হলিউড

সেরা আবেদনময়ী তিনি

প্রকাশ : ১১ অক্টোবর ২০১৮ | আপডেট : ১১ অক্টোবর ২০১৮

সেরা আবেদনময়ী তিনি

কেট আপটন

  অনলাইন ডেস্ক

গ্ল্যামার আর সৌন্দর্য দিয়ে মানুষকে মোহিত করে রাখেন শোবিজ তারকারা। নারী তারকারা যৌন আবেদন ও সৌন্দর্য দিয়ে দর্শকদের কতটা মুগ্ধ করতে পারেন সেটা নিয়েও হয় হিসেব নিকেশ। হলিউডে এমন অনেক তারকাই আছেন যারা নিজের সৌন্দর্য দিয়ে মাত করছেন পুরো বিশ্ব।

বিশ্বব্যাপী সৌন্দর্য ছড়িয়ে দেওয়া তেমনই এক নারী কেট আপটন। তিনি বিশ্বের সবচেয়ে আবেদনময়ী নারী। বিশ্বখ্যাত ম্যাক্সিম ম্যাগাজিন তাকে দিয়েছে পৃথিবীর সেরা যৌন আবেদনময়ীর খেতাব। ম্যাগাজিনটি সম্প্রতি এ বছরের 'হট হান্ড্রেড' তালিকা প্রকাশ করে। সেই তালিকায় কিম কার্দাশিয়ান বোনেদেরও পেছনে ফেলে শীর্ষে উঠে এসেছেন কেট আপটন।

কেট আপটন

যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগানে কেট আপটনের জন্ম। মাত্র ১৬ বছর বয়সেই তার মডেলিং যাত্রা। শখের বশে গিয়েছিলেন এলিট মডেল ম্যানেজমেন্ট কোম্পানির একটি কাস্টিং কল-এ। 'হিরা' চিনতে দেরি হয়নি সেই এজেন্সির। ওই দিনই কেট আপটনকে সাইন করে নেয় কোম্পানিটি।

সেই যে শুরু তারপর আর পিছনে তাকাতে হয়নি তাকে। হলিউড ছবি থেকে আন্তর্জাতিক ফ্যাশন ম্যাগাজিন ‘ভো‌গ’-এর প্রচ্ছদ, সবখানেই দাপট দেখিয়ে চলেছেন তিনি। আর এখন তো হয়ে গেলেন বিশ্বের সবচেয়ে যৌন আবেদনময়ী নারী।

কেট আপটন

কেট আপটন আলোচনায় আসেন স্পোর্টস ইলাস্ট্রেটেড-এর স্যুইমস্যুট ইস্যুতে ২০১০-১১ সালে। সে সময় তার কিছু সুইমস্যুটের ছবি ঝড় তোলে নেট দুনিয়ায়। এরপর একটি হিপ-হপ ভিডিওতে দেখা দেন কেট। আর এটা দিয়েই তিনি জনপ্রিয়তায় চলে আসেন। ২০১৪ সালে ইন্টারনেটে তার নগ্ন ছবি ফাঁস হওয়া নিয়ে প্রবল বিতর্ক তৈরি হয়। আর এসব বিষয় তাকে নিয়ে যায় আলোচনার তুঙ্গে। মাত্র ২৬ বছর বয়সেই তিনি হয়েছেন বিশ্বে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক নেওয়া মডেলদের একজন। 

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

মনরোর অ্যাওয়ার্ডের এত দাম!


আরও খবর

হলিউড
মনরোর অ্যাওয়ার্ডের এত দাম!

প্রকাশ : ১৯ নভেম্বর ২০১৮

মেরিলিন মনরো- ফাইল ছবি

  অনলাইন ডেস্ক

বিংশ শতাব্দির লাখো তরুণের স্বপ্নের রানি মেরিলিন মনরো পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেছেন ১৯৬২ সালে। কিন্তু মৃত্যুর অর্ধশতাব্দি পরও ভুবনমোহিনী হাসির অধিকারী এই অভিনেত্রীর আবেদন এতটুকুও কমেনি। 

তারই প্রমাণ মিলল যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার বেভারলি হিলে অনুষ্ঠেয় একটি নিলামে। সেখানে মনরোর জেতা গোল্ডেন গ্লোব অ্যাওয়ার্ডটি বিক্রি হয়েছে রেকর্ড দামে। খবর নিউইয়র্ক টাইমসের। 

অ্যাওয়ার্ডটি আড়াই লাখ ডলারে বিক্রি হয়েছে বলে জানিয়েছে নিলামকারী প্রতিষ্ঠানটি।

জুলিয়ানস অকশন নামের নিলামকারী প্রতিষ্ঠানটির মালিক ড্যারেন জুলিয়ান জানান, এছাড়াও নিলামে মনরোর ব্যবহৃত ১৯৫৬ সালের দুই আসনের ফোর্ড থান্ডারবার্ড মডেলের গাড়িটি ৪ লাখ ৯০ হাজার ডলারে কিনে নিয়েছেন এক ব্যক্তি।

তিনি জানান, ১৯৬২ সালে অনাকাঙ্খিত মৃত্যুর আগে প্রায় ৬ বছর গাড়িটি ব্যবহার করেছেন হলিউডের এই নারী সুপারস্টার।


সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

চলে গেলেন স্পাইডারম্যান-আয়রনম্যান স্রষ্টা


আরও খবর

হলিউড

স্ট্যান লি

  অনলাইন ডেস্ক

স্পাইডারম্যান, এক্স ম্যান, হাল্ক, আয়রনম্যান, ডক্টর স্ট্রেঞ্জ চরিত্রগুলো বিশ্ব মাতানো। চরিত্রগুলো অগণিত মানুষের পছন্দের তালিকায় রয়েছে। পৃথিবী কাঁপানো এসব চরিত্রের স্রষ্টা মার্কিন কমিক্স বই লেখক ও মার্ভেল কমিক্সের সাবেক প্রেসিডেন্ট স্ট্যান লি  চলে গেলেন চির বিদায় নিয়ে। সোমবার  শিকাগোর সিনাই মেডিক্যাল সেন্টারে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ৯৫ বছর বয়সী স্ট্যান লি।

হলিউড রিপোর্টে তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন তার মেয়ে জেসি।  জেসি বলেন, ‘তিনি তার জীবন এবং কাজকে ভালোবেসেছিলেন। তার পরিবার এবং ভক্তরা তাকে ভালোবাসতো। তার স্থান অপূরণীয়।’

তবে স্ট্যান লি’র মৃত্যুর কারণ জানাননি জেসি। জানা গেছে অনেকদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। ছিলো চোখের সমস্যাও। এইসব সমস্যা নিয়ে আর ফিরলেন স্ট্যান লি।

১৯২২ সালে নিউ ইয়র্ক শহরের একটি নিম্নবিত্ত পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন স্ট্যান লি। বাবা জ্যাক লিয়েবার ছিলেন দর্জি। ১৯৬০ সাল থেকে মার্বেল কমিক্স লেখা শুরু হয় স্ট্যান লির। এমনকি প্রচ্ছদ থেকে শুরু করে প্রায় সব কিছুই নিজের হাতে করতেন তিনি। 

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

অনামিকায় নতুন প্রেমিকের উপহার


আরও খবর

হলিউড

লেডি গাগা

  অনলাইন ডেস্ক

ছিলেন গায়িকা। এখন নায়িকা হিসেবেই পরিচিত তিনি। নানা সময়ে নানা প্রসঙ্গ নিয়ে হলিউড পাড়ায় আলোচিত তিনি। বলছি লেডি গাগার কথা। ক’দিন আগে হলিউড এজেন্ট ক্রিশ্চিয়ান ক্যারিনোর সঙ্গে সম্প্রতি বাগদান সেরেছেন গাগা। গণমাধ্যমে নিজের বাগদানের খবর নিজেই নিশ্চিত করেছিলেন। এবার প্রেমিকের দেওয়া আংটি সামনে আনলেন গাগা। 

সম্প্রতি একটি পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের রেড কার্পেটে ধরা দেন তিনি। পরনে ছিল ডি'অরের ব্যালেরিনা গাউন। তবে সব কিছু ছাপিয়ে উপস্থিত সবার নজর গিয়ে পড়ে গাগার অনামিকার উপর।যেখানে একটা বড় গোলাপি হিরের আংটি জ্বলজ্বল করছিল।

লেডি গাগাও আংটি লুকানোর কোনও চেষ্টা করেননি গাগা। বরং এমনভাবে পোজ দিতে শুরু করেন যাতে ভালভাবে আংটিটি দেখা যায়। পরে এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘কারও প্রতি ভালবাসা জাহির করায় বাধা কোথায়?'

সংশ্লিষ্ট খবর