স্বাস্থ্য

শুকনো কাশি থেকে মুক্তির উপায়

প্রকাশ : ০৬ নভেম্বর ২০১৮

শুকনো কাশি থেকে মুক্তির উপায়

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকৃতিতে একটু একটু করে শুরু হচ্ছে শীতের আমেজ। ঋতু পরিবর্তনের এই সময়ে অনেকেই সর্দি-কাশি, জ্বরে আক্রান্ত হন। 

শুকনো কাশি হলে তো কথাই নেই।এটা দিন তো বটেই, রাতেও প্রচণ্ড কষ্ট দেয় ।এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে চিকিৎসকের কাছে ছোটেন অনেকেই৷ তবে ঘরোয়া কিছু উপায়েই এ সমস্যা থেকে নিরাময় পেতে পারেন।

সর্দি, কাশি কিংবা ঋতু পরিবর্তনের সময় যে জ্বর হয় তা থেকে মুক্তি দিতে পারে এলাচ। অ্যান্টি অক্সিডেন্টসমৃদ্ধ এলাচ জীবাণুনাশক হিসাবে কাজ করে। গলা ব্যথা এবং শুকনো কাশি হলে এলাচ খান। এর জন্য একটা মিশ্রণ তৈরি করতে পারেন। একটা হাড়িতে পানি গরম করে তাতে কয়েকটা এলাচ দিন। এবার পানিটা ছেঁকে তাতে মধু মিশিয়ে খেয়ে নিন। এতে সর্দি-কাশির যন্ত্রণা অনেকটা কমবে। চাইলে এলাচ দিয়ে চা তৈরি করেও খেতে পারেন। 

শুধু কাশিই নয়, হজম ক্ষমতাও বাড়াতে পারে ছোট এলাচ৷

তুলসী পাতা শুকনো কাশি দূর করতে দারুন কার্যকরী। তুলসী পাতায় থাকায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট গলা পরিস্কার করে এবং কফ বের করতে সাহায্য করে। গরম পানিতে তুলসী পাতা জ্বাল দিয়ে তাতে মধু মিশিয়ে পান করলে কাশিতে আরাম পাবেন। 

এক গ্লাস হালকা গরম দুধে আধা চামচ হলুদের গুড়া আর মধু মিশিয়ে খেলেও কাশি কমে। 

ভরা পেটে এক চামচ ঘিয়ের সঙ্গে আধা চামচ গোল মরিচ মিশিয়ে খেয়ে নিন। এটি কাশি কমাতে সাহায্য করবে

সূত্র : এনডিটিভি, হেলথলাইন

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

স্বাস্থ্যসেবার মূল্য তালিকা নিয়ে অগ্রগতি জানাতে নির্দেশ


আরও খবর

স্বাস্থ্য

  সমকাল প্রতিবেদক

দেশের সব বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক, ল্যাবরেটরি ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিৎসা-সংক্রান্ত সব পরীক্ষা ও সেবার মূল্য তালিকা প্রদর্শনের বিষয়ে হাইকোর্ট যে আদেশ দিয়েছিলেন, সেই আদেশ বাস্তবায়নের অগগ্রতি জানাতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে ফের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলম সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার এই আদেশ দেন।

গত ২২ অক্টোবর হাইকোর্ট এক আদেশে চিকিৎসা-সংক্রান্ত সব পরীক্ষা ও সেবার মূল্য তালিকা দুই মাসের মধ্যে নির্ধারণ করতে নির্দেশ দেন। এ জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিবের নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের কমিটিও গঠন করা হয়। পাশাপাশি ওই আদেশ বাস্তবায়নের বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করতেও বলা হয়। 

তবে সংশ্লিষ্টরা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রতিবেদন না দেওয়ায় মঙ্গলবার বিষয়টি আদালতের নজরে আনেন রিটকারীর আইনজীবী। এরপর হাইকোর্ট ফের অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নির্দেশ দেন। আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ড. বশির আহমেদ।

গত বছরের ২৪ জুলাই হিউম্যান রাইটস ল'ইয়ার্স অ্যান্ড সিকিউরিং এনভায়রনমেন্ট সোসাইটি অব বাংলাদেশের পক্ষে কোষাধ্যক্ষ মো. শাহ আলম হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করেন। তাতে ৩০ দিনের মধ্যে সব অনুমোদিত এবং অনুমোদনহীন প্রাইভেট হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের যন্ত্রপাতিসহ সেবার মূল্য তালিকা দাখিলের নির্দেশনা চাওয়া হয়। 

পরে হাইকোর্ট ওই রিটের শুনানি নিয়ে ওই দিন রুলসহ অন্তর্বর্তীকালীন আদেশ দেন।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

নিপাহ ভাইরাস রোধে খেজুরের রস ফুটিয়ে পানের পরামর্শ


আরও খবর

স্বাস্থ্য

ফাইল ছবি

  সমকাল প্রতিবেদক

নিপাহ ভাইরাসের ঝুঁকি এড়াতে খেজুরের রস ফুটিয়ে পান করার পরামর্শ দিয়েছে সরকারের জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)।

মঙ্গলবার রাজধানীর মহাখালীর আইইডিসিআর কার্যালয়ে 'নিপাহ বিস্তাররোধে জনসচেতনতা: গণমাধ্যমের ভূমিকা' শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা এ পরামর্শ দেন।

পরিচালক বলেন, নিপাহ ভাইরাসের মূল উৎস খেজুরের রস। খেজুরের রস গাছে হাড়িতে থাকা অবস্থায় বাদুড় ওই রস পান করে এবং রসের মধ্যে প্রস্রব করে। গোপন ক্যামেরার মাধ্যমে তারা দেখতে পেয়েছেন, রসের হাড়ির চারপাশ জাল বা অন্য কিছু দিয়ে ঢেলে দিলেও বাদুর প্রস্রাব করে। ওই প্রস্রাব মিশ্রিত রস পান করে মানুষ নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়। তাই খেজুরের রস পান করা কোনোভাবেই নিরাপদ নয়। একমাত্র উপায় ফুটিয়ে খেজুরের রস পান করতে হবে। তাহলে নিপাহ ভাইরাস মুক্ত থাকা সম্ভব হবে।

সেব্রিনা ফ্লোরা আরও বলেন, রাজধানীসহ সারাদেশে মানুষের মধ্যে রীতিমতো আয়োজন করে খেজুরের রস পানের প্রবণতা বাড়ছে। এভাবে কাঁচারস পানের ফলে যে কারও বাদুড়বাহিত মরণব্যাধি নিপাহ রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ছে। চলতি বছর নিপাহ ভাইরাসে তিন জন আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে এক জনের মৃত্যু হয়েছে। তাই খেজুরের রস পানের বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ২০০১ থেকে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সারাদেশে নিপাহ ভাইরাসে ৩০৩ জন আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ২১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। যা মোট আক্রান্তের ৬৯ দশমিক ৬৪ শতাংশ।

অনুষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানের জ্যেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. এস এম আলমগীরসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

পরের
খবর

পাকা চুল তুললে যা হয়


আরও খবর

স্বাস্থ্য
পাকা চুল তুললে যা হয়

প্রকাশ : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

  অনলাইন ডেস্ক

আজকাল চুল পাকার কোনও বয়স নেই।অল্প বয়সেও চুল পাকা দেখা যায়। সাধারণত মাথার চামড়ায় (ত্বকে) পর্যাপ্ত ভিটামিন ও খনিজের অভাবে চুল পাকতে পারে। এছাড়া হজমের সমস্যা বা লিভারের সমস্যা থাকলেও অকালে চুল পেকে যায়।

অল্প বয়সে চুল পাকার ফলে অনেকেই অস্বস্তিতে বোধ করেন।  তখন নিজের পাকা চুল বেছে তুলতে শুরু করেন। 

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এভাবে বেছে বেছে পাকা চুল তুললে চুলের বৃদ্ধি এবং নতুন চুল গজানোর স্বাভাবিক প্রক্রিয়া বাধাপ্রাপ্ত হয়। তখন নতুন চুল গজালে তা আগের তুলনায় রুক্ষ হয়ে যেতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে নতুন চুল না-ও গজাতে পারে। 

এ কারণে অল্প বয়সে চুল পেকে গেলে সেই অস্বস্তি থেকে সাময়িক মুক্তি পেতে পাকা চুল না তোলার পরামর্শ দিয়েছে বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, পাকা চুলের অস্বস্তি থেকে সাময়িক মুক্তি পাওয়ার চেষ্টায় উল্টে মাথায় টাক পড়ে যাওয়াটা মোটেই কাঙ্খিত নয়। বরং চুল পাকা প্রতিরোধে একাধিক প্রাকৃতিক উপায় অনুসরণ করতে পারেন।

সূত্র : জি নিউজ


সংশ্লিষ্ট খবর