স্বাস্থ্য

দীর্ঘ জীবনের জন্য যা প্রয়োজন

প্রকাশ : ১১ জানুয়ারি ২০১৯

দীর্ঘ জীবনের জন্য যা প্রয়োজন

  অনলাইন ডেস্ক

কেউ চিরদিন বেঁচে থাকবে না।একদিন সবাইকে এই পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হবে, এটাই স্বাভাবিক। তারপরও কিছু কিছু অভ্যাস আছে যার কারণে অনেকের মৃত্যুর সময় ত্বরান্বিত করছে। এর মধ্যে খাদ্যাভাস এবং জীবনযাপন পদ্ধতি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। দীর্ঘ ও সুস্থ জীবনযাপন করতে যেসব অভ্যাস গড়ে তোলা জরুরি-  

১. প্রক্রিয়াজাত খাবারে অনেক বেশি চিনি, লবণ ও ফ্যাট থাকে৷ এইসব খাবারে ফাইবার অনেক কম থাকে৷ এ ধরনের খাবার নিয়মিত খেলে হৃদরোগ, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে। এ কারণে খাদ্যতালিকা থেকে এ ধরনের খাবার বাদ দিতে হবে। সেই সঙ্গে শাকসবজি ও ফলমূলজাতীয় খাবার যোগ করতে হবে। 

২. নেতিবাচক মনোভাব যে কারও ভিতরের শক্তি নষ্ট করে দেয়৷ এতে মানসিক চাপ বাড়ে। তখন রাগ, হতাশা, বিষণ্ণতা ও উদ্বিগ্নতা-এসব অনুভূতি বৃদ্ধি পায়। কারও কারও ক্ষেত্রে বেশি খাওয়ার প্রবণতাও বাড়ে। তাই নেতিবাচক চিন্তা বাদ দিয়ে ইতিবাচক চিন্তা করুন৷  প্রয়োজনে সৃজনশীল কাজে মনোযোগ দিন। নেতিবাচক চিন্তা এলে যোগব্যায়াম, ধ্যান করুন।  

৩. গবেষণা বলছে, দিনে ৩০ মিনিটের ব্যায়াম আপনার আয়ু বাড়িয়ে দেবে৷ তাই দীর্ঘায়ু ও সুস্থতা লাভের জন্য সারাদিনের কিছুটা সময় বেছে নিন ব্যায়ামের জন্য৷

৪. স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের জন্য প্রতিদিন ৭ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুমানো প্রয়োজন৷ ঘুমের হ্রাস বৃদ্ধি মানুষের মৃত্যু হারের উপর প্রভাব বিস্তার করে৷ নিয়মিত কম ঘুমালে হৃদরোগ, ডায়াবেটিস ও স্থূলতার মতো মারাত্মক স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে৷ আর নিয়মিত ভালো ঘুম হলে মানসিক চাপ, হতাশা কমে যায়। হৃৎপিণ্ডও ভাল থাকে। 

৫. নিজে উদ্যমী হয়ে কোন কাজ করার চেষ্টা করুন। এই উদ্যমও আপনাকে বেশি দিন বাঁচার অনুপ্রেরণা জোগাবে। 

৬. পরিবারের ও বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটান। মানসিক চাপ থাকলে প্রিয়জনদের সঙ্গে শেয়ার করে মন হালকা করার চেষ্টা করুন। সুন্দর পারিবারিক পরিবেশ আপনার আয়ু বাড়াতে সাহায্য করবে। সূত্র : রিডার্স ডাইজেষ্ট


সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

আয়োডিনের অভাবে হাইপোথাইরয়েডিজম


আরও খবর

স্বাস্থ্য

  ডা. মনিলাল আইচ

যেসব অঞ্চলে আয়োডিনের অভাব রয়েছে সেখানে আয়োডিনের অভাবজনিত কারণে হাইপোথাইরয়েডিজম দেখা যায়। নবজাতকের মধ্যে থাইরয়েড গ্লান্ড তৈরি না হলে কনজেনিটাল হাইপোথাইরয়েডিজম হয়। এ ছাড়া চিকিৎসাজনিত কারণেও এই অসুখ হতে পারে। অপারেশনের কারণে থাইরয়েড গ্লান্ড বাদ দিতে হলে বা অন্য কারণেও থাইরয়েড নষ্ট হয়ে গেলে এই সমস্যা হতে পারে।

থাইরয়েড গ্লান্ডের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি সক্রিয় হলে থাইরয়েড গ্লান্ড নষ্ট হয়ে যায়। অটোইমিউনো রোগে এ ধরনের সমস্যা হয় যার ফলে হাইপোথাইরয়েডিজমে আক্রান্ত হতে পারে। এ ছাড়া বিভিন্ন ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবেও হাইপোথাইরয়েডিজমে আক্রান্ত হতে পারে।

হাইপোথাইরয়েডিজম হলে অবসাদগ্রস্ত হওয়া, সঙ্গে অলসতা, ঘুম ঘুম ভাব হয়। ওজন বেড়ে যায়, কণ্ঠস্বর খসখসে হয়ে যায়, শীত শীত ভাব দেখা যায়, চুল পড়তে শুরু করে, ত্বক ঠাণ্ডা ও খসখসে হয়, স্মৃতিশক্তি কমে যায়, মেজাজ খিটখিটে হয়ে যায়, কোষ্ঠকাঠিন্য শুরু হয়, ব্লাড প্রেশার বাড়তে পারে, বন্ধ্যাত্বের সমস্যা হতে পারে, গর্ভধারণকালে গর্ভপাত হতে পারে, কনজেনিটাল হাইপোথাইরয়েডিজমে শিশুর ব্রেইনের বিকাশ হয় না, ক্ষুধামন্দা শুরু হয় ও পিরিয়ডের সমস্যা হতে পারে।

এ সমস্যা দূর করার জন্য পর্যাপ্ত আয়োডিনসমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। ফুলকপি, বাঁধাকপি, ব্রুকলি খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে, বেশি করে খনিজ লবণসমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। প্রতিদিন কিছু সময় ব্যায়াম করা ছাড়াও শারীরিক কার্যক্রম বাড়াতে হবে। এর ফলে শরীরে এমনকি থাইরয়েড গ্রন্থিতে অক্সিজেন সরবরাহ বাড়ে। তবে হাইপোথাইরয়েডিজম সমস্যা হলে সঙ্গে সঙ্গে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে চিকিৎসা নিন, ভালো থাকুন।


লেখক: অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান, নাক, কান ও গলা বিভাগ, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতাল

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

শিশুর ডায়রিয়া-জ্বরে করণীয়


আরও খবর

স্বাস্থ্য

প্রতীকী ছবি

  ডা. আবু সাঈদ শিমুল

শীতের শেষে বসন্ত চলছে। ঋতু পরিবর্তনের মিশ্র আবহাওয়ায় শিশুরা ডায়রিয়া ও জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছে। এ সময়ে শিশুর স্বাস্থ্যের প্রতি বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

ভাইরাসজনিত ডায়রিয়া ও জ্বর খুব বেশিদিন স্থায়ী হয় না। বমির সঙ্গে পাতলা পায়খানা হলে বুঝবেন শিশু ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে। ভাইরাসজনিত এই ডায়রিয়ায় কোনো অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োজন নেই।

অনেকে এ সময়ে মায়ের খাওয়া-দাওয়ার ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করেন, যা একেবারে ঠিক নয়। কেউ কেউ বুকের দুধ বন্ধ করে লেকটোজেনমুক্ত দুধ দেন। এটিও ঠিক নয়। মূলত এ ডায়রিয়ার চিকিৎসা হলো খাবার স্যালাইন। প্রতিবার অল্প অল্প করে স্যালাইন খাওয়াতে হবে।

শিশুর বয়স দুই বছরের কম হলে ১০ থেকে ২০ চামচ করে এবং দুই থেকে ১০ বছরের মধ্যে হলে ২০ থেকে ৪০ চা চামচ করে স্যালাইন খাওয়াতে হবে। এর বেশি বয়সের শিশু যে পরিমাণ খেতে পারবে সে পরিমাণ স্যালাইন দেবেন।

তবে খুব বেশি বমি হলে, স্যালাইন বা অন্যান্য খাবার খেতে না পারলে, অতিরিক্ত জ্বর থাকলে, পায়খানার সঙ্গে রক্ত গেলে কিংবা ১৪ দিনের বেশি ডায়রিয়া স্থায়ী হলে শিশুকে হাসপাতালে নিতে হবে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন, ভালো থাকুন।


লেখক: কনসালট্যান্ট, শিশু বিভাগ, মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে চিকিৎসা


আরও খবর

স্বাস্থ্য

  সমকাল প্রতিবেদক

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে রোববার সরকারি সব হাসপাতালে বিনামূল্যে চিকিৎসা দেওয়া হবে। 

এদিন সকাল সাড়ে ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত রোগীরা হাসপাতালের আউটডোরে এ সেবা পাবেন। একইসঙ্গে হাসপাতালে ভর্তি থাকা রোগীদের মাঝে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হবে। 

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের নির্দেশে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ-সংক্রান্ত নির্দেশনা ইতিমধ্যে জারি করেছে। সরকারি ছুটির দিন হওয়া সত্ত্বেও জরুরি ও আন্তঃবিভাগীয় সেবা অব্যাহত থাকবে বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। 

এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে রোববার রাজধানীর মহাখালী জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে 'বাংলাদেশে শিশু স্বাস্থ্যের অগ্রগতি' শীর্ষক এক সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।