটি একই সঙ্গে টুইটার এবং ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে উঠেছে। সূত্র : ইণ্ডিয়া টুডে

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

ক্রাইস্টচার্চ হামলা: অস্ট্রেলিয়ায় ২ বাড়িতে তল্লাশি


আরও খবর

আন্তর্জাতিক

নিউ সাউথ ওয়েলসের কফস হারবারের কাছে স্যান্ডি বিচ এলাকায় ব্রেনটনের বোনের বাড়িতে তল্লাশি চালায় পুলিশ— এবিসি নিউজ

  অনলাইন ডেস্ক

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে গুলি চালিয়ে অর্ধশত মানুষকে হত্যার ঘটনা তদন্তের অংশ হিসেবে অস্ট্রেলিয়ার দুটি বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। এর মধ্যে ঘাতক ব্রেনটন টারান্টের বোনের বাড়িও রয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার সংবাদ মাধ্যম এবিসি নিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্থানীয় সময় সোমবার সকালে অস্ট্রেলিয়ার পুলিশ প্রথমে নিউ সাউথ ওয়েলসের কফস হারবারের কাছে স্যান্ডি বিচ এলাকায় ব্রেনটনের বোনের বাড়িতে তল্লাশি চালায়। এর কিছু সময় পরে লরেন্স এলাকায় একটি বাড়িতেও তল্লাশি চালায় পুলিশ।

পরে অস্ট্রেলিয়া পুলিশের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, 'এই তল্লাশি কার্যক্রমের প্রাথমিক লক্ষ্য হচ্ছে এমন কিছু খুঁজে বের করা যা নিউজিল্যান্ড পুলিশের চলমান তদন্তে কাজে লাগতে পারে।'

মসজিদে গুলি চালানো ব্রেনটনের বোন অস্ট্রেলিয়াতেই থাকেন। তার বাসায় তল্লাশি চালানোর কথা উল্লেখ করে অস্ট্রেলীয় পুলিশের বিবৃতিতে বলা হয়, ব্রেনটনের পরিবার তদন্ত কাজে সহায়তা করেছে।

গত শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দু'টি মসজিদে বন্দুকধারী সন্ত্রাসী ব্রেনটন টারান্টের হামলায় ৫০ জন নিহত ও অর্ধশতাধিক আহত হন। এখনও ৩৪ জনকে ক্রাইস্টচার্চ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে, তাদের মধ্যে ১২ জন নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে রয়েছেন। 

স্থানীয় সময় গত শুক্রবার বেলা দেড়টার দিকে আল নূর মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করতে যাওয়া মুসল্লিদের ওপর প্রথমে হামলা চালানো হয়। এর একটু পরে লিনউড মসজিদে দ্বিতীয় হামলা হয়। 

ফেসবুকে লাইভে গিয়ে আল নূর মসজিদে স্বয়ংক্রিয় রাইফেল নিয়ে হামলা চালান ব্রেনটন। ওই মসজিদে নামাজ আদায় করতে যাচ্ছিলেন নিউজিল্যান্ড সফরে থাকা বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সদস্যরা। কয়েক মিনিটের জন্য তারা প্রাণে বেঁচে যান।

এ সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় ব্রেনটনকে হত্যার দায়ে অভিযুক্ত করে শনিবার ক্রাইস্টচার্চ আদালতে হাজির করে রিমান্ড আবেদন জানানো হলে আদালত রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

সংশ্লিষ্ট খবর